রবিবার, ১৮ই নভেম্বর, ২০১৮ ইং ৪ঠা অগ্রহায়ণ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

‘এইসব নেতা নাকি বাংলাদেশ চালাবে’

news-image

লন্ডন প্রবাসী লেখক ও ইন্টারন্যশনাল স্ট্রাটেজি ফোরামের কর্মী নিঝুম মজুমদার সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে লিখেছেন, প্রধানমন্ত্রীর সাথে মান্না আর মওদুদের কথপোকথনগুলো পড়ে হাসি চাপিয়ে রাখা রীতিমত অসম্ভব।প্রধানমন্ত্রীর সামনে ঐক্যফ্রণ্টের নেতাদের এই ত্রাহি অবস্থা কেন? সভা সমাবেশে মান্নার কথা শুনলে মনে হয় মান্নার মত রেম্বো এই পৃথিবীতে আর কেউ নেই। কিন্তু প্রধানমন্ত্রীর সামনে এলে মনে হয় একটা বিড়াল মিউ মিউ করে ডাকছে।

মওদুদ সুযোগ পেয়েই নিজের বাড়ির কথা তুললো, যেন রাজনৈতিক উৎকন্ঠা নয় যে কোনো মূল্যে তার গুলশানের বাড়ি ফিরে পাওয়াই এখন মূল লক্ষ্য। এর আগেও ডাক্তার জাফরুল্লাহকে বলতে শুনেছি তার ১৪ একর জমির কথা। প্রথম সংলাপের দিন প্রধানমন্ত্রীকে কাছে পেয়েই প্রশ্ন তিনি প্রশ্ন তুলেছে তার ১৪ একর জমি না পাওয়ার কথা।এরআগে, বুধবার জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের সংলাপ শেষ হওয়ার পর মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর ও ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে আলাদা কথা বলেন। মির্জা ফখরুল কারাগারে থাকা বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার সঙ্গে দেখা করতে চাইলে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘ভালো কথা। দেখা করতে চান, অবশ্যই দেখা করবেন। আমি বলে দেব।’

ব্যারিস্টার মওদুদ প্রধানমন্ত্রীকে বলেন, ‘আমার বাড়িটা নিয়ে গেলেন কেন নেত্রী?’ জবাবে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘বাড়িটা নেওয়া হতো না। আপনি জালিয়াতি করতে গেছেন কেন? আদালত বলেছে, আপনাদের বাড়ি না। বাড়িটা যদি আপনি কবি জসীমউদ্‌দীনের মেয়ের নামে লিখে দিতেন, তাহলে আমি কিছুই করতাম না। আপনি বাড়ি নিয়ে দিছেন আপনার ভাইয়ের নামে। আমাদের ফরিদপুরের মেয়ের নামে দিলে কিন্তু আমি এটা নিয়ে নাড়াচাড়া করতাম না।’ মওদুদ বলেন, ‘তাহলে আমি এখন তার নামে ফেরত দেব।’ প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘না, না আপনাকে আর বিশ্বাস করা যায় না।’

মাহমুদুর রহমান মান্নাও প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে কথা বলতে চাইলে তিনি বলেন, ‘ও কী কথা বলবে! সকালে একটা আর বিকেলে আরেক কথা বলে। ওর সঙ্গে কী কথা বলব। সে নির্বাচন করতে চায়, করুক।’ এ সময় মান্না বলেন, ‘আমি জোট ছাড়া কীভাবে নির্বাচনে আসি!’ জনসভায় দেওয়া বক্তব্যের বিষয়ে মান্না বলেন, পত্রিকায় যা লেখা হয়েছে, তা সম্পূর্ণ সঠিক নয়। এ সময় প্রধানমন্ত্রী জানতে চাইলে রেজাউল করিম বলেন, ‘মান্না বলেছেন, জীবন দিয়ে দেব, তবু খালেদা জিয়াকে মুক্ত করে ছাড়ব।’ প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘মান্না তুমি এসব কথা বলেছ?’ মান্না বলেন, ‘আমি ওখানে যা বলেছি, আমার কথা পত্রিকায় মিসকোট করা হয়েছে। আমি এমন কথা বলিনি।’ এ সময় প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘টেলিভিশনে সবকিছু আছে।’ সূত্র: বাংলাদেশ -জার্নাল