শনিবার, ১৫ই ডিসেম্বর, ২০১৮ ইং ১লা পৌষ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

সাকিবরা ব্যাটিং পরামর্শক পাচ্ছেন ওয়ানডে সিরিজেই

news-image

স্পোর্টস ডেস্ক : সাবেক শ্রীলঙ্কান ব্যাটসম্যান থিলান সামারাবীরার বিদায়ের পর একজন ব্যাটিং কোচের প্রয়োজনীয়তা বেশ অনুভব হচ্ছিল। দক্ষিণ আফ্রিকার হয়ে ৫৮ টেস্ট, ৬৪ ওয়ানডে ও ২ টি-টোয়েন্টি খেলা ৪২ বছর বয়সী ম্যাকেঞ্জি শেষ পর্যন্ত শূন্যস্থানটা পূরণ করতে যাচ্ছেন। নতুন ব্যাটিং পরামর্শক ওয়েস্ট ইন্ডিজে দলের সঙ্গে যোগ দিতে পারেন ২২ জুলাই বাংলাদেশ দলের প্রধান কোচ ঠিক হয়েছে গত মাসে। কোচিং স্টাফদের মধ্যে শূন্যস্থান বাকি আছে আরও দু-একটি। এর মধ্যে ব্যাটিং কোচ বা পরামর্শকের জায়গাটা পূরণ হয়ে যাচ্ছে দ্রুতই। জায়গাটা যে নিল ম্যাকেঞ্জি পূরণ করতে যাচ্ছেন, তা অনেক দিন ধরেই শোনা যাচ্ছে। কিন্তু তিনি কবে যোগ দিচ্ছেন দলের সঙ্গে, সেটিই শুধু নিশ্চিত হওয়া যায়নি। আজ বিসিবির প্রধান নির্বাহী নিজাম উদ্দীন চৌধুরী জানালেন, নতুন ব্যাটিং পরামর্শক দলের সঙ্গে যোগ দেবেন ২২ জুলাই।

এবার ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফরে বাংলাদেশের ব্যাটিং লাইনআপের কঙ্কাল বেরিয়ে পড়েছে। ক্যারিবীয় পেসারদের সামনে দাঁড়াতেই পারছেন না সাকিব-তামিমরা। একজন ব্যাটিং পরামর্শক এসেই যে চিত্রটা আমূল বদলে দেবেন, তা ঠিক নয়। তবে সাবেক শ্রীলঙ্কান ব্যাটসম্যান থিলান সামারাবীরার বিদায়ের পর একজন ব্যাটিং কোচের প্রয়োজনীয়তা বেশ অনুভব হচ্ছিল। দক্ষিণ আফ্রিকার হয়ে ৫৮ টেস্ট ও ৬৪ ওয়ানডে খেলা ৪২ বছর বয়সী ম্যাকেঞ্জি শেষ পর্যন্ত শূন্য স্থানটা পূরণ করছেন।

গায়ানায় ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে বাংলাদেশ তিন ম্যাচ সিরিজের প্রথম ওয়ানডে খেলবে ২২ জুলাই। ম্যাকেঞ্জি কাজ শুরু করবেন প্রথম ওয়ানডে থেকেই। বিসিবির প্রধান নির্বাহী আজ সংবাদমাধ্যমকে সেটিই বলেছেন, ‘আশা করছি, ওয়েস্ট ইন্ডিজে আমাদের জাতীয় দলের সঙ্গে ব্যাটিং পরামর্শক যোগ দেবেন। সবকিছু চূড়ান্ত হয়ে আছে। আমরা আশা করছি, ২২ তারিখের মধ্যে তিনি যোগ দেবেন।’

বিসিবির প্রধান নির্বাহী অবশ্য এখনই নতুন ব্যাটিং পরামর্শকের বিষয়ে বিস্তারিত বলতে চান না। নিজামউদ্দিন এতটুকুই জানালেন, ম্যাকেঞ্জিকে আনা হচ্ছে ২০১৯ বিশ্বকাপ মাথায় রেখে। সাবেক প্রোটিয়া ব্যাটসম্যানের যোগ দিতে দেরি হলেও চলে এসেছেন বাংলাদেশ অনূর্ধ্ব-১৯ দলের নতুন কোচ নাভীদ নেওয়াজ। সাবেক এ শ্রীলঙ্কান ব্যাটসম্যানকে যুবাদের কোচ হিসেবে নিয়োগ দেওয়া প্রসঙ্গে বিসিবির প্রধান নির্বাহী বললেন, ‘২০২০ সালে পরের অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপ হবে দক্ষিণ আফ্রিকায়। সেভাবে আমরা পরিকল্পনা করছি। নেওয়াজের পাশে কিছু সাপোর্টিং স্টাফ নিয়োগ দেওয়ারও পরিকল্পনা রয়েছে। আমরা কিছু সফর নিশ্চিত করেছি। চার থেকে পাঁচটা দেশ-বিদেশে সিরিজ খেলবে দল। শ্রীলঙ্কা ও ইংল্যান্ডের সঙ্গে হোম-অ্যাওয়ে সিরিজ নিশ্চিত হয়েছে। বিশ্বকাপের আগে জিম্বাবুয়েতে কন্ডিশনিং ক্যাম্প বা বাড়তি কিছু ম্যাচ খেলা যায় কি না, সেটাও বিবেচনায় রয়েছে।’