মঙ্গলবার, ১১ই ডিসেম্বর, ২০১৮ ইং ২৭শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

আফগান স্পিন জুজু কাটাতে পারবে বাংলাদেশ!

news-image

স্পোর্টস ডেস্ক: একটা দলে ক’জন স্পিনার থাকেন? একজন, দু’জন কিংবা তিনজন? তিনজনের বেশি স্পিনার কোনো দলে থাকার ইতিহাস খুব কম। হয়তো বার দু’একজন অকেশনাল স্পিনার থাকেন। কিন্তু আফগানিস্তান দলে ক’জন স্পিনার জানেন? হিসাব করে খুব সহজেই রশিদ খান, মুজিব-উর রহমানের নাম বলে দেবেন। কেউ কেউ আগ বাড়িয়ে বলে দেবেন, মোহাম্মদ নবির নামও।

এই তিনজন স্পেশালিস্ট স্পিনারের সঙ্গে যোগ করে নিন আর দু’জন লেগ স্পিনারের নাম। সামিউল্লাহ সেনওয়ারি এবং রহমত শাহর নাম। এ দু’জনের মধ্যে সামিউল্লাহ সেনওয়ারি সাধারণ লেগ ব্রেক বোলার হলেও, রহমত শাহ হচ্ছেন লেগ ব্রেক গুগলি বোলার। এদের সঙ্গে রয়েছেন আরও দু’জন পেসার। আফতাব আলম এবং গুলবাদিন নাইব।

মোট সাতজন স্পেশালিস্ট বোলার। পাঁচজন স্পিনার, দু’জন পেসার। স্পিনারদের মধ্যে দু’জন অফব্রেক বোলার এবং তিনজন লেগ ব্রেক বোলার। একটি দলে এতগুলো লেগ স্পিনার থাকলে প্রতিপক্ষ দলগুলোর কি অবস্থা হতে পারে একবার ভেবে দেখুন!

এই স্পিনেই বৃহস্পতিবার নাকাল হয়েছে বাংলাদেশের ব্যাটসম্যানরা। মাত্র ২.৮২ রান রেটে বাংলাদেশের সংগ্রহ দাঁড়িয়েছিল মাত্র ১১৯ রান। ৪২.১ ওভারেই অলআউট বাংলাদেশ। আফগানিস্তানের স্পিনাররা নিয়েছেন ৭ উইকেট। ৩টি নিয়েছেন দুই পেসার। আফগানিস্তানের রহস্যময় স্পিনার রশিদ খান নিয়েছেন ২ উইকেট। এই পরিসংখ্যান দেখলে মনে করবেন না, বাংলাদেশের ব্যাটসম্যানরা খুব ভালোভাবেই সামলেছেন রশিদ খানকে।

কিন্তু বাকি পরিসংখ্যান দেখলে অবাক হয়ে যাবেন। ৯ ওভার বল করেছেন রশিদ খান। রান দিয়েছেন মাত্র ১৩টি। ৩টি নিয়েছেন মেডেন। অথ্যাৎ ৩ ওভার থেকে বাংলাদেশের ব্যাটসম্যানদের কোনো রানই নিতে দিলেন না। সব মিলিয়ে রান দেয়ার গড় ছিল ১.৪৪। এতটা কৃপণ একজন বোলার হলে, প্রতিপক্ষ দলের স্কোরবোর্ডে রান যে খুব সাদামাটা থাকবে, সেটা বলেই দেয়া যায়।

আফগানদের আরেক রহস্যময় স্পিনার মুজিব-উর রহমান ৮.১ ওভার বোলিং করে ২.৬৯ গড়ে রান দিয়েছিল ২২টি। উইকেট নিয়েছে ২টি। তবে রহমত শাহ এবং সামিউল্লাহ সেনওয়ারি দুই লেগব্রেক বোলার বোলিং করেছেন ২ ওভার করে ৪ ওভার। অফ স্পিনার মোহাম্মদ নবি ১০ ওভার বোলিং করে রান দিয়েছেন মাত্র ২৪টি। ২.৪ গড়ে।

আফগানিস্তানের স্পিনারদের ঘূর্ণি তোপের সামনে কাছে ১৩৬ রানের বিশাল ব্যবধানে বিধ্বস্ত হওয়ার পর ভারতের স্পিনারদের কাছেও নাকাল হতে হয়েছে বাংলাদেশের ব্যাটসম্যানরা। ভারতীয় স্পিনার রবীন্দ্র জাদেজা একাই নিয়েছেন ৪ উইকেট। জাদেজার ঘূর্ণিতে বিভ্রান্ত হয়ে সাকিব-মুশফিক উইকেট দিয়ে এসেছেন জাদেজার বলে।

ফাইনালে যাওয়ার সম্ভাবনা টিকিয়ে রাখতে হলে রোববার আবু ধাবিতে আবারও আফগানিস্তানের মুখোমুখি হচ্ছে বাংলাদেশ। এই ম্যাচে যদি জিততে না পারে তাহলে এক ম্যাচ বাকি থাকতেই বিদায় নিশ্চিত হয়ে যাবে বাংলাদেশের। সে জন্য রোববার আফগান স্পিনারদেরই সামলাতে হবে সবচেয়ে বেশি। যদি রশিদ খান, মুজিব-উর রহমানদের সামলাতে না পারে, তাহলে আগের দুই ম্যাচের পরিস্থিতিই তৈরি হবে।