বুধবার, ২০শে নভেম্বর, ২০১৯ ইং ৬ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

ডিএনএ পরীক্ষা চান তসলিমার মেয়ে দাবি করা সেই অঙ্কিতা ভট্টাচার্য

news-image

আন্তর্জাতিক ডেস্কঃ বাংলাদেশের লেখিকা তসলিমা নাসরিন এবং ভারতের অভিনেতা ও বিজেপি নেতা জর্জ বেকারের মেয়ে দাবি করা অঙ্কিতা ভট্টাচার্য ডিএনএ পরীক্ষা করাতে চান। পশ্চিমবঙ্গের রাস্তায় ব্যানার হাতে ডিএনএ পরীক্ষার দাবি জানাতে দেখা গেছে তাকে। ফেসবুকেও তিনি এ বিষয়ে দাবি জানিয়েছেন। মামলা করেছেন আদালতেও। ভারতের কয়েকটি গণমাধ্যমে প্রকাশিত হয়ছে এ-সংক্রান্ত সংবাদ।

পশ্চিমবঙ্গের ভাতারের নারায়ণপুরের তরুণী অঙ্কিতা ভট্টাচার্য ২০১৮ সাল থেকে দাবি করে আসছেন, তার বাবা বিশিষ্ট অভিনেতা ও বিজেপি নেতা জর্জ বেকার এবং মা তসলিমা নাসরিন।

অঙ্কিতার বক্তব্য অনুযায়ী জানা যায়, জন্মের পর থেকেই তার বাবা এবং মা কলকাতার বেহালার সরশুনার বাসিন্দা গৌরী ভট্টাচার্যের কাছে তাকে রেখে আসেন। তারপর মাঝে মাঝে তারা তাকে দেখে আসলেও বড় হওয়ার পর আর তার সঙ্গে যোগাযোগ রাখেননি। ২০১৭ সালে অঙ্কিতা ইন্দ্রনাথ ভট্টাচার্যকে বিয়ে করেন। অঙ্কিতা এবং তার স্বামীর দাবি, গৌরী ভট্টাচার্য নামে এক নারীকে অঙ্কিতার মা সাজানো হয়েছিল। অঙ্কিতা ও তার স্বামীর আরো দাবি, গৌরী ভট্টাচার্য র্জজ বেকারের শ্যালিকা। তিনি মারা যাওয়ার সময় সব তথ্য-প্রমাণ দিয়ে গেছেন।

ডিএনএ পরীক্ষার দাবি জানিয়ে অঙ্কিতা ফেসবুকে লেখেন, ‘আমি অঙ্কিতা ভট্টাচার্য। আমার বাবা জর্জ বেকার, একজন বিজেপি সাংসদ। আমার মা তসলিমা নাসরিন। আমি আমার পিতৃ ও মাতৃ পরিচয় চাই। তাই আমি ডি-এন-এ টেস্টের চ্যালেঞ্জ করছি আমার বাবা ও মায়ের বিরুদ্ধে। যদি আমার ডি-এন-এ আমার বাবা ও মায়ের সাথে না মেলে তাহলে আমি যথাযথ শাস্তি মাথা পেতে নেব। আর যদি ডি-এন-এ মিলে যায় তাহলে আমার বাবা ও মা এবং এই ঘটনায় জড়িত প্রত্যেককে যথাযথ শাস্তি গ্রহণ করতে হবে।

আশাকরি আমার বাবার ও আমার মায়ের এই চ্যালেঞ্জ গ্রহণ করতে অসুবিধা হবে না, যদি উনারা সঠিক থাকেন। আমি অনুরোধ করছি আমার দেশবাসীর কাছে আপনারা আমাকে আশীর্বাদ করুন এবং আমার পাশে থাকুন, যাহাতে আমি এই কঠিন লড়াইয়ে বিজয়ী হতে পারি।’ তবে এ বিষয়ে জর্জ বেকার বলেন, তার কোনো মেয়ে নেই।

অঙ্কিতার করা মামলায় আদালতে তাকে সোমবার হাজির থাকতে বলা হয়। জর্জ জানান, তার আইনজীবী বিষয়টি আদালতে মোকাবিলা করবেন। এর আগে ২০১৮ সালের ২৬ অক্টোবর তোলপাড় হয় দুই বাংলা, সেই অঙ্কিতা ভট্টাচার্যকে নিয়ে শেষ পর্যন্ত প্রতিক্রিয়া দিলেন লেখিকা তসলিমা নাসরিন। বাংলাদেশের এই বিতর্কিত লেখিকা জানিয়েও দিলেন মেয়ে কার?

তখন পূর্ব বর্ধমানের বাসিন্দা অঙ্কিতা ভট্টাচার্য নামের এক মহিলা কলকাতা প্রেসক্লাবে একটি সাংবাদিক বৈঠক করেন। ওই বৈঠকে তিনি দাবি করেন, তার মায়ের নাম তসলিমা নাসরিন। আর তার বাবা বিজেপি সাংসদ জর্জ বেকার। সাংবাদিক বৈঠক শুরু হওয়ার ঘণ্টাখানেক আগেই ভারতীয় গণমাধ্যম কলকাতা টুয়েন্টিফোরে তা প্রকাশিত হয়। তারপর থেকেই হইচই শুরু হয় সর্বত্র। দুই বাংলায় তো আলোচনা শুরু হয়। একই সঙ্গে নড়চড়ে বসে নয়াদিল্লি।

জর্জ বেকারের কাছ থেকে প্রতিক্রিয়া পাওয়া না গেলেও প্রতিক্রিয়া দেন তসলিমা নাসরিন। তিনি একাধিক ফেসবুক পোস্টে নিজের প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেন। এ নিয়ে শেষ যে ফেসবুক পোস্টটি তিনি করেছেন, তাতে তিনি অঙ্কিতা ভট্টাচার্যের দাবিকে আজগুবি বলে আখ্যা দিয়েছেন। অঙ্কিতা একটি ছবি সংবাদমাধ্যমের হাতে দেন। যে ছবি তার কৈশোরের। সেই ছবিতে তসলিমা নাসরিনও রয়েছেন।

তসলিমা তার ফেসবুক পোস্টে দাবি করেছেন, ওই ছবিতে যে মেয়েটিকে দেখা গিয়েছে, তা আদৌ অঙ্কিতার নয় বরং ওই ছবি সল্টলেকের অরুণ চক্রবর্তীর মেয়ের। আর ছবিতে যে বয়স্ক ভদ্রমহিলাকে দেখা যাচ্ছে, তসলিমার বক্তব্য, ওই মহিলা রেখাচিত্রমের শিল্পী রেখা চক্রবর্তী। তবে লেখিকা তসলিমা নাসরিনের বক্তব্য কতটা সঠিক, তা যাচাই করে দেখেনি বলে জানায় কলকাতা টুয়েন্টিফোর।