শুক্রবার, ১৬ই নভেম্বর, ২০১৮ ইং ২রা অগ্রহায়ণ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী টিলারসনকে বরখাস্ত করেছেন ট্রাম্প

news-image

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী রেক্স টিলারসনকে বরখাস্ত করেছেন দেশটির প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। তার পরিবর্তে এ পদের জন্য ট্রাম্প গুপ্তচর সংস্থা সিআইএ প্রধান মাইক পম্পিও এর নাম ঘোষণা করেছেন।

এক টুইটবার্তায় ট্রাম্প জানান, ‘এতদিন মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্বপালনের জন্য টিলারসনকে ধন্যবাদ। আশা করছি, নতুনজনও খুব ভালো কাজ করবে।’ উল্লেখ্য, এর মাত্র এক বছর আগে এক্সনমোবিল এর প্রধান নির্বাহী টিলারসন মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী হিসেবে নিয়োগ পান।

এছাড়া, মার্কিন গোয়েন্দা সংস্থা সিআইএর প্রথম নারী পরিচালক হিসেবে গিনা হ্যাসপেলের নাম সুপারিশ করেছেন ট্রাম্প। এক বিবৃতিতে ট্রাম্প বলেন, সিআইএ পরিচালক মাইক পম্পিওকে নতুন পররাষ্ট্রমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব দিয়ে আমি গর্বিত।

তিনি ওয়েস্ট পয়েন্টে প্রথমস্থান নিয়ে স্নাতক শেষ করেছেন। সেনাবাহিনীতে দায়িত্বপালন করেছেন। হার্ভাড থেকে আইনে স্নাতক করেছেন। তিনি বারবার নিজেকে প্রমাণ করেছেন।

তিনি আরও বলেন, ‘সিআইএ’র উপ-পরিচালক গিনা হ্যাসপেল পম্পিওর স্থলাভিষিক্ত হতে যাচ্ছেন। ফলে তিনিই হচ্ছেন সিআইএর প্রথম নারী পরিচালক। এটা একটা মাইলফলক। মাইক ও গিনা এক বছরের বেশি সময় ধরে একসঙ্গে কাজ করছেন। তাদের মধ্যে দারুণ বোঝাপড়া রয়েছে।’ বিবিসি।

এ জাতীয় আরও খবর

প্রিমিয়ারে মুগ্ধতা ছড়ালো ‘হাসিনা’

ঢাকায় শংকর-এহসান-লয়, রাতে কনসার্ট

বিএনপির গ্রেফতার নেতাকর্মীদের তালিকা ইসিতে

কঙ্গোতে জাতিসংঘের ৮ শান্তিরক্ষী নিহত

স্বর্ণের চেইন নিয়ে রিকশাচালকের বাড়িতে পুলিশ সুপার

বড় আদরের ছোটবোন

চলতি সপ্তাহে এশিয়ার সবচেয়ে বড় সম্মেলন এসোসিয়েশন অব সাউথ এশিয়ান নেশনসে (আসিয়ান) যোগ দেননি মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। এতে গুরুত্ব বেড়েছে পুতিনের। ব্লুমবার্গ এক প্রতিবেদনে জানায়, সিঙ্গাপুরে এবার আসিয়ানের ৩৩ তম সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়েছে। ট্রাম্পের পরিবর্তে এতে যোগ দিয়েছেন দেশটির ভাইস প্রেসিডেন্ট মাইক পেন্স। ফলে এশিয়ার বড় দেশগুলোর কাছে পুতিন বেশি গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠেছেন। সম্মলেন শেষে তোলা গ্রুপ ফটোতে দেখা গেছে, আয়োজক দেশ সিঙ্গাপুরের প্রধানমন্ত্রী লি হাসিয়েন লংয়ের ঠিক পাশেই দাঁড়িয়েছেন পুতিন। আর অন্যপাশে একজনের পরে দাঁড়িয়েছেন মাইক পেন্স। থাইল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী প্রেয়ুথ চান ওচা এবং অস্ট্রেলিয়ার প্রতিনিধি স্কট মরিসনের মাঝখানে দাঁড়িয়েছিলেন পেন্স। আর এতেই নাকি গুরুত্বের বিষয়টি বোঝা যাচ্ছে বলে দাবি করছে ব্লুমবার্গ। সংবাদমাধ্যমটির দৃষ্টিতে, যুক্তরাষ্ট্রের চেয়ে রাশিয়াকে অনেক বেশি গুরুত্ব দিয়েছে এশিয়ার দেশগুলো। এদিকে বেশ কয়েকজন রাজনৈতিক বিশ্লেষকের বারত দিয়ে সিএনবিসি এক প্রতিবেদনে জানায়, ট্রাম্প আসিয়ানে না আসায় প্রমাণ হয়েছে তিনি এশিয়ার প্রতি খুব একটা মনোযোগী নন। অবশ্য ট্রাম্প এশিয়ার প্রতি মুখ ফিরিয়ে নিয়েছেন কীনা তা নিশ্চিত করতে পারেনি সংবাদমাধ্যমটি। অনেকে বলছেন, ট্রাম্পের কাজ মাইক পেন্স করতে পেরেছেন। কিন্তু এটা মানতে নারাজ অন্য একটি পক্ষ।

তারা এখন ‘ধানের শীষের’

বাংলাদেশের মানবাধিকার পরিস্থিতি নিয়ে ইইউ পার্লামেন্টের গভীর উদ্বেগ