সোমবার, ১৬ই সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ইং ১লা আশ্বিন, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

আশুগঞ্জ লালপুর বাজারে ডাকাতি, স্বর্ণালংকার লুট

আশুগঞ্জ (ব্রাহ্মণবাড়িয়া) প্রতিনিধি : ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আশুগঞ্জের লালপুর বাজারে নৌ-পথ ব্যবহার করে একটি সংঘবদ্ধ ডাকাতদল হামলা চালায়। এসময় দুটি স্বর্ণের দোকান থেকে অন্তত ৫ লাখ টাকার স্বর্ণালংকার লুট করেছে বলে দাবি করেছেন ব্যবসায়ীরা।মঙ্গলবার (৩ সেপ্টেম্বর) রাত ১ টায় উপজেলার লালপুর ইউনিয়নের লালপুর বাজারে এই ঘটনাটি ঘটে। পরে এলাকাবাসী ধাওয়া করলে ডাকাতরা নৌপথে পালিয়ে যায়। লালপুর বাজারের স্বর্ণ ব্যবসায়ীরা দাবি করেন তাদের দুটি স্বর্ণের দোকান থেকে এই মালামাল লুটে নেয় ডাকাতরা।

লালপুর বাজারের ব্যবসায়ীরা জানান, রাত ১ টার সময় মেঘনা নদীপথ ব্যবহার করে তিনটি স্পীডবোট দিয়ে ২০/২৫ জনের একটি সংঘবদ্ধ ডাকাতদল উপজেলার লালপুর বাজারে হামলা চালায়। এসময় তারা বাজারের দায়িত্বে থাকা তিনজন দারোয়ান ও একজন ব্যবসায়িকে হাত-পা বেধেঁ ফেলে। ডাকাতদল বাজারের স্বর্ণ পট্টিতে গিয়ে রূমা শিল্পাালয় ও প্রিয়া শিল্পালয়ে ঢুকে ভিতরে থাকা দুটি সিন্ধুকের তালা ভাংগার চেষ্টা করে। এলাকাবাসী ডাকাতদের উপস্থিতি টের পেয়ে মসজিদের মাইকে ডাকাতদের ব্যাপারে ঘোষণা দেন। খবর পেয়ে এলাকাবাসী ডাকাতদের ধাওয়া করলে তারা তিনটি স্পীডবোট দিয়ে নদীপথে পালিয়ে যায়। এই ঘটনার পর মঙ্গলবার সকালে আশুগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মুহাম্মদ মাসুদ আলম ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।

লালপুর বাজারের স্বর্ণ ব্যবসায়ী রূমা শিল্পাালয়ের মালিক সুধির দেবনাথ জানান, তাদের দুটি স্বর্ণের দোকান থেকে অন্ততঃ ৫ লাখ টাকার মূল্যের সাড়ে ১০ ভরি স্বর্ণালংকার ও নগদ ২৭ হাজার টাকা খোয়া গেছে। এলাকাবাসী এগিয়ে আসলে ডাকাতদল পালিয়ে যায়। আমাদের ব্যবসা প্রতিষ্ঠানটি নদী তীরবর্তি হওয়ায় এখানে প্রতিনিয়ত নৌ-ডাকাতদের আক্রমনের আংশকা থাকে। এখানে নৌ পুলিশের কোন উপস্থিতি না থাকায় আমরা ডাকাত আতংকে থাকি।
আশুগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মুহাম্মদ মাসুদ আলম জানান, এই ঘটনার সাথে জড়িতদের দ্রুত গ্রেফতারের জন্য অভিযান চালানো হচ্ছে।

এদিকে গত বৃহস্পতিবার (২৯ আগষ্ট) রাতে নরসিংদীর রায়পুরা উপজেলার বাঁশগাড়ি বাজার থেকে ফেরার পথে ব্যবসায়ীদের একটি নৌকায় হামলা চালায় নৌ-ডাকাতরা। এসময় ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে অন্ততঃ ৪ লাখ টাকার নগদ টাকা ও বিভিন্ন মালামাল লুটে নেয় ডাকাতরা। এর আগে ঈদুল আযহার আগের দিন সন্ধ্যায় একই এলাকায় দুটি নৌকা নৌ-ডাকাতদের হামলার শিকার হয়। নৌপথ ব্যবহার করে প্রতিনিয়ত এমন ডাকাতির ঘটনায় এলাকায় ব্যবসায়ী ও সাধারণ মানুষের মনে ডাকাত আতংক বিরাজ করছে।

নৌ-পুলিশের কিশোরগঞ্জ জোনের পুলিশ সুপার মো. মোফাজ্জল হোসাইন জানান, ডাকাতির বিষয়গুলো আমাদের জানা নেই। তবে নির্বিঘ্নে ডাকাতি বিষয়টি ঠিক নয়। আমাদের বোটের সংকটের কারণে আমরা সবদিকে যেতে পারি না। তবে এখন থেকে এই রুটে বিশেষ নজরদারী করা হবে।