বৃহস্পতিবার, ২৩শে মে, ২০১৯ ইং ৯ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

সৈয়দ মুজতবা আলীর দেশে বিদেশে

news-image

সৈয়দ মুজতবা আলীকে নিয়ে একটি ছোট্ট প্রবন্ধ লিখতে যাওয়ার মত বড় স্পর্ধা আর হয় না। তিনি এত বিশাল একজন মানুষ ছিলেন এবং তার অভিজ্ঞতার ঝুলি এত ব্যাপ্ত যে, তাকে একটি প্রবন্ধে ঠাঁই দিয়ে চেনানোর চেষ্টা রীতিমত অপমানজনক। আমরা তাই সেদিকে চেষ্টা না করে তার প্রাথমিক পরিচয় দিয়েই চলে যাব তার বিখ্যাত ও প্রবাদপ্রতিম ভ্রমণ কাহিনী “দেশে বিদেশে” নিয়ে কিছু বলার চেষ্টা করতে।

এই বইটিকে বাংলা সাহিত্যের প্রথম, এখন পর্যন্ত সবচেয়ে জনপ্রিয় এবং সার্থক ভ্রমণ কাহিনী হিসেবে ধরা হয় (তথ্যসূত্র: উইকিপিডিয়া)। প্রায় শতাব্দী পার হতে চলল, এই বই এর আবেদন তারপরেও সব বয়সের মানুষের কাছে এখনও অত্যন্ত উঁচু।

সৈয়দ মুজতবা আলী জন্মগ্রহণ করেন ১৯০৪ খ্রিষ্টাব্দের ১৩ সেপ্টেম্বর অবিভক্ত ব্রিটিশ ভারতে আসামের অন্তর্ভুক্ত সিলেটের করিমগঞ্জে। ব্রিটিশ সরকারের অধীনে সাব-রেজিস্টার হিসেবে কর্মরত ছিলেন তাঁর পিতা সৈয়দ সিকান্দার আলী। তাঁর পৈতৃক ভিটা মৌলভীবাজার, সিলেট। সিলেটের গভর্নমেন্ট হাই স্কুলে নবম শ্রেণী পর্যন্ত পড়ালেখা করেন। পিতার বদলির চাকরি হওয়ায় সৈয়দ মুজতবা আলীর প্রাথমিক শিক্ষাজীবন কাটে বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে। ১৯২১ সালে তিনি শান্তিনিকেতনে ভর্তি হন। তিনি ছিলেন বিশ্বভারতীর প্রথমদিকের ছাত্র। এখানে তিনি সংস্কৃত, ইংরেজি, আরবি, ফার্সি, হিন্দি, গুজরাটি, ফরাসি, জার্মান ও ইতালীয় ভাষাশিক্ষা লাভ করেন।শান্তিনিকেতনে পড়ালেখার পাঠ চুকিয়ে মাত্র ২৩ বছর বয়সে আফগানিস্তান সরকারের অনুরোধে “কাবুল কৃষি কলেজে” ফার্সি এবং ইংরেজি ভাষার শিক্ষক হিসেবে যোগদান করেন।

বইটির নাম দেশে বিদেশে দেখে এটা অনেক গুলো দেশের ভ্রমণ কাহিনী নিয়ে লেখা বই মনে হলেও আসলে এখানে কেবলমাত্র দুটি দেশের কথাই বলা আছে। কিন্তু এটুকুর মাঝেই তিনি যে যাদু দেখিয়েছেন, তার তুলনা হয় না।

সৈয়দ মুজতবা আলীর লেখার নিজস্ব বৈশিষ্ট্য তার প্রতিটি লেখায় স্পষ্ট। আড্ডার মেজাজে আর চটুল ছন্দে আগাগোড়া একটি কাহিনী বর্ণনা করা, এবং তার সাথে সাথে বহু-ভাষাভাষী এবং বৈচিত্র্যময় ঐতিহ্যবাহী একটি স্বল্পপরিচিত জাতিগোষ্ঠীর যুগান্তরের ঘটনাবহুল ইতিহাসকে বর্ণনা করতে পারা একমাত্র তার পক্ষেই সম্ভব। আফগান মীর চরিত্রের কণ্ঠে নিত্যদিনের বাংলায় কঠিন অথচ প্রাঞ্জল সংলাপগুলো পড়ে সহজেই বোঝা যায় ভাষাতত্ত্বে সৈয়দ মুজতবা আলীর শেকড় কত গভীরে প্রোথিত। আমাদের আটপৌরে মুখের ভাষায় যে সাবলীলতা আছে, প্রতিটি বাক্যের শব্দমালায় যে অন্তরঙ্গতা আছে সেটা বার বার উপলব্ধি করা যায় শুধু তার লেখা পড়লেই।

আফগানিস্তান রাজনৈতিক ভাবে একটি দেশ হতে পারে, কিন্তু রং-এ, রূপে, বৈচিত্র্যে, জাতিতে, ভাষায় গোটা বিশেক দেশকে হারিয়ে দিতে পারে। তাই বইটির নাম যদি বহুবচনে রাখা না হত তবে যেন ঠিক বই এর মুল ভাবটাকে তুলে আনা যেত না । জাতি বৈচিত্র্যের দিক থেকে পাকিস্তানও কম যায় না আফগানিস্তানের তুলনায়। সেই নমুনা দেখা যায় পেশোয়ারে- ডজন-খানেক ভাষা, আর ঠিক ততগুলো জাতি, ততগুলো জীবন দর্শন। আর এই বইয়ের মূল পটভূমি কাবুল তো বিচিত্রতায় অনন্য। পাঠান, হাজারা, তাজিক, ভারতীয় আর তাদের সাথে ভিড় জমিয়েছে আরও বিচিত্র ইউরোপীয় বিভিন্ন রসের দর্শকগণ। সব মিলিয়ে আফগানিস্তান আসলেই দেশ বিদেশ।

ছবিটি যদিও আধুনিক কাবুল এর, মুজতবা আলীর সময় থেকে খুব একটা পরিবর্তন হয়েছে বলা যায় না। ছবি সংগৃহীত।

সাধারণ জ্ঞান থেকে  আফগানিস্তান সম্পর্কে ধারণা হতেই পারে দেশটি ঊষর, মরুময়, ছায়াহীন, প্রাণহীন, জীবন স্পন্দন যেখানে রসহীন পাথর, আছে কেবল যুদ্ধ বিগ্রহ আর হানাহানি। কথাগুলো মিথ্যে নয়, তবে আফগানিস্তানের সৌভাগ্য, আর একই সাথে পাঠক হিসেবে আমরাও সেই সৌভাগ্যের অংশীদার যে সৈয়দ মুজতবা আলী সেই দেশে ভ্রমণ করেছিলেন। কোন ভ্রমণকারী যদি ভ্রমণ-স্থলকে উপভোগ করতে না পারেন, তার কাদা, তার বালু, তার পাহাড়, তার ফুল, তার কাটায় যদি সৌন্দর্য অনুভব করতে না পারে তবে সেটি তার অন্তরের দীনতা, আর সেই দীনতা তাঁর কোনদিনই ছিল না। তিনি যখন যেখানে গিয়েছেন, সেই জায়গাটাকে ঠিক সেখানকার মত করেই অনুভব করার চেষ্টা করেছেন। আফগানিস্তান এর বিভিন্ন বিষয়ে তার যে প্রাঞ্জল বর্ণনা তা পড়লে মনে হবে, তিনি যেন মরুতে মধুর চাষ করেছেন। পাকিস্তান সহ আফগানিস্তানের মানুষ, তাদের দৈনন্দিন জীবন যাপন, মনন, ধ্যান ধারনা, জীবনবোধ. কাবুলের বাজার, আফগানিস্তানের ঘটনাপঞ্জী, প্রতিটি বিষয় তিনি যথাযোগ্য মর্যাদায় রসময় করে তুলে এনেছেন। তার বর্ণনায় আফগানিস্তান যেন তুলে ধরেছে তার আপন রূপ অকৃপণতায়। আফগানিস্তান হয়তো সবার কাছে নিজেকে প্রকাশ করে না। কিন্তু লেখক এই রুক্ষ দেশটিকে বাধ্য করেছেন তার কাছে নিজেকে প্রকাশ করতে।

আজকালকার ভ্রমণ-কাহিনী গুলো পড়লে একটা বিষয় দেখা যায়, সেখানে ভ্রমণ-কাহিনীর চেয়ে নিজের গল্পই বেশি থাকে, অথচ একটা ভ্রমণ কাহিনী হওয়া উচিত ঠিক তার উল্টোটা। গল্পটা হওয়া উচিত সেখানকার মানুষদের, সেখানকার প্রকৃতি আর সেখানকার সমাজ এবং সংস্কৃতি, ঠিক যেমনটা করেছেন সৈয়দ মুজতবা আলী।

একটা বই রিভিউ এর উদ্দেশ্য থাকে বইটা নিয়ে সম্ভাব্য পাঠকের মনে আগ্রহ তৈরি করার। সেই বই এর সবকিছু দুই লাইনে বলে না দেয়াটা বিশেষ জরুরী। তাই আমরা আর বেশি গভীরে গেলাম না, আশা করব বাংলাদেশের ভ্রমণ-পাগল মানুষেরা বইটি পড়বেন, অনুভব করবেন এবং ঠিক আমাদের মতই বিস্ময়ে হতবাক হয়ে যাবেন, কিভাবে এরকম একটি বই লেখা সম্ভব!

এ জাতীয় আরও খবর

বিমান ছিনতাই চেষ্টা মামলা, সিমলায় আটকে আছে তদন্ত!

ভারতে শ্বাসরুদ্ধকর অবস্থা, কে বসবেন মসনদে

৪৫ সেকেন্ডের ভিডিও’য় নেট দুনিয়ায় ঝড় তুলেছেন ‘হর্স ওম্যান’

২০ লাখ টাকার মালামাল এবং পরকীয়া প্রেমিকসহ প্রবাসীর স্ত্রী আটক

ব্যবসায়ীদের সঙ্গে পরামর্শ করে বাজেট তৈরি করুন : এনবিআরকে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশ

বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত আইরিশ বিউটি কুইন প্রিয়তি ধর্ষণ চেষ্টা, তদন্তে ইন্টারপোল!

নারীরা কীভাবে তারাবির নামাজ আদায় করবে

পুরুষ থেকে নারী হতে এক বাংলাদেশির অস্ত্রোপচার গুজরাটে

নেতাকর্মীদের চাঙ্গা থাকাতে রাহুল প্রিয়াঙ্কার বার্তা

মাঝরাতে দেবে গেছে মাতামুহুরী সেতু, অসংখ্য যানবাহন আটকা

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ট্রাকের ধাক্কায় ছাত্রলীগ নেতা নিহত

সরকারের উন্নয়ন ধারাকে গতিশীল করতে সকলের সহযোগিতা ও দোয়া চাই : লায়ন ফিরোজুর রহমান ওলিও