বুধবার, ২৩শে মে, ২০১৮ ইং ৯ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

হুইলচেয়ারে বিক্ষোভ দেখাতে এসেছিলেন ফিলিস্তিনি যুবক ফাদি

news-image

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : ফিলিস্তিনি যুবক ফাদি আবু সালাহ ২০০৮ সালে গাজায় বিক্ষোভে দুটি পা হারিয়েছিলেন। সোমবার বিক্ষোভে ইসরাইলি গুলিতে নিহতদের মধ্যে তিনিও রয়েছেন। তিনি হুইলচেয়ারে করে বিক্ষোভে অংশ নিয়েছিলেন।

তার বন্ধু ওয়ালিদ মাহমুদ রওক টুইটারে লিখেছেন, ইসরাইলি গোলার আঘাতে কয়েক বছর আগে তার দুটি পা হারাতে হয়েছে। পা ছাড়া তার বাকি শরীরটুকু বেঁচে ছিল। সোমবার ইসরাইলি সেনাবাহিনী তার শরীরের সেই অংশটুকুও হত্যা করেছে। খবর মেইল অনলাইন ও আরব নিউজের।

২০০৮ সালে মারাত্মকভাবে আহত হওয়ার পর চিকিৎসকরা অস্ত্রোপচার করে তার দুই পা কেটে ফেলেছিলেন। মঙ্গলবার আবু সালাহর জানাজায় হাজার হাজার মানুষ অংশ নেন।

ইসরাইলি সেনাবাহিনী এই প্রথম কোনো প্রতিবন্ধীকে হত্যা করেছে, তা কিন্ত না। গত জানুয়ারিতে ইব্রাহিম আবু থুরায়া নামের ২৯ বছর বয়সী এক প্রতিবন্ধী যুবককেও তারা হত্যা করে। এক দশক আগে ইসরাইলি হামলায় তিনি তার দুই পা হারিয়েছিলেন।

ইসরাইল সরকার সালাহ হত্যার তদন্ত করেছে। তবে তারা এতে সেনাবাহিনীর কোনো নৈতিক কিংবা পেশাগত ব্যর্থতা দেখতে পায়নি।

সোমবার ইহুদিবাদী ইসরাইলের হামলায় ফিলিস্তিনিদের রক্তের বন্যা বয়ে গেছে। মানবাধিকার সংস্থা হিউম্যান রাইটস ওয়াচ যেটিকে রক্তগোছল বলে আখ্যায়িত করেছে।

নিহত ৫৮ নিরপরাধ ফিলিস্তিনির মধ্যে আটটি শিশুও ছিল। যাদের সবার বয়স ১৬ বছরের নিচে। তাদের মধ্যে সবচেয়ে কম বয়স ছিল লাইলার। শিশুটি সবে আট মাসে পা দিয়েছিল।

Print Friendly, PDF & Email