মঙ্গলবার, ২৩শে জুলাই, ২০১৯ ইং ৮ই শ্রাবণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

চার দিনেও উদ্ধার হয়নি কেটে নেয়া পা, ধরাছোঁয়ার বাইরে আসামীরা

news-image

ফয়সল আহমেদ খান, বাঞ্ছারামপুর (ব্রাহ্মণবাড়িয়া) প্রতিনিধি : চারদিন পেরিয়ে গেলেও ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বাঞ্ছারামপুর উপজেলার রূপসদী গ্রামের বাসিন্দা কালা মিয়ার (৪৫) কেটে নেয়া পায়ের হদিস মিলেনি এখনো। পূর্ববিরোধের জের ধরে গত শুক্রবার (১৯ এপ্রিল) উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সহ-সভাপতি আবুল বাশার ও তার লোকজনেরা কালা মিয়ার ডান পা কেটে নেয় বলে অভিযোগ উঠেছে। ইতিমধ্যে আবুল বাশারকে দল থেকে সাময়িক বহিষ্কার করে তার প্রাথমিক সদস্য পদ বাতিলর্পূবক স্থায়ী বহিষ্কারের সুপারিশ করে জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের কাছে চিঠি দিয়েছে উপজেলা কমিটি।

চারদিন ধরে ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে যন্ত্রণায় কাতরাচ্ছেন কালা মিয়া ও তার ছেলে বিপ্লব মিয়া (১৯)। এ ঘটনায় আবুল বাশারকে প্রধান আসামি করে ১৪ জনের নামসহ অজ্ঞাত আরও ১৫/২০ জনের বিরুদ্ধে মামলা করেছেন কালা মিয়ার স্ত্রী সালমা আক্তার। তবে এখন পর্যন্ত মূল অভিযুক্ত আবুল বাশার পুলিশের হাতে ধরা না পড়ায় শঙ্কা প্রকাশ করেছেন কালা মিয়ার পরিবারের লোকজন।

আহত কালা মিয়ার পরিবারিক সূত্রে জানা গেছে, বাঞ্ছারমপুর উপজেলার রূপসদী গ্রামের কালা মিয়ার সঙ্গে একই গ্রামের বাসিন্দা ও স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা আবুল বাশারের বিরোধ চলে আসছিল। এ বিরোধের জের ধরে গত শুক্রবার (১৯ এপ্রিল) বিকেলে আবুল বাশার ও সহযোগীরা কালা মিয়া এবং তার ছেলে বিপ্লব মিয়াকে বাড়ি থেকে ডেকে নিয়ে প্রথমে টেঁটাবিদ্ধ করেন। এরপর কালা মিয়া মাটিতে লুটে পড়লে ধারালো দা দিয়ে তার ডান পায়ের হাঁটু থেকে নিচ পর্যন্ত কেটে নিয়ে যায় তারা। এ ঘটনায় কালা মিয়ার ছেলে বিপ্লবের দুই পায়ের রগও কেটে দেয়া হয় বলে অভিযোগ ওঠে। পরে তাদের মুমূর্ষু অবস্থায় উদ্ধার করে প্রথমে বাঞ্ছারামপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক ঢাকায় মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে রেফার্ড করেন। সেখানে গত চারদিন ধরে যন্ত্রণায় কাতরাচ্ছেন কালা মিয়া ও তার ছেলে বিপ্লব মিয়া।

তবে ঘটনার দিন অভিযোগ অস্বীকার করে বাঞ্ছারামপুর উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সহ-সভাপতি আবুল বাশার বলেছিলেন, যতটুকু শুনেছি কালা মিয়া আমাদের গ্রামের এক বাড়িতে চুরি করতে গিয়েছিল। সেই বাড়ির লোকজন ও এলাকাবাসী ধরে তাকে গণপিটুনি দিয়েছে। পরবর্তীতে কি হয়েছে আমি জানি না।

এদিকে ঘটনার সঙ্গে প্রাথমিকভাবে জড়িত থাকার অভিযোগে জেলা কমিটির নির্দেশে দল থেকে আবুল বাশারকে সাময়িক বহিষ্কার করেছে বাঞ্ছারামপুর উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগ। পাশাপাশি তার প্রাথমিক সদস্য পদ বাতিল করে তাকে দল থেকে স্থায়ী বহিষ্কারের জন্য জেলা কমিটির কাছে চিঠি দিয়েছে উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগ।

এ ব্যাপারে জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাধারণ সম্পাদক সাঈদুজ্জামান আরিফ বলেন, বিভিন্ন গণমাধ্যমের খবরে কালা মিয়ার পা কেটে নেয়ার ঘটনাটি জানতে পেরে আমরা তাৎক্ষণিকভাবে আবুল বাশারকে দল থেকে বহিষ্কার করার জন্য উপজেলা কমিটিকে নির্দেশনা দেই। কেউ আইনের ঊর্ধ্বে নয়, অপরাধী যে দলেরই হোক তার শাস্তি হবে। আবুল বাশারের প্রাথমিক সদস্য পদ বাতিল করে তাকে দল থেকে স্থায়ী বহিষ্কারের জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে।
বাঞ্ছারামপুর মডেল থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. সালাহ্ উদ্দিন চৌধুরী বলেন, এ মামলায় এখন পর্যন্ত কাউকে আটক করা যায়নি। আমরা আবুল বাশারকে গ্রেফতারের জন্য বিভিন্নভাবে চেষ্টা করছি। কালা মিয়ার কেটে নেয়া পা উদ্ধারে পুলিশের পাশাপাশি স্থানীয় জনপ্রনিধিরাও চেষ্টা করছে বলেও জানান। তিনি আরো বলেন, অপরাধী যে কেউ হোক তাকে আইনের আওয়াতায় আনা হবে।

এ জাতীয় আরও খবর

প্রেমিক পিয়াসের হাতেই ধ’র্ষণের শিকার হয় রিমা

ত্বকের উজ্জ্বলতা বাড়ায় গাজর

বিয়ের নেশা অতঃপর…

ঝিঙের মাঝে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট সমৃদ্ধ প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন ও খনিজ রয়েছে

জামিনে বের হলেন আ’সামি, ধ’র্ষণের শিকার নারীকে পু’ড়িয়ে মা’রার হু’মকি

দু’জনের পেট থেকে খুলনায় ৭ হাজার ই’য়াবা উদ্ধার

জাপার চেয়ারম্যান নন জিএম কাদের : রওশন

মা-হারা তুবাকে পুলিশ কর্মকর্তার আবেগঘন খোলা চিঠি

ঢাকার দিকে ধেয়ে আসছে বন্যা

গ্রেফতার হলেন দুদকের বরখাস্ত পরিচালক এনামুল বাছির

কাউন্সিলর তৈরিতে অনিয়মের অভিযোগে গঙ্গাচড়া আ.লীগের সম্মেলন স্থগিত

এরশাদের শূন্য আসন ধরে রাখা অস্তিত্বের লড়াই : যোগ্য প্রার্থীর সন্ধানে জাতীয় পার্টি