সোমবার, ১৯শে নভেম্বর, ২০১৮ ইং ৫ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

শিশুদের বিষয়ে মাসআলা সম্পর্কে কিছু ভুল ধারণা

news-image

হাফেজ মাওলানা মো. নাসির উদ্দিন: ১. স্বর্ণ ও মেহেদির ব্যবহার
পুরুষের জন্য স্বর্ণ ব্যবহার করা হারাম। আর চুল-দাড়ি ছাড়া অন্যান্য অঙ্গ-প্রত্যঙ্গে মেহেদি লাগানো জায়েজ নয়। এ ক্ষেত্রে অনেকে মনে করেন, এ বিধান শুধু বড়দের জন্য। তাই নাবালেগ বাচ্চাদেরকে স্বর্ণের আংটি পরানো,মেহেদি লাগানোকে দোষের মনে করা হয় না। এ ধারণা সম্পূর্ণ ভুল। ছেলে শিশুদের জন্যও স্বর্ণ ব্যবহার করা, মেহেদি লাগানো নিষিদ্ধ।(ফাতওয়ায়ে শামী ৬/৩৬২)

pran ২. শিশুদের প্রশ্রাব নিয়ে ভ্রান্তি ও বিড়ম্বনা
কেউ কেউ মনে করেন যে, বাচ্চা যত দিন দুধ পান করবে ততদিন তার প্রশ্রাব নাপাক নয়। কারণ যতদিন শুধু দুধ পান করে ততদিন বাচ্চার প্রশ্রাব বেশি দুর্গন্ধ হয় না। এ ধারণা ভুল। এ ধরণের বাচ্চাদের প্রশ্রাবও যে নাপাক তা হাদিস দ্বারা প্রমাণিত আছে। (শিশুর) প্রশ্রাব দুর্গন্ধময় হোক বা না হোক সর্বাবস্থায় তা নাপাক। দুর্গন্ধ না হলে নাপাক হবে না এ ধারণা ভুল। (বুখারী শরীফ ১/৩৫; তিরমিজি শরীফ ১/২১)

৩. ছেলে-মেয়ের প্রশ্রাবের মাঝে পার্থক্য করা
অনেকে ছেলে শিশুর প্রশ্রাবকে নাপাক মনে করে না। শুধু মেয়ে শিশুর প্রশ্রাবকে নাপাক মনে করে। এ পার্থক্য ঠিক নয়। ছেলে-মেয়ে উভয়ের প্রশ্রাবই নাপাক এবং তা পবিত্র করার নিয়মও একই।(মাআরিফুস সুনান ১/২৬৮-২৬৯; রদ্দুল মুহতার ১/৩১৮)

৪. মেঝেতে শিশুর প্রশ্রাব পড়লে তার পবিত্রতার নিয়ম নিয়ে ভ্রান্তি
মেঝে যদি মাটির হয় তাহলে তা শুকিয়ে প্রশ্রাবের চিহ্ন ও দুর্গন্ধ চলে গেলে ঐ স্থান পবিত্র হয়ে যায়। কিন্তু সাধারণত ঐ স্থানকে পবিত্র করতে গিয়ে প্রয়োজনের অধিক কসরত করতে দেখা যায়। আর মেঝে পাকা হলে প্রশ্রাব মুছে নিয়ে ভেজা কাপড় দিয়ে ভালোভাবে মেঝে মুছে দিলে এবং প্রশ্রাবের প্রভাব ও দুর্গন্ধ চলে গেলেই তা পবিত্র হয়ে যায়। কিন্তু এ ক্ষেত্রেও অনেকে প্রয়োজনের বেশি কষ্ট করতে থাকে। ঐ স্থান নতুন পানি দিয়ে মোছার পর তা শুকিয়ে গেলেও পবিত্র মনে করা হয় না। বরং তিনবার পানি ঢেলে প্রতিবার শুকনা করে না মোছা পর্যন্ত পবিত্র ধরা হয় না। ঐ স্থানে ভিজা পা পড়লে পা অপবিত্র হয়ে যাওয়ার ধারণা করা হয়। অথচ সতর্কতার বাড়তি এ কষ্টটুকু মাসআলার সঠিক জ্ঞান না থাকার কারণে হয়ে থাকে। অথচ পাকা মেঝেতে প্রশ্রাব পড়ে তা শুকিয়ে গেলে এবং প্রশ্রাবের চিহ্ন ও দুর্গন্ধ চলে গেলে মোছা ছাড়াই ঐ স্থান পবিত্র হয়ে যায়। (আদ্দুররুল মুখতার ১/৩৩২;ফাতহুল কাদির ১/২০৩)

৫ . কুরআন শরীফ স্পর্শ করার ক্ষেত্রে পবিত্রতা বিষয়ে অবহেলা
শিশুর কষ্টের দিকে লক্ষ্য করে হিফজ ও কুরআন-শিক্ষার্থী শিশুদের অজুর ব্যাপারে শিথিলতার কথা কিতাবাদিতে পাওয়া যায়। কিন্তু অনেকে এ মাসআলার উপর ব্যাপকতার ভিত্তিতে আমল করতে গিয়ে বাচ্চাদের পবিত্রতার বিষয়ে মোটেও গুরুত্ব দেয় না। এটা ঠিক নয়। বরং কুরআন মাজিদের সম্মান ও আদবের দাবি হল, যে শিশু বুঝমান, সে বালেগ না হলেও তাকে অজুর সাথেই কুরআন স্পর্শ করার ব্যাপারে যত্নবান হতে হবে। শিশুদেরকে এ ব্যাপারে উদ্বুদ্ধ করা বড়দেরই দায়িত্ব।(জামিউ আহকামিস্সিগার ১/৩৪)