শুক্রবার, ২১শে সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ইং ৬ই আশ্বিন, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

দ্বিতীয়, তৃতীয় দফায় হামলা হয়েছে প্রশাসনের ব্যর্থতার কারণে (ভিডিও)

talk-show-2-550x413নিজস্ব প্রতিবেদকমন্ত্রী ছায়েদুল হক বলেছেন, তিনি মালাউন বলেছেন এ কথা প্রমাণ করতে পারলে মন্ত্রীত্ব ছেড়ে দেবেন। এই বিষয়টিকে দায় হিসাবে না দেখলেও আমি মনে করি মিডিয়ার প্রমাণ করা সুযোগ রয়েছে। মন্ত্রী সাহেব যেখানে এ কথা বলেছেন সেখানে তো অনেক জনগণ ছিলো তারা এখন কি বলছেন? সেখানে উপস্থিত দু’একজন সাংবাদিক কিংবা নিরপেক্ষ দু’একজন লোক যদি মন্ত্রী সাহেব হিন্দুদের মালাউন বলেছেন এ কাথার সপক্ষে সাক্ষী দেন তাহলে মন্ত্রী সাহেবের জেল-জরিমানা হবে কি না তা আমার জানা নেই, কিন্তু আমি এটা জানি যে আমার দিক থেকে এ কথা প্রমাণ করাটা যথেষ্ট গুরুত্বপূর্ণ।
রবিবার রাতে ইন্ডিপেন্ডেন্ট টিভির আজকের বাংলাদেশ অনুষ্ঠানে এমন মন্তব্য করেন দৈনিক আমাদের অর্থনীতির সম্পাদক নাঈমুল ইসলাম খান।
তিনি আরো বলেন, এই হামলার ঘটনার ক্ষেত্রে ধর্মকে ব্যবহার করা হয়েছে সুতরাং এখানে ধর্ম একটা ইস্যু। এই ক্ষেত্রে দুর্বলের উপর আঘাত করার চেষ্টা করা হয়েছে। এই আঘাতটা যদি একজন সবলকে করা হত তাহলে প্রতিক্রিয়াটা তাৎক্ষণিক হতো না। দ্বিতীয় হামলাগুলো হয়েছে প্রশাসনের ব্যর্থতার কারণে। এমন একটা পরিস্থিতিতে কিভাবে মিছিলের অনুমতি দেয়া হয় এটা আমার এখনো বুঝে আসে না। স্বাভাবিকভাবেও কিন্তু প্রশাসন এই সময় মিছিলের অনুমতি দেয়ার কথা না।

নাঈমুল ইসলাম খান আরো বলেন, আমাদের একটা সমস্যা হলো কোন বিষয় নিয়ে আলোচনা করতে গেলে আমরা তার ক্যানভাসটা বড় করে ফেলি। এই হামলার আলোচনার ক্যানভাস বড় হওয়ার কারণে যে সমস্যাটা তৈরি হয়েছে সেটা হলো মূল বিষয়টা হারিয়ে গেছে। সায়েদুল হক মালাউল বলেছেন কি না এই বিষয় নিয়ে বেশি আলোচনা হওয়ার কারণে দ্বিতীয়, তৃতীয় দফায় যে হামলা হয়েছে সেটা আলোচনায় আসেনি। আমি একথা মনে করি না যে, সায়েদুল হককে নিয়ে আলোচনা করা যাবে না, কিন্তু আমাদের আলোচনা শুধুই সায়েদুল হককে নিয়ে হওয়ার কারণে এই ঘটনায় যারা ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন তাদের আলোচনা ঢাকা পড়ে গেছে।