বুধবার, ১২ই ডিসেম্বর, ২০১৮ ইং ২৮শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

ট্রাম্পসহ ৬ মার্কিন কর্মকর্তার বিরুদ্ধে মামলা!

news-image

অনলাইন ডেস্ক : যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের বিরুদ্ধে মামলা করেছে দেশটির সংবাদমাধ্যম সিএনএন। এই মামলায় মার্কিন প্রশাসনের আরও পাঁচজন কর্মকর্তাকে আসামি করা হয়েছে। সংবাদমাধ্যমটির অভিযোগ, সিএনএনের এক সাংবাদিকের সঙ্গে অসাংবিধানিক আচরণ করেছেন তারা।

এক বিবৃতিতে সিএনএন জানিয়েছে, ‘সাংবাদিক অ্যাকোস্টার প্রেস পাস ফিরিয়ে দেওয়ার দাবি জানিয়ে “ওয়াশিংটন ডিসি ডিস্ট্রিক্ট কোর্টে গতকাল মঙ্গলবার সকালে ট্রাম্প প্রশাসনের বিরুদ্ধে মামলা করা হয়েছে।’
গত ৭ নভেম্বর হোয়াইট হাউসে আমেরিকার মধ্যবর্তী নির্বাচনের সার্বিক বিষয় নিয়ে সংবাদ সম্মেলন করেন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প। সম্মেলনে অভিবাসী ইস্যুতে প্রশ্ন করে ট্রাম্পের সঙ্গে বিতর্কে জড়ান সিএনএন-এর হোয়াইট হাউস প্রধান সংবাদদাতা জিম অ্যাকোস্টা। এর জের ধরে হোয়াইট হাউসে তার প্রবেশে নিষেধাজ্ঞাসহ তার প্রেস পাস বাতিলের সিদ্ধান্ত দেয় মার্কিন প্রশাসন।

মামলায় বাদী হয়েছে সিএনএন ও সাংবাদিক অ্যাকোস্টা। অভিযুক্তদের মধ্যে রয়েছেন-প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প, চিফ অব স্টাফ জন কেলি, প্রেস সেক্রেটারি সারাহ স্যান্ডার্স, হোয়াইট হাউজের যোগাযোগবিষয়ক উপ-প্রধান বিল শাইন, গোয়েন্দা পরিচালক জোসেফ ক্ল্যান্সি ও অপর কর্মকর্তা জন ডে।

সিএনএন জানায়, সিএনএন ও অ্যাকোস্টার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হলেও ভবিষ্যতে যে কারো সঙ্গে এমন করতে পারেন ট্রাম্প প্রশাসন। তারা চান, সংবাদদাতা জিম অ্যাকোস্টাকে যত তাড়াতাড়ি সম্ভব হোয়াইট হাউসে প্রবেশের অনুমতি দেওয়া হোক। এ ছাড়া তার বিরুদ্ধে ভবিষ্যতে যেন এমন নিষেধাজ্ঞা আবারও আরোপ না করা হয় তা নিশ্চিত করা হোক।

ঘটনার দিনই সাংবাদিক অ্যাকোস্টার হোয়াইট হাউজে প্রবেশের প্রেস পাস বাতিল করে ট্রাম্প প্রশাসন। যা সিক্রেট সার্ভিস ‘হার্ড পাস’ নামে পরিচিত। ওইদিন প্রশ্নত্তোর পর্বে সীমান্তে শরণার্থীর ঢল ঠেকানোর ইস্যু থেকে শুরু করে অভিবাসন বিরোধী বিজ্ঞাপন প্রচার এমনকি ২০১৬ সালের মার্কিন নির্বাচনে রাশিয়ার হস্তক্ষেপের বিষয়টি নিয়েও ট্রাম্পকে নানা চ্যালেঞ্জিং প্রশ্ন করে যাচ্ছিলেন অ্যাকোস্টা।

তার একের পর এক প্রশ্নে এক পর্যায়ে ট্রাম্প বলে ওঠেন, ‘যথেষ্ট হয়েছে। এবার মাইক্রোফোন রাখুন।’ তার এ কথার পরই হোয়াইট হাউসের এক নারী কর্মী এগিয়ে এসে অ্যাকোস্টার হাত থেকে মাইক্রোফোন কেড়ে নেওয়ার চেষ্টা করেন। কিন্তু অ্যাকোস্টা তাকে বাধা দেন।

ট্রাম্প তাৎক্ষণিকভাবে সম্মেলনকক্ষ ছেড়ে বেরিয়ে যান এবং একটু পরই ফিরে এসে অ্যাকোস্টাকে ‘অত্যন্ত রূঢ়’ ও ‘ভয়ঙ্কর’ ব্যক্তি বলে মন্তব্য করেন। ওই নারী কর্মীর সঙ্গে অ্যাকোস্টার আচরণকেও ‘ভয়াবহ’ বলে উল্লেখ করেন ট্রাম্প।

হোয়াইট হাউস একজন সাংবাদিকের এমন আচরণ কখনো সহ্য করবে না। আর এ কারণেই তার ‘প্রেস পাস’ বাতিল করা হয়েছে বলে পরে জানান হোয়াইট হাউসের প্রেস সেক্রেটারি সারাহ স্যান্ডার্স।