শুক্রবার, ২১শে সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ইং ৬ই আশ্বিন, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

সিলিং ফ্যানে ঝুলছে স্বামী, বিছানায় মৃত অন্তঃসত্ত্বা স্ত্রীর লাশ

news-image

কিশোরগঞ্জের করিমগঞ্জে নিজ ঘর থেকে স্বামী-স্ত্রীর লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। উদ্ধারের সময় সিলিং ফ্যানে ঝুলছিল স্বামীর লাশ এবং বিছানায় পড়ে ছিল মৃত স্ত্রীর লাশ।

মঙ্গলবার (১০ জুলাই) গভীর রাতে উপজেলার নিয়ামতপুর ইউনিয়নের দেওপুর কাজলাহাটি গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

ধারণা করা হচ্ছে, স্ত্রীকে শ্বাসরোধ করে হত্যার পর গলায় ফাঁস দিয়ে স্বামী আত্মহত্যা করেছে। আত্মহত্যাকারী সম্রাট কাজলাহাটি গ্রামের মুক্তিযোদ্ধা জহির উদ্দিনের ছেলে এবং নিহত শুভা (২২) ইটনা উপজেলার শিমুলবাগ গ্রামের আব্দুল হকের মেয়ে।

এলাকাবাসী সুত্রে জানা যায়, সম্রাট এবং শুভার মাত্র সাত মাস আগে বিয়ে হয় এবং শুভা তিন মাসের অন্তঃসত্ত্বা ছিলেন। ঘটনার রাটে ২টা পর্যন্ত বিশ্বকাপ ফুটবল খেলা দেখার পর সম্রাট নিজের ঘরে স্ত্রী সহ ঘুমাতে যান। সকালে অনেক বেলা হলেও তারা ঘুম থেকে না ওঠায় পরিবারের লোকজন ডাকাডাকি করে কোনো সাড়া পায় না। পরবর্তীতে তারা অন্য কক্ষ দিয়ে ওই ঘরে প্রবেশ করে দুজনকে মৃত অবস্থায় দেখতে পায়।

শুভার গায়ে নতুন শাড়ি ও গহনা ছিল এবং সম্রাট গায়ে নতুন পাজামা-পাঞ্জাবি ছিল বলে তাদের পরিবার পক্ষ থেকে জানানো হয়।

সম্রাটের বাবা নিয়ামতপুর ইউনিয়ন মুক্তিযোদ্ধা কমান্ড কাউন্সিলের কমান্ডার মো. জহির উদ্দিন দাবি করেন, তার ছেলে সম্রাটের বিয়ের আগে কিছুটা মানসিক সমস্যা ছিল।তবে শুভার বাবা আব্দুল হকের দাবি, সম্রাট পাগল ছিল এটা তাদের আগে জানা ছিল না।

করিমগঞ্জ থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. মজিবুর রহমান জানান, পুলিশ মরদেহ দুটি উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য কিশোরগঞ্জ ২৫০ শয্যা জেনালের হাসপাতাল মর্গে পাঠিয়েছে। ছেলেটা মানসিকভাবে অসুস্থ ছিল এবং গভীর রাতে সে শ্বাসরোধে স্ত্রীকে হত্যার পর আত্মহত্যা করেছে বলে প্রাথমিক তদন্তে জানা গেছে ।