রবিবার, ২২শে সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ইং ৭ই আশ্বিন, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

এই কিশোরী মাত্র ১০ বছরেই জনপ্রিয় গেম বানিয়ে চমকে দিয়েছে সবাইকে

news-image

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : বয়স মাত্র ১০ বছর। এই বয়সেই তাক লাগিয়ে দিয়েছে মেয়েটি। এত অল্প বয়সেই একটি জনপ্রিয় গেম বানিয়ে চমকে দিয়েছে সবাইকে।

১০ বছর বয়সী একটি মেয়ে বা ছেলের খেলাধুলা করার বয়স। কিন্তু সেই বয়সেই সামায়রা মেহতা একটি জনপ্রিয় কোম্পানির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা। তাকে দেখে সেটা বোঝাই কঠিন হবে। কিন্তু বাস্তবে তাই হয়েছে।

মেহতা কোডারবানিজ নামে একটি প্রতিষ্ঠানের প্রতিষ্ঠাতা। তার উদ্ভাবিত বোর্ড খেলার মাধ্যমে চার বছরের শিশুও কম্পিউটার প্রোগ্রামিংয়ের মৌলিক বিষয়গুলো জানতে পারে। খুবই সহজ একটি খেলা।

এই খেলায় প্রত্যেক খেলোয়াড়ের একটি করে ছোট খরগোশ থাকে। বোর্ডের ওপর ছক্কার দানে সেটিকে এগিয়ে নিতে হয়। গন্তব্যে পৌঁছানো এবং পথে যত পারা যায় গাজর খেয়ে নেওয়াই ওই খরগোশের কাজ।

এভাবে খেলতে খেলতেই জানা হয়ে যায় প্রোগ্রামিংয়ের বিভিন্ন মৌলিক বিষয়। এই গেম বানিয়েই সে চমকে দিয়েছে পুরো বিশ্বকে। সিএনবিসিকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে মেহতা জানিয়েছে, এর মাধ্যমে প্রোগ্রামিংয়ের বেসিক সবই জানা সম্ভব।

প্রকৌশলী বাবার কাছে চার বছর বয়সেই প্রোগ্রামিং শিখতে শুরু করে মেহতা। এর প্রায় এক বছরের মধ্যেই এ ধরণের একটি গেম তৈরির কথা মাথায় আসে তার। বিশেষ করে নিজের জন্য কোডিংয়ের লার্নিং ম্যাটেরিয়াল খুঁজতে গিয়ে মেহতা টের পায়, বাজারে চিত্তাকর্ষক কিন্তু কাজের এমন কিছু নেই।

এরপরে সে নিজেই একটি গেম বানানো শুরু করে। ২০১৮ সালের এপ্রিল থেকে এখন প্রায় দুই লাখ ডলারের গেম বিক্রি করেছে মেহেতা ও তার কোম্পানি।

এ জাতীয় আরও খবর

১০০ বছর পরে যে ফুল ফোটে

বিয়েতে রানী ভবানীর ছিল তিন শর্ত

৫০ টাকার লোভ দেখিয়ে ভাতিজিকে ধ’র্ষণ

একাধিক প্রেমিক ছিলো রানুর জীবনে, ফাঁস করলেন পরিচালক

সাবেক মন্ত্রীকে নিয়ে হোটেলে ছিলেন, স্বীকার করলেন সানাই

প্রধানমন্ত্রীর হুঁশিয়ারির পরেও স্বাস্থ্য কেন্দ্রে যোগদান করেনি ৬ ডাক্তার!

‘ইরানের বিরুদ্ধে যুদ্ধে জড়ালে সৌদি আরব ও আমিরাত ধ্বংস হয়ে যাবে’

যুদ্ধের শঙ্কার মধ্যেই ইরান-রাশিয়া-চীনের যৌথ নৌমহড়া

যে কারণে ২০ গানম্যান নিয়ে রাজকীয় ভঙ্গিতে চলতেন জিকে শামীম

বিসিএস উত্তীর্ণের দিন এলো ক্যান্সারের খবর!

বাসা ছেড়ে দেয়ায় স্বামীকে পি’টিয়ে স্ত্রীকে ধ’র্ষণ

জব্দ করা কোটি কোটি টাকা বেকারদের কর্মসংস্থানে ব্যয় করার প্রস্তাব রাশেদা রওনকের