সোমবার, ১৯শে আগস্ট, ২০১৯ ইং ৪ঠা ভাদ্র, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

চলে গেলেন হোসাইন মুহাম্মদ এরশাদ

news-image

অবশেষে না ফেরার দেশে চলে গেলেন সাবেক প্রেসিডেন্ট ও জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহাম্মদ এরশাদ।এই সাবেক​ প্রেসিডেন্ট​ ও​ বিরোধীদলীয়​ নেতা​ এইচ​ এম এরশাদের​ জীবনাবসানের​ মধ্য​ দিয়ে​ তার​ বহুল​ রাজনৈতিকজীবনের​ সমাপ্তি​ ঘটলো।১৪,জুলাই ২০১৯ ইং​ রোববার সকাল​ ৭.৪৫ তিনি​ ইন্তেকাল​ করেন। ইন্না​ লিল্লাহি…..রাজিউন।

এক সময়ের​ দাপটে​ সেনা শাসক​ এরশাদ​ দীর্ঘদিন​ ধরে অসুস্হছিলেন।গত​ কয়েকদিন​ থেকে​ সিএমএইচে জীবনমৃত্যুর​ সন্ধিক্ষনে​ সময়​ যাচ্ছিলো।তার​ মৃত্যুতে গভীরভাবে​ শোকাহত।
১৯৩০​ সালের​ ১​ ফেব্রুয়ারি​ তারিখে​ তিনি​​ রংপুর​ জেলায়​দিনহাটায়​ জন্মগ্রহণ​ করেন। তার বাবার নাম এ্যাডভোকেট মকবুল হোসেন এবং মাতার নাম মাজেদা বেগম। তিনি​ রংপুর​ জেলায়​ শিক্ষা গ্রহণ করেন​ এবং​ ১৯৫০​ সালে​​ ঢাকা​ বিশ্ববিদ্যালয়​​ থেকে​ স্নাতক ডিগ্রি​ লাভ​ করেন্।

১৯৫১​ সালে​ তিনি​ পাকিস্তান​ সেনাবাহিনীর​ অফিসার্স​ ট্রেনিংস্কুলে​ (কোহাটে​ অবস্থিত)​ যোগ​ দেন​ এবং​ ১৯৫২​ সালেকমিশৎপ্রাপ্ত​ হন।​ ১৯৬০​ -​ ১৯৬২​ সালে​ তিনি​​ চট্টগ্রাম​​ ইষ্টবেঙ্গল​ রেজিমেন্টের কেন্দ্রে​ অ্যাডজুট্যান্ট​ হিসেবে​ কর্মরতছিলেন।১৯৬৭​ সালে​ তিনি​ কোয়েটার​ স্টাফ​ কলেজ​ থেকে স্টাফ​ কোর্স​ সম্পন্ন​ করেন। ১৯৬৮​ সালে​ তিনি​ শিয়ালকোটে​ ৫৪​ ব্রিগেডের​ মেজর​ ছিলেন।১৯৬৯​ সালে​ লেফটেন্যান্ট​ কর্নেল​ হিসেবে​ পদোন্নতি​ লাভের পর​ ১৯৬৯​ -​ ১৯৭০​ সালে​​ ৩য়​ ইস্ট​ বেঙ্গল​ রেজিমেন্ট​​ এর অধিনায়ক​ ও​ ১৯৭১​ -​ ১৯৭২​ সালে​​ ৭ম​ ইস্ট​ বেঙ্গল​ রেজিমেন্ট​এর​ অধিনায়ক​ হিসেবে​ কর্মরত​ ছিলেন।

৩০​ মে​ ১৯৮১​ সালে​ রাষ্ট্রপতি​​ জিয়াউর​ রহমান নিহত​ হবার পর,​ এরশাদের​ রাজনৈতিক​ অভিলাষ​ প্রকাশ​ হয়ে​ পড়ে।২৪,মার্চ​ ১৯৮২​ সালে​ এরশাদ​ রাষ্ট্রপতি​​ আব্দুস​ সাত্তারের​নির্বাচিত সরকারকে​ হটিয়ে​ রাষ্ট্র ক্ষমতা​ দখল​ করেন।১১​ ডিসেম্বর ১৯৮৩​ সাল​ নাগাদ​ তিনি​ প্রধান​ সামরিক​ প্রশাসক​ হিসেবে​ দেশশাসন​ করেন​ ঐ​ দিন​ তিনি​ দেশের​ রাষ্ট্র​ ক্ষমতা​ রাষ্ট্রপতি বিচারপতি​ এ.এফ.এম​ আহসানুদ্দিন​ চৌধুরীর​কাছ​ থেকে নিজের​ অধিকারে​ নেন এরশাদ​ দেশে​ উপজেলা​ পদ্ধতি​ চালুকরেন​ এবং​ ১৯৮৫​ সালে​ প্রথম​ উপজেলা​ পরিষদের​ নির্বাচনঅনুষ্ঠিত​ হয়।
১৯৮৬​ সালে​ তিনি​​ জাতীয়​ পার্টি প্রতিষ্ঠা​ করেন​ এবং​ এই দলের​ মনোনয়ন​ নিয়ে​ ১৯৮৬​ সালেপাঁচ​ বছরের​ জন্য​ দেশেররাষ্ট্রপতি​ নির্বাচিত​ হন।​​

বাংলাদেশ​ আওয়ামী​ লীগ​​ ও​​ জামায়াত এই​ নির্বাচনে​ অংশগ্রহণ​ করে​ যদিও বাংলাদেশ​ জাতীয়তাবাদী দল​ এই​ নির্বাচন​ বয়কট​ করেসাধারণ​ নির্বাচনে​ তার​ দলসংখ্যাগরিষ্ঠ​ আসন​ লাভ​ করে।বিরোধী​ দলের​ আন্দোলনেরমুখে​ রাষ্ট্রপতি​ ৭​ ডিসেম্বর​ ১৯৮৭​ সালে​ এই​ সংসদ​ তিলকরেন।১৯৮৮​ সালের​ সাধারণ​ নির্বাচন​ সকল​ দল​ বয়কট করে।এরশাদের​ স্বৈরাচারের​ বিরূদ্ধে​ দেশের​ জনগণকে​ সাথে নিয়ে​ সকল​ বিরোধী​ দল​ সম্মিলিতভাবে​ আন্দোলনের​ মাধ্যমে তাকে​ ৬​ ডিসেম্বর​ ১৯৯০​ সালে​ ক্ষমতা​ থেকে​ অপসারণ​ করে।

ক্ষমতা​ হারানোর​ পর​ এরশাদ​ গ্রেফতার​ হন​ এবং​ ১৯৯৬ খ্রিস্টাব্দে​ আওয়ামী​ লীগ​​ ক্ষমতায়​ না-আসা​ পর্যন্ত​ কারারূদ্ধ থাকেন।১৯৯১​ সালের​ জাতীয়​ নির্বাচনে​ তিনি​ কারাগার​ থেকে নির্বাচনে অংশগ্রহণ​ করেন​ এবং​ রংপুরের​ পাঁচটি​ আসন​ থেকে নির্বাচিত​ হনবি.এন.পি​ সরকার​ তার​ বিরুদ্ধে​ কয়েকটি​ দুর্নীতিমামলা​ দায়ের​ করেতার​ মধ্যে​ কয়েকটিতে​ তিনি​ দোষী​ সাব্যস্তহন​ এবং​ সাজাপ্রাপ্ত​ হন।১৯৯৬​ সালের​ সাধারণ​ নির্বাচনেওতিনি​ পাঁচটি​ আসন​ থেকে​ নির্বাচিত​ হন।ছয়​ বছর​ আবরুদ্ধথাকার​ পর​ ৯​ জানুয়ারি​ ১৯৯৭​ সালে​ তিনি​ জামিনে​ মুক্তি​ পান।তার​ প্রতিষ্ঠিত​​ জাতীয়​ পার্টি ২০০০​ সালে​ তিনভাগে​ বিভক্তহয়ে​ পড়ে,​ যার​ মধ্যে​ মূল​ ধারার​ তিনি​ চেয়ারম্যান।​ ২০১৪সালের​ ৫​ জানুয়ারীর​ জাতীয়​ নির্বাচনে​ তার​ সংসদে​ প্রধানবিরোধী​ দল​ হিসেবে​ আত্মপ্রকাশ​ করে​ এবং​ তার​ স্ত্রী​​ রওশন এরশাদ​ প্রধান​ বিরোধী​ দলীয়​ নেতা​ হন।

শারীরিক​ অসুস্থতার​ দরুন​ ২০১৯​ সালের​ ২৬​ জুন​ তাকে ঢাকার​ সম্মিলিত​ সামরিক​ হাসপাতালে​ ভর্তি​ করা​ হয়।শারীরিক​ অবস্থার​ অবনতি​ ঘটলে​ ৪​ জুলাই​ তাকে​ নেওয়া​ হয়লাইফ​ সাপোর্টে।​ তিনি​ ২০১৯​ সালের​ ১৪​ জুলাই​ সকাল​ ৭টা৪৫​ মিনিটে​ ঢাকার​ সম্মিলিত​ সামরিক​ হাসপাতালে​ মৃত্যুবরণ করেন​ তিনি​ রক্তে​ হিমোগ্লোবিনের​ স্বল্পতা,​ ফুসফুসে​ সংক্রমণও​ কিডনি​ জটিলতায়​ ভুগছিলেন।

তার শাসন আমলে দেশে ব্যাপক উন্নয়ন সাধিত হয়। শুধু​ এটুকুই​ বলবো,তিনি​ আপাদমস্তক​ একজন​ অসম্ভবভদ্রলোক​ ছিলেন।দেশ​ সমাজ​ ও​ রাজনীতি​ নিয়ে​ গভীর ভাবে ভাবতেন।
দেশ​ নিয়ে​ তার​ পরিকল্পনাও​ ছিলো অঢেল।​আমরা তার বিদায়ী আত্মার মাগফেরাত কামনা করছি।

লেখক- খোরশেদ আলম বিপ্লব।
খিলগাঁও,ঢাকা বাংলাদেশ।

এ জাতীয় আরও খবর

বাংলাদেশি মাছ নিষিদ্ধ!

কমলাপুরে ট্রেনের বগি থেকে মাদ্রাসাছাত্রীর লা’শ উদ্ধার

নিউটনের তৃতীয় সূত্র ভুল দাবি করলেন ভারতীয় এই বিজ্ঞানী

জম্মু-কাশ্মীরে পুরোপুরিভাবে মানবাধিকার লঙ্ঘিত হয়েছে: মমতা

ডেঙ্গুজ্বর: যে ৪ লক্ষণে হাসপাতালে ভর্তি হওয়া জরুরি

পাক-ভারত সীমান্তে ফের গো’লাগু’লি, দুই ভারতীয় সেনাসহ নি’হত ৪

জনপ্রিয় নাট্যকার এম এ মজিদ হাসপাতালে ভর্তি

আখাউড়ায় বসতঘরে আগুন, প্রায় ৯ লক্ষ টাকার ক্ষয়ক্ষতি

আখাউড়া স্থলবন্দরে বেড়েছে ভ্রমনকারীর সংখ্যা,বাড়েনি সেবার মান

বাঞ্চারামপুরে বিয়ারসহ ৫ জনকে আটক করেছে র‌্যাব

বাংলাদেশ থেকে অনুপ্রেরণায় মুসলমান হলেন জাপানি তরুণ, এখন ইসলাম প্রচারে ব্যস্ত

পাকিস্তানে কাশ্মীর নিয়ে পোস্ট করলেই ফেইসবুক, টুইটার বাতিল