শুক্রবার, ১৬ই নভেম্বর, ২০১৮ ইং ২রা অগ্রহায়ণ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

ব্রাহ্মনবাড়িয়ায় বিদ্যূৎ বিভাগ (পি ডি বি) এর স্বেচ্ছাচারিতার অবসান চাই

news-image

শামসুর রহমান বকুল,ব্যবস্হাপনা সম্পাদকঃ দেশ স্বাধীন হয়েছে আজ ৫০ বছর হতে চলছে। হাতে গোনা ১-২% ছাড়া বাকী ৯৮% সরকারী কাজে ঘাপলাই রয়ে গেছে। যেই আবেগ নিয়ে বীর মুক্তিযোদ্ধারা দেশ স্বাধীন করে ছিলেন, যেই আশা তারা করতেন একটি দুর্নীতি মুক্ত, শোষণ মুক্ত ন্যায় ভিত্তিক সমাজ এবং দেশ প্রতিষ্ঠা করা। কিন্তু সেই আশা পুরণ হয়নি। দুর্নীতি সমাজের রন্ধ্রে রন্ধ্রে বিস্তার লাভ করেছে। অভাবে স্বভাব নষ্ট এই প্রবাদ বাক্যকেও আজ আমরা ভূল প্রমাণিত করেছি। বর্তমান সরকার সরকারী কর্মকর্তা – কর্মচারীদের বেতন দ্বিগুণ-তিনগুন করেছেন । যখন বেতন বাড়ানোর কথা হচ্ছিল তখন মাননীয় প্রধানমন্ত্রী- অর্থমন্ত্রী বলেছিলেন বেতন কম তাই সরকারী কর্মকর্তা – কর্মচারীরা দুর্নীতি করেন। আপনারা বলুনতো বেতন বাড়ার পর দুর্নীতি কমেছে কি না? আমারতো মনে হয় বেড়েছে এবং সাথে সাথে রেটটা বেড়েছে। আগে যেখানে ১০০ টাকা ঘুষ খেতেন এখন ১০০০ টাকা খান। বিদ্যূৎ বিভাগ (পি ডি বি) এর শপথ “দেশ প্রেমের শপথ নিন,দুর্নীতিকে বিদায় দিন।” কত বড় হিপোক্রেসি ভাবুনতো একবার।

সব বিভাগকে টেক্কা দিয়ে ভূমি এবং বিদ্যূৎ বিভাগ (পি ডি বি) সর্বকালের সব স্বেচ্ছাচারিতার রেকর্ড ভঙ্গ করেছে। নীচে ব্রাহ্মনবাড়িয়ায় বিদ্যূৎ বিভাগ (পি ডি বি) এর স্বেচ্ছাচারিতার কিছু নমুনা আপনাদের সামনে তুলে ধরছি ।

২০ এপ্রিল’২০১৮ হইতে ১৯ মে’২০১৮
ব্যবহারিত ইউনিট “০” বিল করা হয়েছে ১০৮ টাকা

২০ মে’২০১৮ হইতে ১৯ জুন’২০১৮
ব্যবহারিত ইউনিট “০” বিল করা হয়েছে ৫৩ টাকা

২০ জুন’২০১৮ হইতে ১৯ জুলাই’২০১৮
ব্যবহারিত ইউনিট “১০০” বিল করা হয়েছে ৫১১ টাকা

২০ জুলাই’২০১৮ হইতে ১৯ আগস্ট’২০১৮
ব্যবহারিত ইউনিট “৭৭০” বিল করা হয়েছে ৬৭১১ টাকা

একই ফ্ল্যাটে পর পর দুই মাস “০” ইউনিট বিল করে আবার ৭৭০ ইউনিট একমাসে কিভাবে হয়? এই যে একসাথে ৭৭০ ইউনিট বিল করে আপার স্লাবে নিয়ে অতিরিক্ত টাকা বিল করল তার দায় কার? বর্তমান সরকার অনেক উন্নয়ন করেছেন। কিন্তু এইসব অসৎ কর্মকর্তা – কর্মচারীরা পরোক্ষভাবে সাধারন মানুষকে ভোগান্তিতে ফেলে সরকার বিরোধীতে পরিণত করছে।
ভোক্তা অধিকার আইনে মামলা করে এর প্রতিবিধান করতে পারব। আমি ভোক্তা অধিকার অধিদপ্তরে অভিযোগ করে প্রতিবিধান পাওয়া যাবে জানি। সময় করে সেখানেই যাব। সেই সাথে একজন সৎ সরকারী কর্মকর্তা Mahbub Kabir Milon Member, Additional Secretary, Bangladesh Food Safety Authority at Government of Bangladesh ভাইকে শেয়ার দেব।আমি যতটুকু জানি এই খবরটা উনি প্রধানমন্ত্রীর দপ্তর পর্যন্ত পৌছাবেন ইনশাল্লাহ। কিছু অসাধু কর্মচারীর জন্য আমাদের এই প্রিয় মাতৃভূমিকে বিপন্ন হতে দেয়া যায়না। ব্রাহ্মনবাড়িয়া জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান জনাব Al-Hajj Shafiqul Alam MSc ব্রাহ্মনবাড়িয়ার সদর আসনের সফল সংসদ সদস্য এবং ব্রাহ্মনবাড়িয়ার উন্নয়নের রুপকার, বাংলাদেশ জাতীয় সংসদের পার্বত্য অঞ্চল বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের মাননীয় সদস্য জনাব R.A.M Obaidul Muktadir Chowdhury Mp Brahmanbaria, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক জনাব আল মামুন সরকার, পৌরসভার চেয়ারম্যান জনাবা নায়ার কবীরসহ সবার সুদৃস্টি আশা করছি। এই স্বেচ্ছাচারিতার হাত থেকে বাঁচার জন্য প্রিপেইড মিটার চাই।