মঙ্গলবার, ২৩শে জানুয়ারি, ২০১৮ ইং ১০ই মাঘ, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ

সবজি খাচ্ছে গরু-ছাগল : চৌগাছায় মুলার কেজি ২৫ পয়সা

আমাদের ব্রাহ্মণবাড়িয়া
ডিসেম্বর ১৮, ২০১৭
news-image

যশোরের চৌগাছায় প্রতি কেজি মুলার দাম ২৫ পয়সা। সে হিসেবে এক কেজি পিঁয়াজের দামে ৮ মন মুলা পাওয়া যাচ্ছে। পিঁয়াজের কেজি ১১০ টাকা হলেও মুলার মন মাত্র ১০ টাকা। ফলে মুলা চাষীরা মহাবিপাকে পড়েছেন।

উপজেলা কৃষি অফিসার রইচ উদ্দীন জানান চলতি মৌসুমে উপজেলায় মুলা, গাজর, ফুলকপি, বাঁধা কপি, শিম, বেগুন, লাউ, পেপে, টমেটা, পটল, মিষ্টি কুমড়া, পালন শাক, পুইশাক, লালশাক, ধনিয়াপাতা ও বরবটিসহ বিভিন্ন জাতের তরি তরকারির চাষ হয়েছে প্রায় ২৬শ ৭৫ হেক্টর জমিতে। ফলনও বেশ ভাল হয়েছে। কিন্তু উৎপাদিত তরকারির বাজারে দাম পড়ে যাওয়ায় লোকসান গুনতে হচ্ছে কৃষকদের।

এদিকে শীতের সবজির বাম্পার ফলন হলেও দাম পাচ্ছেনা কৃষকরা। অনেক কৃষক ক্ষেত থেকে সবজি তুলছেন না। কৃষকদের অভিযোগ উৎপাদিত সবজির দাম না পাওয়ায় সজবি নিয়ে মহাবিপাকে পড়তে হচ্ছে।

সরেজমিনে উপজেলার পেটভরা, হাজরাখানা, ঠেঙ্গুরপুর, চাদপাড়া, হোগলডাঙ্গা, বুন্দলীতলা, বাটিকামারী পৌর এলাকার ইছাপুর, পাচনামনা, চাদপুর গ্রামের মাঠে গেলে চোখে পড়ে মাঠের পর মাঠ সবজির ক্ষেত। চৌগাছা পাইকারি কাঁচাবাজারে সবজি বিক্রি করতে আসা হাজরাখানা গ্রামের আবুল হোসেন জানান এ বছর সবজির ফলন খুবই ভাল হয়েছে তবে বাজারে দাম একেবারেই কম।

পেটভরা গ্রামের আজিজুর রহমান জানান এ বছর আমার কমপক্ষে ৫০ থেকে ৬০ হাজার টাকার সবজি বিক্রি হওয়ার কথা সেখানে ২০ হাজার টাকা লোকসান হচ্ছে। লোকসানের কারণ জানতে চাইলে তিনি জানান বাজারে এক মন মুলা বিক্রি হচ্ছে ১০/২০ টাকা। যা তোলা ও বহনে ভ্যান ভাড়াও হচ্ছেনা। তাই অনেক চাষী ক্ষেত থেকে মুলা তুলছেনা। অনেকে সবজির ক্ষেত ছাগল-গরু দিয়ে খাওয়াচ্ছেন।

কথা হয় সবজির ক্রয় করতে আসা ব্যাপারী আলামিন হোসেনের সাথে তিনি জানান চলতি মৌসুমে সবজি উৎপাদন হয়েছে ভাল কিন্তু যানবাহন ভাড়া অনেক বেশি বাজারে সবজির দামও একেবারে কমেগেছে। স্থানীয় ব্যাপারী ইমরাম হোসেন, আকবার আলী, নাসির উদ্দীন, আমির হোসেন, তোতা মিয়া জানান বর্তমানে সকল সবজির দাম ব্যাপক হারে কমে যাওয়ায় আজকের বাজারে আমাদের ৫/৭ হাজার টাকা লোকসান গুনতে হচ্ছে।

আজ চৌগাছা বাজার থেকে বেশি সবজি কিনতে চাচ্ছিনা। কৃষক রহমত আলী জানান গতদি বাজারে ১৫ মন মুলা এনে ছিলাম কেউ কোন দাম বলেনি শেষে পাশের নদীতে মুলা ফেলে দিয়েছি। আজ ও অনেক সবজি দবিয়ে-চটকিয়ে কমদাম বলছে অনেক ক্ষেত্রে দাম ও বলছেন না। সবজি বিক্রি করে বহন ভাড়া ও শ্রমিকদের মুজুরী না হওয়ায় অনেকে পটেক থেকে দিচ্ছেন।

তারা জানান কৃষি খাতের ব্যায় আগের তুলনায় ৪/৫ গুন বেড়ে গেছে। তাই কিটনাসক, সার-সেচ খরচ অনেক বেশী পড়েছে। পাশাপাশি শ্রমিকের মজুরী ব্যাপক হারে বৃদ্ধি পেয়েছে। যার ফলে সবজি উৎপাদন খরচ অন্যান্য বছরের তুলনায় বৃদ্ধি পেয়েছে কয়েক গুন। সবজির উৎপাদন খরচ বিঘা প্রতি ২০/২৫ হাজার টাকা সেখানে কোন কোন সবজি বাজারে বিক্রিও হচ্ছে না। তাই অনেকে ক্ষেত থেকে সবজি তুলছেন না। ফলে লাভের আশায় চাষ করে লোকসান গুনতে হচ্ছে।