সোমবার, ১৫ই অক্টোবর, ২০১৮ ইং ৩০শে আশ্বিন, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

হুমায়ূন আহমেদকে হারানোর ছয় বছর

news-image

বিনোদন প্রতিবেদক : কথাসাহিত্যিক ও নির্মাতা হুমায়ূন আহমেদের প্রয়াণ দিবস ১৯ জুলাই। ২০১২ সালে ক্যানসারে আক্রান্ত হয়ে চিকিৎসাধীন অবস্থায় যুক্তরাষ্ট্রে মৃত্যুবরণ করেন তিনি। এবারও নানা আয়োজনে হুমায়ূন আহমেদকে স্মরণ করবে তার পরিবার-স্বজন ও ভক্তরা।

জানা গেছে, হুমায়ূন আহমেদের ৬ষ্ঠ প্রয়াণ দিবসে গাজীপুরের নুহাশপল্লীতে আয়োজন করা হবে কুরআন খতম, মিলাদ ও দোয়া মাহফিল। এদিন নুহাশপল্লীতে হুমায়ূন আহমেদের দুই সন্তান নিষাদ ও নিনিতসহ স্ত্রী মেহের আফরোজ শাওন সকাল থেকে সেখানে উপস্থিত থাকবেন বলে জানা গেছে।

অন্যদিকে হুমায়ূন আহমেদের গ্রামের বাড়ি নেত্রকোনায় তার হাতে গড়া শিক্ষা প্রতিষ্ঠান শহীদ স্মৃতি বিদ্যাপীঠ আয়োজন করবে কুরআন খতম, মিলাদ, দোয়া মাহফিল, শোভাযাত্রা, আলোচনা-সভা। এছাড়াও হুমায়ূন ভক্তদের অনেকেই প্রিয় লেখক-নির্মাতাকে স্মরণ করবে নানা আয়োজনে।

হুমায়ূন আহমেদ ১৯৪৮ সালের ১৩ নভেম্বর নেত্রকোনার মোহনগঞ্জে জন্মগ্রহণ করেন। তিনি একাধারে লেখক, টিভি ও চলচ্চিত্র নির্মাতা হিসেবে খ্যাতি অর্জন করেছেন। নন্দিত নরকে তার প্রথম প্রকাশিত উপন্যাস। এরপর অসংখ্য গ্রন্থ রচনার মাধ্যমে পাঠকের হৃদয়ে জায়গা করে নিয়েছেন।

আশির দশকে বাংলাদেশ টেলিভিশনে প্রচারিত ‘এইসব দিনরাত্রি’ ধারাবাহিক নাটকের মাধ্যমে জনপ্রিয়তার শিখরে পৌঁছে যান তিনি। এরপর বহুব্রীহি, অয়োময়, কোথাও কেউ নেই, নক্ষত্রের রাতের মতো জনপ্রিয় নাটক নির্মাণ করে খ্যাতি অর্জন করেন।

চলচ্চিত্র নির্মাণেও খ্যাতি অর্জন করেছেন হুমায়ূন আহমেদ। তার নির্মিত- আগুনের পরশমনি, শ্রাবণ মেঘের দিন, দুই দুয়ারী, চন্দ্রকথা, শ্যামলছায়া সিনেমাগুলো এখনো দর্শক হৃদয়ে আলোচিত। তার পরিচালিত সর্বশেষ চলচ্চিত্র ছিল ‘ঘেটুপুত্র কমলা’। বহুমুখী প্রতিভাবান এই মানুষটি ২০১২ সালের ১৯ জুলাই ক্যানসারে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুবরণ করেন।