বুধবার, ১২ই ডিসেম্বর, ২০১৮ ইং ২৮শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

স্বপ্ন আমারও বড় : সৌম্য

news-image

স্পোর্টস ডেস্ক :  ‘সৌম্য সরকার’ নামটা সমালোচনাকারীদের রসদ। ভালো তাঁকে প্রতিটা ম্যাচেই খেলতে হবে। আর যদি এক-দুইটা ম্যাচ খারাপ খেলা হয় তবে আবারও সেই কটূক্তি। সৌম্য কদিন আগে বলেছিলেন, এসব যেন সামনে না আসে তাই ফেসবুকের একাউন্টটা বন্ধ রেখেছিলাম।কিন্তু সৌম্য সরকার নিজেকে প্রমাণ করেছেন বারবার।

যত ঝড়ই আসুক, কীভাবে যেন ঝড়ের গতিতেই ভালো একটা ইনিংস খেলে মুখ বন্ধ করে দেন সমালোচনাকারীদের।এইতো কদিন আগে শেষ হওয়া জিম্বাবুয়ে সিরিজের ওয়ানডে দল থেকে বাদ পড়েছিলেন তিনি। কিন্তু সিরিজ শুরুর আগে প্রস্তুতি ম্যাচে শত রানের ইনিংস খেলে আবারও সিরিজের শেষ ম্যাচের দলে জায়গা করে নেন। এই ম্যাচেও খেলেন শত রানের ইনিংস।অবশ্য ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে ওয়ানডে সিরিজের দলে টিকে গেছেন ওই শতকের কল্যাণেই।

মাঝে ক্যারিবীয়দের বিপক্ষে দুই ম্যাচের টেস্ট সিরিজের চার ইনিংসেই হয়েছিলেন ব্যর্থ। তাতে আবারও কথা উঠে তার সামর্থ্য নিয়ে।আজ বৃহস্পতিবার বিকেএসপির তিন নম্বর মাঠে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে অনুষ্ঠিত হয় প্রস্তুতি ম্যাচ। এই ম্যাচে খেলেছেন ওয়ানডে দলে থাকা মাশরাফি বিন মুর্তজা, তামিম ইকবাল, ইমরুল কায়েস, মোহাম্মদ মিঠুন, আরিফুল হক, রুবেল হোসেন আর সৌম্য সরকার।ম্যাচটা গা গরমের হলেও প্রমাণ করার ছিল অনেক কিছুই। রাজনীতিতে নাম লিখিয়ে নাকি ওয়ানডে অধিনায়ক খেলাই ভুলে গেছেন। সেই মাশরাফি আজ জ্বলে উঠেন ব্যাটে বলে সমান তালে।

তামিমের দীর্ঘ বিরতির পর ফেরার ম্যাচে শতক হাঁকিয়ে জানান দেন আমি পুরো দমেই ফিরেছি।কিন্তু সৌম্য? শেষ ওয়ানডেতেই তো তার শতক ছিল। তাহলে কি প্রমাণ করার আছে? সৌম্য এটাই প্রমাণ করেছেন, ওয়ানডে দলে তার ধারাবাহিকতা।

৮৩ বলে ১০৩ রানের ইনিংসে ছিল ৭টি চার আর ৬টি ছয়। ছিলেন অপরাজিত।ম্যাচ শেষে সংবাদ সম্মেলনে ব্যাখ্যা দেন শত রানের এই অনবদ্য ইনিংসের।’আসলে শুরুতে আমার তেমন কোনও পরিকল্পনা ছিল না। তামিম ভাই অনেক ভালো করছিলো। প্রত্যেক ওভারে অনেক রান আসছিলো। আমি চেষ্টা করেছি যে উনাকে সাপোর্ট দেয়ার। যতটুকু সময়য় থাকি। আর বোলারদের দেখছিলাম।

উনি আমাকে কিছু কথা বলছিলেন যেগুলো আমার জন্য হেল্পফুল ছিল। তো সেই অনুসারেই ব্যাটিং করেছি। একটা ভুল শট খেলেছি। এর মধ্যে উনি একটি কথা বলেছেন, তখন আরও মাথা খুলেছে। উইকেটের মধ্যে কিছু কিছু কথাও আসলে অনেক হেল্পফুল। আমারও উচিৎ ছিল পরিস্থিতি বোঝা। রান অনেক আসছিলো। প্রথম দশ ওভারে অনেক রান ছিলো। প্রায় ৮০-৯০ এর মতো রান ছিলো। সেই অনুসারেই খেলছিলাম যে ইনিংসটি বড় করি। আর শেষের দিকে যেয়ে মনে হয়েছিল যে আমি যদি উইকেটে থাকি তাহলে অবশ্যই ম্যাচটি জিতবো। সুতরাং ঐ আত্মবিশ্বাসটি নিয়েই শেষ পর্যন্ত থাকার চেষ্টা।’

তামিমকে নিয়ে সৌম্য আরও বলেন, তামিম ভাই তো দলের জন্য সবসময়েই একটি অনুপ্রেরণা। উনি থাকলে সবার একটি আত্মবিশ্বাস থাকে যে সিনিয়র ক্রিকেটার, উনি ভালো টাচেও আছেন। উনি থাকলে একটি বিষয় থাকে যে ভালো একটা শুরু আসলে পেছনের দিকে আমাদের যে ব্যাটসম্যানরা আছে তারা সহজেই ধারাবাহিকতা ধরে রাখতে পারে। আমার কাছে ওনার ব্যাটিং দেখে মনে হয়নি যে উনি কয়েকটি ম্যাচ বাইরে ছিল। আমার দেখে খুব ভালো লেগেছে যে উনি অনেক আত্মবিশ্বাসী ছিলেন। আর শুরুতে একটি ভালো স্টার্ট পেয়েছে। এমন স্টার্ট সবসময় হয় না। আমি চাইবো যে এমন স্টার্ট সবসময় উনি দিতে পারবেন, এটি বাংলাদেশের জন্যও ভালো, ওনার জন্যও ভালো।

জিম্বাবুয়ে সিরিজের মতো এবার আর এক ম্যাচে নয়, তিন ম্যাচের জন্যই দলে আছেন সৌম্য। সবশেষ ম্যাচে সেঞ্চুরি করার পর আজ প্রস্তুতি ম্যাচেও খেললেন লম্বা ইনিংস। সৌম্য শোনালেন নিজের প্রত্যাশার কথা।’আশা তো সবসময় বড়ই থাকে। আর স্বপ্ন বড় থাকাই তো ভালো। স্বপ্ন আমারও বড় থাকে। চেষ্টা করবো যে ম্যাচগুলোতে সুযোগ পাবো ধারাবাহিকতা বজায় রাখার। যেমনটা যাচ্ছে এমনটা রাখতে, সবসময় তো সবার সবকিছু হয় না। চেষ্টা করবো যে সুযোগ পেলে শেষ ম্যাচটি যেভাবে খেলেছি তেমনভাবে আত্মবিশ্বাসী হয়ে খেলতে।’