শুক্রবার, ১৯শে জুলাই, ২০১৯ ইং ৪ঠা শ্রাবণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

বিয়ের দাবিতে প্রেমিকের বাড়ির সামনে তরুণী, টেনেহিঁচড়ে নিয়ে গেল পুলিশ

news-image

বিয়ের দাবিতে প্রেমিকের বাড়ির সামনে অবস্থান নিয়ে পুলিশের হাতে আক্রান্ত এক কিশোরী। ঘটনাটি ঘটেছে ভারতের শিলিগুড়ির মাটিগাড়া থানা এলাকায়। কিশোরীকে বাড়ির সামনে থেকে সরাতে পুলিশের এ ধরনের আচরণ প্রকাশ্যে আসতেই দানা বাঁধছে বিতর্ক। ঘটনার পর থেকেই পলাতক অভিযুক্ত যুবক। জানা গেছে, শিলিগুড়ির মাটিগাড়ার বাসিন্দা সন্দীপ সরকারের সঙ্গে দীর্ঘদিন ধরেই প্রেমের সম্পর্ক ছিল এলাকারই ১৭ বছরের ওই কিশোরীর।

তার অভিযোগ, বিয়ের প্রতিশ্রুতি দিয়ে একাধিকবার সহবাস করেছে ওই যুবক। কিন্তু অবশেষে বিয়েতে বেঁকে বসে সন্দীপ। প্রেমিকের বিরুদ্ধে পুলিশ, প্রশাসনের দ্বারস্থ হয় ওই কিশোরী ও তার পরিবার। কিন্তু তাতে কোনো ফল মেলেনি। এরপরই প্রেমিকের বাড়ির সামনে অবস্থান নেয়ার সিদ্ধান্ত নেয় ওই কিশোরী।

বৃহস্পতিবার সকালে প্রেমিকের বাড়ির সামনে ধরনায় বসে সে। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে যায় মাটিগাড়া ও এনজেপি থানার পুলিশ। অভিযোগ উঠেছে, ঘটনাস্থলে গিয়ে ওই কিশোরীর ওপর চড়াও হন নারী ও পুরুষ পুলিশ কর্মীরা। মারধরের পর টেনেহিঁচড়ে ওই কিশোরীকে প্রেমিকের বাড়ির সামনে থেকে তুলে এনজেপি থানায় নিয়ে যায় তারা।

সেই ঘটনার ভিডিও প্রকাশ্যে আসতেই প্রশ্ন ওঠে পুলিশের ভূমিকা নিয়ে। ভিডিওতে দেখা গেছে, পুরুষ ও নারী পুলিশ কর্মীরা কিশোরীকে মারধর করছেন। কিন্তু কিশোরীকে মারধর আইন বিরুদ্ধ। কীভাবে আইনের বাইরে গিয়ে পুরুষ পুলিশ কর্মীরা আক্রমণ করলেন কিশোরীকে? যারা টেনে হিঁচড়ে নিয়ে গেলেন তাদের সবাই আদৌ পুলিশ কর্মী? এসব নিয়েই উঠছে প্রশ্ন।

জানা গেছে, আপাতত এনজেপি থানাতেই রাখা হয়েছে ওই কিশোরী ও তার অভিভাবককে। তবে ঘটনার পর থেকে পলাতক অভিযুক্ত সন্দীপ সরকার। তবে এ বিষয়ে কিশোরীর কোনো মন্তব্য এখনো পাওয়া যায়নি।