শুক্রবার, ২০শে সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ইং ৫ই আশ্বিন, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

অ্যাশেজ সিরিজ হারের পথে ইংল্যান্ড!

news-image

স্পোর্টস ডেস্ক : হেডিংলিতে অ্যাশেজ সিরিজের তৃতীয় টেস্টের বৃষ্টিবিঘ্নিত প্রথম দিনে জোফরা আর্চারের ৬ উইকেট দখলের দিনে অস্ট্রেলিয়া যখন মাত্র ১৭৯ রানে অলআউট হয়ে গিয়েছিল, তখন কারোর সুদূর কল্পনাতেও ছিল না যে ইংল্যান্ডের জন্য লজ্জায় মোড়ানো এক বিশ্বরেকর্ড অপেক্ষা করছে।

ইংল্যান্ডকে অল্প রানে গুঁটিয়ে দিয়ে প্রথম ইনিংসে সবচেয়ে কম রানে অলআউট হয়ে শতাধিক রানের লিড পেয়ে টেস্ট ইতিহাসে নতুন এক রেকর্ড গড়ে ফেলেছে অস্ট্রেলিয়া। ১১২ রানের লিড পেয়ে দ্বিতীয় দিন শেষে অজিদের দ্বিতীয় ইনিংসে সংগ্রহ ৬ উইকেটে ১৭১ রান। সবমিলিয়ে তাদের লিড এখন ২৮৩ রান।

বৃষ্টিবিঘ্নিত হেডিংলি টেস্টে এখন পর্যন্ত মোট ১৩৭ ওভার খেলা হয়েছে এবং ২৬ উইকেটের পতন ঘটেছে। গড় প্রতি ৫.২৭ ওভারে (৩১.৬২ বল) একটি করে উইকেটের দেখা যাচ্ছে হেডিংলিতে।

এজবাস্টন টেস্ট হারের পর লর্ডস টেস্ট ড্র করলেও হেডিংলিতে পরাজয় চোখ রাঙাচ্ছে ইংলিশ শিবিরে। পরের দুই টেস্ট জিতে সিরিজ সমতায় রেখে সিরিজ শেষ তারা করবে এমন সম্ভাবনা অস্ট্রেলিয়ার দাপুটে পারফরম্যান্সের কারণে অনেকটাই ক্ষীণ বলেই মনে হচ্ছে। ইতোমধ্যে তাই আলোচনা শুরু হয়ে গেছে, ঘরের মাঠে বিশ্বকাপ জিতলেও অ্যাশেজ হারের পথে রয়েছে ইংল্যান্ড।

স্টিভেন স্মিথের অনুপস্থিতি অস্ট্রেলিয়ার প্রথম ইনিংসের ব্যাটিং ধসের কারণ হিসেবে যারা ধরে নিয়েছিলেন, তারা ইংল্যান্ডের ব্যাটিং বিপর্যয় দেখার পর এখন হাড়ে হাড়ে টের পাচ্ছেন হেডিংলির উইকেট ব্যাটসম্যানদের জন্য কতটা মাইনফিল্ড হয়ে উঠেছে।

শুক্রবার (২৩ আগস্ট) টেস্টের দ্বিতীয় দিন ক্যাঙ্গারুদের অল্প রানে বেঁধে রাখার আনন্দ নিয়ে ব্যাট করতে নেমেছিল ইংল্যান্ড। কিন্তু জস হ্যাজেলউডের বোলিং তোপে জো ডেনলি (১২) ছাড়া আর কেউ নিজেদের ব্যক্তিগত রানকে দুই অংকের কোটায় নিতেই পারেননি। বলা ভালো, ইংল্যান্ডের স্কোরকার্ড দেখতে পুরো টেলিফোন নম্বরের মতোই লাগছে! ফলাফল, ইংল্যান্ড ৬৭ রানে অলআউট হয়ে গত ৭১ বছরে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে তাদের সর্বনিম্ন দলীয় ইনিংস খেলার নজির গড়লো।

হ্যাজেলউডের ৫ উইকেট নেয়ার পাশাপাশি প্যাট কামিন্স ৩টি এবং জেমস প্যাটিনসন নেন ২টি উইকেট।

প্রথম ইনিংসের মতো দ্বিতীয় ইনিংসেও ভালো শুরু পায়নি অস্ট্রেলিয়া। ডেভিড ওয়ার্নারকে শূন্য রানেই প্যাভিলিয়নে ফিরিয়েছেন স্টুয়ার্ট ব্রড। মার্কাস হ্যারিস (১৯) ও উসমান খাজা (২৩) লম্বা ইনিংস খেলতে না পারায় ৫২ রানে ৩ উইকেট হারিয়ে চাপে পড়ে সফরকারীরা।

ট্রাভিস হেডকে নিয়ে চতুর্থ উইকেট জুটিতে মার্নাস লাবুচাগনে ৪৫ রান যোগ করেন। ২৫ রান করে হেড আউট হওয়ার পর পঞ্চম উইকেটে ম্যাথু ওয়েডের সঙ্গে পঞ্চম উইকেট জুটিতে এসেছে ৬৬। দিনের শেষভাগে ৩৩ রান করা ওয়েড সাজঘরে ফেরার পর রানের খাতা না খুলেই তাকে অনুসরণ করেন টিম পেইন। ফলে জেমস প্যাটিনসনকে নিয়ে ৫৩ রানে অপরাজিত থেকে অস্ট্রেলিয়াকে সুবিধাজনক অবস্থানে রেখে দিন পার করেছেন স্টিভেন স্মিথের সুযোগ্য রিপ্লেসমেন্ট হিসেবে নিজেকে প্রমাণ করা লাবুচাগনে।

ইংলিশ বোলারদের মধ্যে বেন স্টোকস এবং স্টুয়ার্ড ব্রড ২টি উইকেট পান। একটি করে উইকেট নেন ক্রিস ওকস এবং জ্যাক লিচ। ৮.৪ ওভার বোলিং করার পর জোফরা আর্চার পায়ে ক্র্যাম্প নিয়ে মাঠ ছাড়ায় ইংল্যান্ডের বোলিং ধার কমে যাওয়ার সুযোগ অস্ট্রেলিয়া কাজে লাগিয়েছে।