বৃহস্পতিবার, ১৬ই আগস্ট, ২০১৮ ইং ১লা ভাদ্র, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

বড় দেওয়ান পাড়ার ‘মিলন মেলা’ সভ্যতার এক অনন্য দৃষ্টান্ত’

news-image

মাহবুব খান বাবুল, সরাইল (ব্রাহ্মণবাড়িয়া) থেকে : সরাইল সদর ইউনিয়নের আদর্শ গ্রাম খ্যাত বড় দেওয়ান পাড়া। দেওয়ান দিঘীর চার পাড় ঘিরেই সেখানকার অধিবাসীদের বসবাস। শুরু থেকেই এ পাড়ার বান্ধিাদের রয়েছে নিজস্ব ইতিহাস ও ঐতিহ্য। শিক্ষা দীক্ষায়ও তারা অপ্রতিদ্বন্ধী। কালের আবর্তে দেশ বিদেশে মেধা ও যোগ্যতায় এ গ্রামের বাসিন্ধারা এখন প্রতিষ্ঠিত। রাজনীতিবিদ, চিকিৎসক, প্রকোশলী, সাংবাদিক, সাহিত্যিক, শিক্ষকতা ও ব্যবসা বাণিজ্য সহ কোন ক্ষেত্রেই পিছিয়ে নেই এ গ্রামের লোকজন। স্বাধীনতার পরই গ্রামের তখনকার যুবকদের সমন্বয়ে গড়ে উঠেছিল ‘সবুজ সংসদ’ নামের একটি সংগঠন। সংগঠনটি হাটি হাটি পা পা করে অনেক দূর এগিয়েছে। ইতিমধ্যে সামাজিক সাংস্কৃতিক ও উন্নয়নমূলক কর্মকান্ড দ্বারা সংগঠনটি সবার নজর কেড়েছে। তবে হারিয়ে গেছেন সংগঠনের অনেক কর্ণধার। আবার অনেকেই এখন বয়সের ভারে ন্যুজ। পর্যায়ক্রমে ক্ষমতা বা পরিচালকের পালা বদল চলছে। কিন্তু বদলায়নি তাদের বৈশিষ্ট্য ও কর্মকান্ড। নিয়মের ধারা বাহিকতায় গত শুক্রবার রাতে সবুজ সংসদের ব্যবস্থাপনায় অনুষ্ঠিত হয়েছে একটি ‘মিলন মেলা’। আয়োজন অনেক। সাথে ছিল প্রীতিভোজও। তবে হাড় ভাঙ্গা শীতে দেওয়ান দীঘি থেকে হাঁস ধরার প্রতিযোগীতাটি ছিল খুবই উপভোগ্য। সেইদিন বর্ণিল সাজে সেঁজেছিল বড় দেওয়ান পাড়া। রঙ্গিন আলোক সজ্জা, লাল গালিছা, তোরণ ও বাহারি সাজের প্যান্ডেল কোনটিরই কমতি ছিল না।

 

নারীর টানে দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে স্বস্ত্রীক ছুটে এসেছিলেন পাড়ার কর্মব্যস্ত মানুষ গুলো। দিনভর তারা ছিল আনন্দে মাতোয়ারা। সন্ধ্যার পরই পুরো প্যান্ডেল জুড়ে বড় দেওয়ান পাড়ার মহিলাদের সরব উপস্থিতিই তাদের আন্তরিকতার প্রমাণ দেয়। চারিদিকে সেঁজেগুজে ঘুরছে বিভিন্ন বয়সের ছেলে মেয়ে ও শিশুরা। অপেক্ষার পালা কখন আসবেন প্রধান অতিথি। রাত ৮টায় আসলেন প্রধান অতিথি স্থানীয় সংসদ সদস্য ও জাতীয় পার্টির কেন্দ্রীয় কমিটির ভাইস চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট জিয়াউল হক মৃধা। মূহুর্মূহু করতালি শ্লোগান ও ফুল ছিটিয়ে প্রধান অতিথিকে বরণ করলেন বড় দেওয়ান পাড়া গ্রামবাসী। শিশুদের কবিতা আবৃত্তি মুগ্ধ করেছে এমপি ও ইউএনও’কে। গোটা আয়োজনে অভিভূত হলেন এমপি। পেলেন শ্রদ্ধা ও সম্মান। দিয়ে গেলেন অনুদান। পাড়ার সাথী হওয়ার ঘোষনা দিয়ে প্রশংসা কুড়িয়ে হলেন তিনি (এমপি) মহান। রাত ৯টায় মোঃ হেলাল উদ্দিন ঠাকুরের উপস্থাপনায় শেখ আশিক উল্লাহ’র কোরআন তেলাওয়াত ও মোঃ আনিছুল ইসলাম ঠাকুরের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত হয় আলোচনা সভা। মানপত্র পাঠের পর প্রধান অতিথির হাতে তুলে দেন সাধারন সম্পাদক মোঃ মাহবুবুল ইসলাম ঠাকুর জুয়েল। স্বাগত বক্তব্য রাখেন সংগঠনের সভাপতি মোঃ এমদাদুল হক ছালেক। বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন- উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট আবদুর রহমান, নির্বাহী কর্মকর্তা সৈয়দা নাহিদা হাবিবা, সরাইল কলেজেরে অধ্যক্ষ মৃধা আহমাদুল কামাল, সরাইল পিডিব’র নির্বাহী প্রকৌশলী (বিক্রয় ও বিতরণ) সুব্রত রায়, আশুগঞ্জ পিডিবি’র নির্বাহী প্রকোৗশলী চন্দন কুমার সূত্রধর, সদর ইউপি চেয়ারম্যান আবদুল জব্বার, সুহিলপুর ইউপি চেয়ারম্যান আজাদ হাজারী আঙ্গুর ও সবুজ সংসদের উপদেষ্টা মোঃ ফরহাদ উদ্দিন ঠাকুর। প্রধান অতিথি বলেন, বড় দেওয়ান পাড়া ‘বড়ই’ থাকবে। ছোট হতে যাবে কেন? প্রয়াত সুলেমান ঠাকুরের সময় থেকেই রাজনীতি ও সভ্যতায় এ পাড়ার লোকদের উল্লেখযোগ্য অবদান রয়েছে। আশুগঞ্জ ও সরাইলের বিভিন্ন জায়গায় যখন দাঙ্গা হাঙ্গামা আর রণক্ষেত্র নিত্যদিনের সাথী। ঠিক সেই সময় আপনারা সমাজ সভ্য হওয়ার মত একটি অনুষ্ঠান করছেন। এটা সভ্যতার এক অনন্য দৃষ্টান্ত। আমি মুগ্ধ ধন্য ও অভিভূত। অনেক সংগঠনকে আতুড় ঘরেই মৃত্যু হতে দেখেছি। কিন্তু আপনারা আছেন যুগযুগ ধরে। আমিও এ মিলন মেলার সাথী হয়ে গেলাম। এমপি পাড়ার মসজিদ রাস্তা ও সবুজ সংসদের কার্যালয়ের জন্য মোট ৪ লক্ষাধিক টাকার অনুদান দেওয়ারও ঘোষনা দেন।