রবিবার, ১৭ই নভেম্বর, ২০১৯ ইং ৩রা অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

ক্ষমা চাইলেন চিত্রনায়ক ফেরদৌস

news-image

বিনোদন প্রতিবেদক : কয়েক দিন আগে ভারতের নির্বাচনী প্রচারণায় অংশ নিয়ে বিতর্কের জন্ম দিয়েছেন দুই বাংলার জনপ্রিয় চিত্রনায়ক ফেরদৌস। এই বিতর্কের মধ্যেই গতকাল মঙ্গলবার রাতে ভারত থেকে দেশে ফিরেছেন তিনি।

এ নিয়ে দুই দেশে হইচই পড়ে গেলেও একেবারে চুপ ছিলেন ফেরদৌস। বিভিন্ন গণমাধ্যমের পক্ষ থেকে বার বার তার সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলেও তা সম্ভব হয়নি।

অবশেষে এ বিষয়ে আজ বুধবার সন্ধ্যায় ফেরদৌস গণমাধ্যমে একটি লিখিত বক্তব্য পাঠিয়েছেন। যেখানে তিনি উল্লেখ করেন- ভারতের নির্বাচনী প্রচারণায় অংশ নেওয়া তার ভুল ছিল। এ নিয়ে তিনি ক্ষমাও চেয়েছেন।

তার বক্তব্যটি হুবহু তুলে ধরা হলো-

‘আমি চিত্রনায়ক ফেরদৌস। অভিনয় শিল্প আমার একমাত্র নেশা ও পেশা। অভিনয় শিল্পের মাধ্যমে বাংলা ভাষাভাষী সকলের মধ্যে মেলবন্ধন তৈরিতে সর্বদা কাজ করার চেষ্টা করেছি। আমার ভাবতে ভাল লাগে আমি দুই বাংলায় সমানভাবে জনপ্রিয়। দুই বঙ্গের মানুষের সংস্কৃতি ও জীবনাচারে অনেক সাদৃশ্য রয়েছে। আবার ভারত বহু কৃষ্টি-কালচারের সমন্বয়ে সমৃদ্ধ একটি দেশ।’

‘১৯৭১ সালে আমাদের মহান মুক্তিযুদ্ধে প্রতিবেশী দেশ হিসেবে ভারতের অবদান আমরা কৃতজ্ঞচিত্তে স্মরণ করি। পাশাপাশি ভারতের জনগণের ত্যাগ-তিতিক্ষা আমাদের চিরঋণী করে রেখেছে। পশ্চিমবঙ্গের সাংস্কৃতিক অঙ্গনের সাথে আমার সম্পর্ক বহুদিনের। এখানের সাংস্কৃতিক অঙ্গনের অনেক শিল্পী, সাহিত্যিক আমার বন্ধু। যাদের সাথে আমি সবসময়ে হৃদ্যতা অনুভব করি। এজন্য বিভিন্ন সময় কারণে অকারণে আমি এখানে চলে আসি।’

‘ভারতে জাতীয় নির্বাচন হচ্ছে। বিশ্বের সর্ববৃহৎ গণতান্ত্রিক দেশের এই নির্বাচন পূর্বের মতো সাড়া বিশ্বে সাড়া ফেলেছে। এই সময়ে আমি ভারতে অবস্থান করছিলাম। সকলের মতো আমারও আগ্রহের জায়াগায় ছিল এই নির্বাচন। ফলে ভাবাবাগে তাড়িত হয়ে পশ্চিমবঙ্গের একটি নির্বাচনী প্রচারণায় আমি আমার সহকর্মীদের সাথে অংশগ্রহণ করি। এটা পূর্বপরিকল্পনার কোনো অংশ ছিল না। শুধুমাত্র আবেগের বশবর্তী হয়ে আমি অংশগ্রহণ করেছি। কারো প্রতি বিশেষ আনুগত্য প্রদর্শন বা কোনো বিশেষ দলের প্রচারণার লক্ষ্যে নয়, আবার কারো প্রতি অসম্মান প্রদর্শন করাও আমার উদ্দেশ্য নয়। ভারতের সকল রাজনৈতিক দল এবং নেতার প্রতি আমার সম্মান রয়েছে। আমি ভারতের আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল।’

‘আমি আগেও বলেছি পশ্চিমবঙ্গের মানুষের প্রতি আমার ভালোবাসা অগাধ। সেই ভালোবাসা আমাকে আবেগ তাড়িত করেছে। আমি বুঝতে পেরেছি, আবেগের বশবর্তী হয়ে সহকর্মীদের সাথে এই নির্বাচনী প্রচারণায় অংশগ্রহণ করাটা আমার ভুল ছিল। যেটা থেকে অনেক ভ্রান্তি তৈরি হয়েছে এবং অনেকে ভুলভাবে নিয়েছেন। আমি স্বাধীন বাংলাদেশের একজন নাগরিক। একটি স্বধীন দেশের নাগরিক হিসেবে অন্য একটি দেশের নির্বাচনী প্রচারণায় অংশগ্রহণ কোনভাবেই ঔচিত্য নয়। আমার অনিচ্ছাকৃত ভুলের জন্য আমি ক্ষমা প্রর্থনা করছি। আশা করি, সংশ্লিষ্ট সকলে আমার অনিচ্ছাকৃত ভুলকে ক্ষমা সুন্দর দৃষ্টিতে দেখবেন।’ দৈ.আ.স

এ জাতীয় আরও খবর

চলছে প্রাথমিক ও ইবতেদায়ি সমাপনী পরীক্ষা

বাংলা ট্রিবিউনের সাংবাদিকের মরদেহ উদ্ধার

সরাইলে প্রথম শ্রেণীর ছাত্রীকে ধর্ষণের চেষ্টা, শিক্ষিকার স্বামী গ্রেফতার

চট্টগ্রামে গ্যাস লাইন বিস্ফোরণে ভবনের দেয়াল ধস, ৭ জনের মৃত্যু

আশুগঞ্জে নিরবিচ্ছিন্ন পানি প্রবাহ পেতে কৃষকদের মানব বন্ধন

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় বাংলাদেশ জাসদের শোকসভা

মওলানা ভাসানীর ৪৩তম মৃত্যুবার্ষিকী আজ

নকল সহায়তা প্রদানের অভিযোগে ৭ শিক্ষক ও ২ শিক্ষার্থী বহিষ্কার

রংপুর লাকী হসপিটালে চিকিৎসকের অবহেলায় প্রসূতির মৃত্যু

বিপিএলের লোগো উন্মোচিত

পার্থক্য গড়ে দিয়েছে কম টেস্ট খেলা : মুমিনুল

সবসময়ই আনন্দের ব্রাজিলকে হারানো : মেসি