মঙ্গলবার, ১১ই ডিসেম্বর, ২০১৮ ইং ২৭শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

দুবাই ও আবুধাবিতে বাংলাদেশি পাসপোর্ট প্রত্যাশীদের ভিড়

news-image

নিউজ ডেস্ক : পাসপোর্ট ও আউট পাসের জন্য দুবাইয়ে থাকা বাংলাদেশ কনস্যুলেট ও বাংলাদেশ দূতাবাস আবুধাবিতে প্রতিদিন ভিড় জমাচ্ছেন হাজারও বাংলাদেশি। এই চাপ সামলাতে হিমশিম খাচ্ছে কর্তৃপক্ষ। দুবাই সরকার অবৈধ বিদেশিদের বৈধ হওয়ার সুযোগ দেওয়ার পর থেকে এমন অবস্থা তৈরি হয়।

বিশ্বের বিভিন্ন দেশের মতো বাংলাদেশের অনেক নাগরিক দুবাইয়ে অবৈধবভাবে বসবাস করছেন। এসব অবৈধ অধিবাসীর জন্য ১ আগস্ট থেকে ৩১ অক্টোবর এই তিন মাসের সাধারণ ক্ষমা ঘোষণা করে দেশটির সরকার। সাধারণ ক্ষমার আওতায় রয়েছে নিদির্ষ্ট সময়ের মধ্যে যার যার দেশে ফিরে যাওয়া অথবা বৈধ হওয়া। বৈধ হওয়ার এই সুযোগ বাংলাদেশিদের মধ্যে বেশ সাড়া ফেলেছে।

পাসপোর্ট ও আউটপাসের জন্য তারা ভিড় করছেন বাংলাদেশ দূতাবাস আবুধাবি ও কনস্যুলেট জেনারেল দুবাই অফিসে। এ সম্পর্কে আবুধাবিতে নিয়োজিত বাংলাদেশর রাষ্ট্রদূত মোহাম্মদ ইমরান বলেন“এবারের অ্যামেনেষ্টি অন্যান্য বারের মতো নয়। কারণ অন্যবার আউটপাস নিয়ে আমিরাত ত্যাগ করতে বলা হলেও এবার আমিরাত সরকার প্রবাসীদের এই দেশে থেকে ভিসা নিয়ে বৈধ হবার সুযোগ করে দিয়েছে। তাই এবার দূতাবাসে চাপটা একটু বেশি।”
তিনি আরও বলেন, “এই সুযোগ কাজে লাগাতে অবৈধ বসবাসকারী বাংলাদেশিদের সহজে পাসপোর্ট দেবার লক্ষ্যে কাজ করে যাচ্ছি। পাসপোর্ট আবেদনকারীদের অনেক কাগজ-পত্র শিথিল করেছি। এতে করে নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে আমরা লক্ষ্যে পৌঁছাতে পারবো বলে মনে করি।”

এদিকে হঠাৎ এমন চাপ সম্পর্কে দুবাইয়ে বাংলাদেশের কনসাল জেনারেল এস বদিরুজ্জামান বলেন, “প্রথম দিকে জনবল কম থাকার কারণে দুবাইয়ে বাংলাদেশের কনস্যুলেট জেনারেল একটু সমস্যায় পড়লেও পরবর্তীতে স্বাভাবিক হয়ে উঠে।”

বদিরুজ্জামান আরও বলেন, “কনস্যুলেটের সার্বিক তত্বাবধানে আমার সহকর্মী, সাংবাদিক ও কমিউনিটির নেতৃবৃন্দের অক্লান্ত প্রচেষ্টার মাধ্যমে বর্তমানে সেবা গ্রহণকারীদের সন্তোষজনক পর্যায়ে নিয়ে আসতে সক্ষম হয়েছি। আমার আমাদের লক্ষ্যের দিকে এগিয়ে যাচ্ছি। সাধারণ ক্ষমাকালীন সময়ে শৃঙ্খলার সাথে কাজ শেষ করতে সবার সহযোগিতা চাই।”

বাংলাদেশ কনস্যুলেট জেনারেল দুবাই থেকে এখন পর্যন্ত রি-ইস্যু পাসপোর্টসহ মোট প্রায় ৩০ হাজার ৮৪১ হাজার ব্যক্তির পাসপোর্ট ইস্যু করা হয়েছে বলে জানা গেছে। এর মধ্যে মেশিন রিডেবল পাসপোর্ট রয়েছে ২১ হাজার ৩৮৩ এবং হাতে লেখা পাসপোর্ট ৭ হাজার ৮৪৯। ইস্যুকৃত পাসপোর্টধারী অর্ধেকের বেশি লোক ভিসা ছাড়া এই দেশটিতে অবস্থান করছেন।

হাতের লেখা পাসপোর্টের মধ্যে পুলিশ ভেরিফিকেশনে রয়েছে ১০ শতাংশ এবং কাগজপত্র না থাকার কারণে ২ শতাংশ পাসপোর্ট প্রত্যাশী ফিরে গেছেন। এদিকে আউটপাস সম্পর্কে কনস্যুলেটের লেবার কাউন্সেলর এএসএম জাকির হোসেন বলেন, “প্রথম দিকে মানুষ আউটপাস কম সংগ্রহ করলেও শেষের দিকে এসে তারা ভিড় জমাচ্ছে। আগষ্ট থেকে এ পর্যন্ত আমার কাছে ৬ হাজার ৭১৫ জনের আউটপাস ইস্যু হয়েছে।”