মঙ্গলবার, ১৮ই ডিসেম্বর, ২০১৮ ইং ৪ঠা পৌষ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

তিন জেলায় বন্দুকযুদ্ধে নিহত ৪

news-image

অনলাইন ডেস্ক : মাদক বিরোধী অভিযানের অংশ হিসেবে কক্সবাজার, মুন্সিগঞ্জ, সিলেট ও খুলনায় র‍্যাব-পুলিশের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে ৫ জন নিহত হয়েছেন। মঙ্গলবার দিবাগত রাত থেকে আজ বুধবার ভোর পর্যন্ত পৃথকভাবে এসব অভিযান চলে। নিহতদের মধ্যে চারজন মাদকবিক্রেতা ও একজন ডাকাত বলে দাবি করেছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী।

এদের মধ্যে কক্সবাজারে ২ জন, মুন্সিগঞ্জ ও সিলেটে একজন করে নিহত হয়েছেন। প্রতিনিধিদের পাঠানো খবরে এসব তথ্য জানা গেছে।

কক্সবাজার : কক্সবাজারের টেকনাফে মেরিন ড্রাইভে ইয়াবা চালান খালাসকে কেন্দ্র করে দুই দল মাদক ব্যবসায়ীর মধ্যে গোলাগুলির ঘটনা ঘটেছে। এতে দুই মাদক ব্যবসায়ী নিহত হয়েছেন। বুধবার ভোরে টেকনাফ মেরিন ড্রাইভ সড়কের জিরো পয়েন্ট এলাকায় এই ঘটনা ঘটে। ঘটনাস্থল থেকে ইয়াবা ও অস্ত্রসহ গুলিবিদ্ধ লাশ দুটি উদ্ধার করেছে পুলিশ।

নিহতরা হলেন, নজির আহমদ ওরফে নজির ডাকাত (৩৮)। তিনি সাবরাং ইউনিয়নের কচুবনিয়া এলাকার আবদুর রহিমের ছেলে। অপরজন হ্নীলা ইউনিয়নের লেদা নয়াপাড়ার আমির হামজার ছেলে আবদুল আমিন। তাদের বিরুদ্ধে মানবপাচার ও মাদকসহ থানায় একাধিক মামলা রয়েছে।

টেকনাফ মডেল থানার ওসি প্রদীপ কুমার দাস ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন। তিনি বলেন, কক্সবাজার-টেকনাফ মেরিন ড্রাইভ সড়কে ইয়াবা খালাসকে কেন্দ্র করে দুই ইয়াবা ব্যবসায়ী গ্রুপের মধ্যে গোলাগুলি ঘটনা ঘটেছে, এমন খবর পেয়ে থানা পুলিশের একটি দল ওই এলাকায় পৌঁছলে ইয়াবা ব্যবসায়ীরা পালিয়ে যায়। পরে সেখান থেকে গুলিবিদ্ধ দু’জনের মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়। স্থানীয় লোকজন লাশ দুটি নজির আহমদ ও আবদুল আমিন বলে শনাক্ত করে।

এসময় ঘটনাস্থল থেকে ৪টি এলজি অস্ত্র, ৯ রাউন্ড গুলি ও ১০ হাজার ১৫০পিস ইয়াবা উদ্ধার করা হয়েছে বলে জানান তিনি।

ওসি আরও বলেন, ইয়াবাকে কেন্দ্র করে দুই গ্রুপের গোলাগুলির ঘটনায় তাদের মৃত্যু হয়েছে। নিহত দুজনই শীর্ষ ইয়াবা ব্যবসায়ী।

মুন্সিগঞ্জ : মুন্সিগঞ্জের টংগিবাড়ীতে র‍্যাবের সঙ্গে কথিত ‘বন্দুকযুদ্ধে’ আবুল হোসেন শেখ (৪৭) নামে মাদক মামলার এক আসামি নিহত হয়েছেন। বুধবার ভোরে উপজেলার পূর্ব সোনারং গ্রামের আলম শেখের বালুর মাঠে এ ঘটনা ঘটে বলে জানিয়েছেন র‍্যাব-১১ এর উপ-পরিচালক মেজর আশিক বিল্লাহ।

নিহত আবুল হোসেন একই উপজেলার কুন্ডের বাজার এলাকার মৃত নাজিম উদ্দিন শেখের ছেলে। তার বিরুদ্ধে মাদকসহ ১৬ মামলা রয়েছে বলে টংগিবাড়ী পুলিশ সূত্রে জানা গেছে।

র‍্যাব জানান, মাদকবিক্রতা আবুল হোসেন তার বাহিনীর ৪-৫ জন সদস্য নিয়ে সোনারং এলাকায় মিটিং করছিল। এমন গোপন সংবাদের ভিত্তিতে ওই এলাকায় অভিযানে যান র‍্যাব সদস্যরা। এ সময় তারা র‍্যাবের উপস্থিতি টের পেয়ে গুলি ছুঁড়লে র‍্যাবও পাল্টা গুলি ছোঁড়ে। পরে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় আবুল হোসেন পাওয়া যায়। তাকে উদ্ধার করে টংগিবাড়ী স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত বলে ঘোষণা করেন।

র‍্যাব-১১ এর উপ-পরিচালক মেজর আশিক বিল্লাহ জানান, ঘটনাস্থল থেকে একটি পিস্তল, তিন রাউন্ড গুলি, একটি ম্যাগজিন, ৫০০ পিস ইয়াবা, নগদ টাকা ও মোবাইল ফোন জব্দ করা হয়েছে। এ ঘটনায় র‍্যাবের ২ সদস্য আহত হয়েছেন বলেও জানান র‍্যাবের এ কর্মকর্তা।

সিলেট : সিলেটে র‍্যাবের সাথে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ মো. শহীদুল ইসলাম ওরফে শহীদ মিয়া নামে একজন নিহত হয়েছেন। র‍্যাব জানিয়েছে, নিহত শহীদুল স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের তালিকাভুক্ত শীর্ষ মাদক ব্যবসায়ী।

বুধবার ভোরে মোগলাবাজার থানার শ্রীরামপুর বাইপাস এলাকায় এ বন্দুকযুদ্ধের ঘটনা ঘটে বলে জানান র‍্যাব-৯ এর অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. মনিরুজ্জামান।

নিহত মো. শহীদুল ইসলাম ওরফে শহীদ মিয়া সিলেট দক্ষিণ সুরমা থানার তেলিবাজার আহম্মদপুর গ্রামের দুলাল মিয়ার ছেলে।

র‍্যাব-৯ এর পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, বুধবার দিবাগত রাত সাড়ে ৩ টার দিকে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে দক্ষিণ সুরমা উপজেলার শ্রীরামপুর এলাকায় মাদকবিরোধী অভিযান চালায় র‍্যাব-৯ এর একটি বিশেষ দল। এসময় মাদক ব্যাবসায়ীরা র‍্যাবকে লক্ষ্য করে গুলি ছোঁড়ে। র‍্যাবও পাল্টা গুলি চালালে শীর্ষ ইয়াবা ব্যবসায়ী শহীদ গুলিবিদ্ধ হন।

গুরুতর অবস্থায় তাকে উদ্ধার করে সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। ঘটনাস্থল থেকে একটি বিদেশি পিস্তল ও বিপুল পরিমাণ ইয়াবা উদ্ধার করা হয়েছে।

এ জাতীয় আরও খবর