মঙ্গলবার, ১১ই ডিসেম্বর, ২০১৮ ইং ২৭শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

বিএনপি নির্বাচনকে ভয় পায়: খাদ্যমন্ত্রী

news-image

কেরানীগঞ্জ (ঢাকা) প্রতিনিধি: খাদ্যমন্ত্রী এ্যাড. কামরুল ইসলাম বলেছেন, আজ বাংলাদেশ উন্নয়নশীল দেশ। বিশ্ববাসী আজ বাংলাদেশকে সম্ভাবনাময় দেশ হিসেবে চিন্তা করে। আমাদের প্রিয় নেত্রী শেখ হাসিনা বিশ্বে একজন নন্দিত নেত্রী। বিশ্বে পাঁচজন সৎ নেত্রীর মধ্যে তিনি দ্বিতীয়। বিশ্বে ১০জন রাষ্ট্র নায়কের মধ্যে তার অবস্থান।

তিনি বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার আমলে সবচেয়ে বড় পাওনা হচ্ছে নিজ অর্থায়নে পদ্মা সেতু নির্মাণ করা। তার হাত ধরেই সমুদ্র সীমানা বিজয় হয়েছে, তার হাত দিয়ে আজ দেশে দারিদ্রতার হার নিম্ন পর্যায়ে এসেছে।

আজ মঙ্গলবার বেলা ১২টায় কেরানীগঞ্জের রুহিতপুর উচ্চ বিদ্যালয় প্রঙ্গণে শেখ হাসিনা সরকারের উন্নয়ন, সফলতা ও ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা প্রচার সভা অনুষ্ঠানে তিনি এ কথা বলেন।

মন্ত্রী আরো বলেন, কেরানীগঞ্জে আমি প্রথমে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে নির্বাচন করে আপনাদের মূল্যবান ভোটে এমপি নির্বাচিত হই। সে বছর প্রধানমন্ত্রী আমাকে আইন প্রতিমন্ত্রীর দায়িত্ব দেন। পরের বছর খাদ্যমন্ত্রীর দায়িত্ব দেন। আমি ১০ বছর আপনাদের সেবা করার সুযোগ পেয়েছি। আমি কেরানীগঞ্জের এমপি নির্বাচিত হওয়ার পর প্রতিটি স্কুল-কলেজ ও মাদরাসার খেলার মাঠ বরাটসহ নতুন ভবন করে দিয়েছি। আমার আগে এ এলাকায় বিএনপির এমপি ছিলেন আমান উল্লাহ আমান। তিনি শুধু ভিত্তি প্রস্তরের রাজনীতি করেছেন। আর আমি মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে সরেজমিন, হাতে ও কাগজে কলমে কাজ করেছি।

প্রচার সভায় খাদ্যমন্ত্রী বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রীর প্রশংসা করে বলেন, আমি আশা করছি বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রী কেরানীগঞ্জের আমার এ রুহিতপুর এলাকায় নিরবিচ্ছিন্ন গ্যাস সংযোগ দিবেন। আগামী নির্বাচনে আপনারা ভোট প্রয়োগ করবেন। দেশ আজ সকল বিভাগে এগিয়ে গেছে। উন্নয়নের ধারাবাহিকতা ধরে রাখতে আবারো দরকার শেখ হাসিনা সরকার।

তিনি বলেন, নির্বাচনকে কুলসিত করার জন্য ষড়যন্ত্র চলছে। বিএনপি নির্বাচনকে ভয় পায়। তাই তারা বিদেশিদের কাছে ধর্না দিচ্ছে। তারা আগুন সন্ত্রাস করে শিশু, পুলিশসহ সাধারণ মানুষ পুড়িয়ে হত্যা করেছে। যা আজো অনেক মানুষকে ভোগ করতে হচ্ছে।

সাবেক আওয়ামী লীগ নেতা ও ঢাকা-২ আসনের সমন্বয় কমিটির সদস্য নুরুল হুদা মাস্টারের সভাপতিত্বে আরো বক্তব্য দেন ঢাকা জেলা যুবলীগ সভাপতি শফিউল আযম খান বারকু, ঢকা জেলা আওয়ামী লীগ নেতা হাজি আবু সিদ্দিক, সাবেক রুহিতপুর ইউনিয়ন চেয়ারম্যান মো. সলিমুল্লাহ মোল্লা, কেন্দ্রীয় যুবলীগ নেতা ইউসুফ আলী চৌধুরী সেলিম, সাবেক কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ নেতা ইঞ্জি. এম এ হান্নান, কলাতিয়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ নেতা মো. শাজাহান ভুইয়া, আলতাফ হোসেন বিপ্লব, হযরতপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ নেতা হাজি মো. আলাউদ্দিন, ঢাকা জেলা যুবলীগ নেতা মো. শাহাদত হোসেন, ইসতিয়াক আহমেদ রনি, মো. টিপু মেম্বার প্রমুখ।