রবিবার, ১৯শে আগস্ট, ২০১৮ ইং ৪ঠা ভাদ্র, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

প্রবাসীদের এনআইডি দিতে দূতাবাসে ‘লোকাল সার্ভার’

news-image

নিউজ ডেস্ক : বিদেশে বিভিন্ন দূতাবাসে ‘লোকাল সার্ভার’ বসিয়ে বাংলাদেশি নাগরিকদের জাতীয় পরিচয়পত্র (এনআইডি) দেওয়ার উদ্যোগ নিয়েছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। এতে বাস্তবায়িত হচ্ছে যাচ্ছে প্রবাসীদের দীর্ঘদিনের দাবি।

সম্প্রতি বিভিন্ন দেশে কর্মরত বাংলাদেশের কূটনৈতিকদের সঙ্গে বৈঠকের পর নির্বাচন কমিশন এ সিদ্ধান্ত নিয়েছে। ইতোমধ্যে সিদ্ধান্ত বাস্তবায়নের জন্য কয়েকটি কমিটি গঠন করা হয়েছে। যাদের প্রতিবেদনের ভিত্তিতে পরবর্তী কার্যক্রম হাতে নেওয়া হবে।

নির্বাচন কমিশনের এনআইডি শাখার তথ্যমতে, প্রায় ২ কোটির মতো নাগরিক বিদেশে বসবাস করছেন। তাই যেসব দেশে বেশি নাগরিক রয়েছে তারাই প্রথমেই অগ্রাধিকার পাচ্ছে।

সূত্রগুলো জানায়, বিদেশে অবস্থানরত বাংলাদেশিদের মধ্যে যারা মধ্যপ্রাচ্যে রয়েছেন তারাই আগে এ সুযোগটি পাচ্ছেন। তবে সবার আগে সৌদি আরবের প্রবাসীরা ভোটার হতে পারবেন।

জানা যায়, ‍পুরো কর্মপন্থাটি বাস্তবায়নের জন্য সংশ্লিষ্ট দেশে জাতীয় পরিচয় নিবন্ধনের একটি করে লোকাল সার্ভার স্থাপন করা হবে। সেই সার্ভারের অধীনে স্থাপন করা হবে কয়েকটি টেম্পোরারি সার্ভার। লোকাল সার্ভারের সঙ্গে টেম্পোরারি সার্ভারের সংযোগ থাকবে। আর স্থাপন করা হবে সার্ভারের মাধ্যমেই নাগরিকদের তথ্য ইনপুট দেওয়া হবে।

বিদেশ থেকে সেই তথ্য দেশে এনে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তির উপজেলায় পাঠানো হবে। সেই উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা তদন্ত শেষে প্রতিবেদন পাঠাবেন। প্রতিবেদনে সত্যতা মিললেই কেবল সংশ্লিষ্ট ব্যক্তি ভোটার তালিকায় অন্তর্ভুক্ত হবে।

ইসি কর্মকর্তারা জানান, বিদেশে দূতাবাসের মাধ্যমে নাগরিকদের ভোটার করে নেওয়ার বিষয়ে কিছু আইনি জটিলতা রয়েছে। কার্যক্রম শুরুর আগে এ বিষয়টি সমাধানের উদ্যোগও নেওয়া হয়েছে।

এক্ষেত্রে কর্মকর্তাদের কীভাবে দূতাবাসে পাঠিয়ে কোন প্রক্রিয়ায় নাগরিকদের তথ্য সংগ্রহ করা হবে, তা নিয়েই ভাবা হচ্ছে। প্রবাসীরা একেকজন একেক এলাকায় বসবাস করেন। সবারই কাজ আছে। সেখান থেকে ছুটি নিয়ে তবেই না নির্দিষ্ট কেন্দ্রে এসে ভোটার হতে হবে। তাই তাদের কীভাবে ডেকে আনা যাবে, এটা একটা বড় চ্যালেঞ্জ।

এ বিষয়ে ইসির এনআইডি শাখার মহাপরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মোহাম্মদ সাইদুল ইসলাম বলেন, আমি জাতীয় পরিচয়পত্র নিয়ে কাজ করি। ভোটার, ভোটাধিকারের বিষয়টি কমিশন দেখবে। মূলত এ উদ্যোগটি নেওয়া হয়েছে প্রবাসীদের সংশ্লিষ্ট দেশেই জাতীয় পরিচয়পত্র দেওয়ার জন্য। কেননা, একজন মানুষ প্রবাসে এতো কষ্ট করার পর হয়তো এলাকায় একটি জমি কেনার জন্য আসেন। কিন্তু এনআইডি না থাকার কারণে তিনি ঝামেলায় পড়েন।

এছাড়াও নানা ধরনের কাজে তাকে এনআইডি ব্যবহার করতে হয়। কিন্তু সময় কম থাকায় তাদের অনেকেরই দেশে এসে এনআইডি করা হয় না। ফলে ব্যাপক সমস্যার মধ্য দিয়ে যেতে হয় তাদের। এ বিষয়টি মাথায় রেখেই আমরা তাদের সংশ্লিষ্ট দেশেই এনআইডি দেওয়া উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। যেহেতু এনআইডির জন্য তথ্য নিয়েই ভোটার করা হয়, সেক্ষেত্রে তারা ভোটারও হয়ে যাবেন।

ইসির অতিরিক্ত সচিব মো. মোখলেসুর রহমান বাংলানিউজক বলেন, প্রবাসীদের সংশ্লিষ্ট দেশেই ভোটদানের বিষয়টি নিশ্চিত করা খুব দূরুহ কাজ। তবে তাদের আমার দূতাবাসের মাধ্যমে জাতীয় পরিচয়পত্র দেওয়ার উদ্যোগ নিয়েছি। বাংলানিউজ