শুক্রবার, ১৬ই নভেম্বর, ২০১৮ ইং ২রা অগ্রহায়ণ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

আসামির শেষ ইচ্ছা শোনার পর ফাঁসি স্থগিত করা হলো! কী সেই ইচ্ছা

news-image

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : শেষ ইচ্ছা শোনার পর- এক আশ্চর্যজনক ঘটনার সাক্ষী হয়ে থাকল গোটা দেশ ফাঁসির মুখ থেকে ফিরে এলেন এক ব্যাক্তি ।অপরাধের শাস্তি হিসাবে আদালতের নিয়মানুযায়ী ফাঁসির আদেশ দেওয়া হয় তাকে।

ফাঁসির মঞ্চ ঠিক করা হয়ে গেছে , ব্যক্তিকে সাদা পোশাক পরিয়ে দেওয়া হয়েছে, যথা সময়ানুযায়ী মৃত্যুদণ্ড প্রাপ্ত ব্যক্তিও হাজির কিন্তু নিয়মানুযায়ী শেষ ইচ্ছা জানানোর আদেশ দিতেই মোড় ঘুরে গেল গল্পে। কী এমন হলো যে মুলতুবি রাখা হলো ফাঁসির আদেশকে?

শাফকাত নামক ব্যক্তিটির আইনজীবীকে প্রশ্ন করা হলে তিনি জানান ২০০৪ সালে যখন তার বিরুদ্ধে হত্যা মামলা দায়ের করা হয় তখন তিনি প্রাপ্তবয়স্ক ছিলেননা তার বয়স ছিল মাত্র চৌদ্দ বছর।

তার পরিবারের কাছে উত্তর চাওয়া হলে বলেন যে তিনি এ ধরনের কোনো কাজের সঙ্গে যুক্ত ছিলেন না । তাকে চাপ দেওয়া হত যাতে সে এই অপরাধ করেছেন সেটা স্বীকার করে নেন কিন্তু অপরাধ না করার পরেও স্বীকার করে নিজের সম্মান লুন্ঠিত করতে না চাইলে তার ওপর অকথ্য নির্যাতন করা হত তার নখ উপড়ে ফেলে দিত, সিগারেটের ছেকা দেওয়া হত মারধোর করা হত।

শাফকাত হোসেন এর ভাই গুল জামান জানান যে তার শাস্তি অনির্দিষ্ট সময়কালের জন্য স্থগিতাদেশ দেওয়া হয়েছে । তার মা মাখনি বেগম বলেছেন “আমরা সারারাত আল্লাহ -র দরবারে প্রার্থনা করেছি, আল্লা জানেন কোনটা সত্য তাইতো দোআ করেছেন আমাদের ওপর।”

তবে মানবাধিকার সংগঠনগুলি এ ব্যাপারে গুরুত্বপূর্ন অংশ গ্রহণ করেছেন তারা বলেছেন এ কেসটি নিয়ে তারা তদন্ত শুরু করবেন। হত্যাকাণ্ডের সময় তার বয়স কত ছিল সে বিষয়ে খতিয়ে দেখা হবে আর এছাড়াও তার ওপর পূর্বে সত্যই কোনো অত্যাচার করা হয়েছে কি-না সে বিষয়টিও যাচাই করবেন।

গুল জামান আরও বলেছেন ফাঁসির সময় তাকে সাদা ইউর্নিফর্ম পরিয়ে প্রস্তুত করে আনা হয় তখন তিনি সেখানেই ছিলেন।তাকে কাঠগোড়াই দাড়িয়ে যখন নিয়মানুযায়ী শেষ ইচ্ছা কথা জানাতে বলা হয় তিনি লিখেছিলেন-

“আমি নির্দোষ , তারা যে জন্য আমাকে ফাঁসি দিতে চাই সে অপরাধ আমি করিনি; তারা প্রকৃত অপরাধীদের বাঁচাতে চাই ইতোমধ্যেই তাদের খালাস দেওয়া হয়েছে ।”

পাকিস্তানের আইনের নিয়ম অনুযায়ী ১৮ বছরের কমবয়সী ব্যক্তিকে কোনো অপরাধের শাস্তি হিসেবে মৃত্যুদণ্ড দেওয়া হয়না আর অত্যাচারের মাধ্যমেও স্বীকারোক্তি আদায় করা হয়না। তাই ঘটনাটির সত্যতা যাচাই অবধি স্থগিতাদেশ দেওয়া হয়েছে। তথ্য প্রমান সংগ্রহে তৎপর হয়েছেন পুলিশ ।

এ জাতীয় আরও খবর

চলতি সপ্তাহে এশিয়ার সবচেয়ে বড় সম্মেলন এসোসিয়েশন অব সাউথ এশিয়ান নেশনসে (আসিয়ান) যোগ দেননি মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। এতে গুরুত্ব বেড়েছে পুতিনের। ব্লুমবার্গ এক প্রতিবেদনে জানায়, সিঙ্গাপুরে এবার আসিয়ানের ৩৩ তম সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়েছে। ট্রাম্পের পরিবর্তে এতে যোগ দিয়েছেন দেশটির ভাইস প্রেসিডেন্ট মাইক পেন্স। ফলে এশিয়ার বড় দেশগুলোর কাছে পুতিন বেশি গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠেছেন। সম্মলেন শেষে তোলা গ্রুপ ফটোতে দেখা গেছে, আয়োজক দেশ সিঙ্গাপুরের প্রধানমন্ত্রী লি হাসিয়েন লংয়ের ঠিক পাশেই দাঁড়িয়েছেন পুতিন। আর অন্যপাশে একজনের পরে দাঁড়িয়েছেন মাইক পেন্স। থাইল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী প্রেয়ুথ চান ওচা এবং অস্ট্রেলিয়ার প্রতিনিধি স্কট মরিসনের মাঝখানে দাঁড়িয়েছিলেন পেন্স। আর এতেই নাকি গুরুত্বের বিষয়টি বোঝা যাচ্ছে বলে দাবি করছে ব্লুমবার্গ। সংবাদমাধ্যমটির দৃষ্টিতে, যুক্তরাষ্ট্রের চেয়ে রাশিয়াকে অনেক বেশি গুরুত্ব দিয়েছে এশিয়ার দেশগুলো। এদিকে বেশ কয়েকজন রাজনৈতিক বিশ্লেষকের বারত দিয়ে সিএনবিসি এক প্রতিবেদনে জানায়, ট্রাম্প আসিয়ানে না আসায় প্রমাণ হয়েছে তিনি এশিয়ার প্রতি খুব একটা মনোযোগী নন। অবশ্য ট্রাম্প এশিয়ার প্রতি মুখ ফিরিয়ে নিয়েছেন কীনা তা নিশ্চিত করতে পারেনি সংবাদমাধ্যমটি। অনেকে বলছেন, ট্রাম্পের কাজ মাইক পেন্স করতে পেরেছেন। কিন্তু এটা মানতে নারাজ অন্য একটি পক্ষ।

বাংলাদেশের মানবাধিকার পরিস্থিতি নিয়ে ইইউ পার্লামেন্টের গভীর উদ্বেগ

খাসোগি হত্যা: সৌদি পাঁচ কর্মকর্তা মৃত্যুদণ্ডের মুখে, যুবরাজ জড়িত নন!

পার্লামেন্টে এমপিদের হাতাহাতি!(ভিডিও)

কিশোর বক্সারের মৃত্যুতে উত্তাল থাইল্যান্ড

মেলানিয়ার সঙ্গে বিবাদ : পদত্যাগ করলেন ট্রাম্পের উপদেষ্টা

কানাডায় আশ্রয় চাইছে রেকর্ড সংখ্যক মার্কিন নাগরিক!

রোহিঙ্গা ইস্যুতে সু চি’র কঠোর সমালোচনায় মাহাথির

ওয়েস্টবেঙ্গল ‘বাংলা’ হতে পারে না, জানাল ভারতের কেন্দ্রীয় সরকার