বুধবার, ১৩ই নভেম্বর, ২০১৯ ইং ২৯শে কার্তিক, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

সুর সম্রাট ওস্তাদ আলাউদ্দিন খাঁ’র মৃত্যু বার্ষিকী, অযত্নে অবহেলায় তার বসতভিটা

news-image

তৌহিদুর রহমান নিটল, ব্রাহ্মণবাড়িয়া : বিশ্ব বরেণ্য সংঙ্গীত সাধক ওস্তাদ আলাউদ্দিন খাঁ জন্ম ও মৃত্যু বার্ষিকী ছাড়া এই সংঙ্গীত সাধকের খোঁজ কেউ রাখে না । অযত্নে অবহেলায় পড়ে আছে তার বসতবাড়ি। তার মৃত্যু বার্ষিকী উপলক্ষে নানা সংগঠন বিভিন্ন কর্মসূচী গ্রহন করেছে। ৬ সেপ্টেম্বর বরেণ্য সংঙ্গীত সাধক ওস্তাদ আলাউদ্দিন খাঁর ৪৭তম মৃত্যু বার্ষিকী। ১৮৬২ সালে তিনি ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নবীনগরের শিবপুর গ্রামে জন্ম গ্রহন করে। ১৯৯৭২ সালে ৬ই সেপ্টেম্বর ভারতের মাইহারে মৃত্যু হয়। তিনি ছিলেন উপমহাদেশের রাগ সংঙ্গীতের নতুন নতুন রাগের শ্রষ্ঠা। এছাড়াও নামকরা অনেক উচ্চাঙ্গ সংঙ্গীত বাদকের গুরু ছিলেন তিনি। উপমহাদেশের অন্যতম এই সুর সাধককে ব্রিটিশ সরকার খাঁ সাহেব উপাধিতে ভূষিত করেন। ভারত সরকারের কাছ থেকেও তিনি বিভিন্ন সম্মাননা ও পদক লাভ করেন।

এর মধ্যে সংঙ্গীত-নাটক একাডেমী সম্মান (১৯৫২), পদ্মভূষণ (১৯৫৮), পদ্মবিভূষণ (১৯৭১), বিশ্বভারতী বিশ্ববিদ্যালয় (১৯৬১), দেশিকোত্তম এবং দিল্লি বিশ্ববিদ্যালয় ডক্টর অব ল উপাধিতে ভূষিত করেন। ১৯৫৪ সালে তিনি ভারত সরকার কর্তৃক প্রথম সংঙ্গীত নাটক একাডেমী ফেলো নির্বাচিত হন। নবীনগরের শিবপুরে এ সংঙ্গীত সাধকের জন্ম ভূমি দেখার জন্য এখনো দূর-দুরান্ত থেকে লোকজন আসে। এখানে রয়েছে তার নিজ হাতে গড়া একটি মসজিদ, এলাকাবাসীর উদ্যোগে গড়ে উঠেছে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। বসত ভিটা অযত্নে ও অবহেলায় পড়ে আছে। পুকুরে বিলিন হয়ে যাচ্ছে তার বসত বাড়ী। এখানেই রয়েছে তার মা-বাবর কবর। তার স্মৃতি ধরে রাখার জন্য পরিবারের পক্ষ থেকে ২২ শতক জায়গা জেলা প্রশাসনকে দান করা হয়েছিল। এখানে একটি কমপ্লেক্স নির্মাণের পরিকল্পনা ছিল তা দীর্ঘ দিনেও বাস্তবায়ন হয়নি। জেলা শহরে তার নিজ বাড়ীতে রয়েছে আলাউদ্দিন সংঙ্গীতাঙ্গন। এখানে তালিম নেয় এ প্রজন্মের সঙ্গীত শিক্ষার্থীরা। তার স্মৃতি ধরে রাখার জন্য দ্রুত এখানে একটি কমপ্লেক্স নির্মাণের এবং সরকারী ভাবে তার জন্ম ও মৃত্যু দিবস পালন করার দাবী স্থানীয়দের।

আলাউদ্দিন খাঁ স্মৃতি সংসদের সভাপতি শামীম রতন বলেন, ১৯৯১ সালে আলাউদ্দিন খাঁ পরিবারের পক্ষ থেকে লাখোখা ২২ শতাংশ জায়গা জেলা প্রশাসনকে দান করা হয়েছিল।এখানে একটি রেস্ট হাউজ হওয়ার কথা ছিল দীর্ঘ সময়েও তা বাস্তবায়ন হয়নি। আলাউদ্দিন সংঙ্গীতাঙ্গনের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল মান্নান বলেন, বিদেশে তাকে সম্মান দিলেও আমরা তাকে যথাযত সম্মান দিতে পারি নাই। আমাদের আগামী প্রজন্ম যেন তাহাকে স্মরণ করে একটি সুন্দর সূরের জগত তৈরি করতে পারে।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা প্রশাসক হায়াত-উদ-দোলা খাঁন বলেন , উস্তাদ আলাউদ্দিন খাঁর গ্রামের বাড়িতে কমপ্লেক্স নির্মাণের বিষয়টি প্রক্রিয়াধীন আছে। এছাড়া জেলা শহরে আলাউদ্দিন খাঁ সংগীতাঙ্গনের তার নিজ বাড়িটিতে সাংস্কৃতিক বিষয়ক মন্ত্রনালয়ের পক্ষ থেকে একটি অডিটরিমসহ কমপ্লেক্্র নির্মানের উদ্যোগ নেয়া হয়েছে ।