সোমবার, ২৩শে সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ইং ৮ই আশ্বিন, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

জাপার দুর্গখ্যাত রংপুর কার: তিন ধারায় বিভক্ত নেতাকর্মীরা

news-image

সোহেল রশীদ, রংপুর : প্রয়াত সাবেক রাষ্ট্রপতি ও সেনাপ্রধান এইচএম এরশাদের প্রতিষ্ঠিত জাতীয় পার্টি(জাপা)’র রাজনীতিতে বিরোধীদলীয় নেতা ও চেয়ারম্যান পদ নিয়ে দেবর-ভাবীর মধ্যে রিরোধ দেখা দিয়েছে। এরই মধ্যে গত বৃহস্পতিবার পার্টির একাংশের নেতারা রওশন এরশাদকে দলের চেয়ারম্যান ঘোষণা করেছেন। এ নিয়ে দলটির ভেতরে শুরু হয়েছে টানাপড়েন। এ ঘটনায় জাপার চেয়ারম্যান জিএম কাদেরের পক্ষে অবস্থান নিয়ে রওশনপন্থীদের প্রতিরোধের ঘোষণা দিয়েছে জাপার দুর্গখ্যাত রংপুর জাপার শীর্ষ নেতাদের একাংশ। আর অন্য একটি অংশ এইচএম এরশাদের মৃত্যু শূন্য হওয়া রংপুর-৩ (সদর) আসনের উপ-নির্বাচনকে মাথায় রেখে ‘কিছু সময়ের জন্য’ রওশনকে দলের চেয়ারম্যান মানতে আপত্তি নেই বলে জানিয়েছে। এ ছাড়া, অপর একটি অংশ পক্ষ-বিপক্ষে নেই জানিয়ে দলের মধ্যে বিশৃঙ্খলা চায় না বলে মত দিয়েছে। এ অবস্থায় প্রশ্ন উঠেছে, জাপার দুর্গ বলে পরিচিত রংপুর কার জিএম কাদের না রওশনের?

রংপুর জাপায় জিএম কাদেরের পক্ষের নেতাদের সাথে কথা বলে জানা গেছে, তারা রওশন এরশাদকে দলের চেয়ারম্যান মানেন না। যারা রওশনকে দলের চেয়ারম্যান ঘোষণা দিয়েছেন, তারা দলের ‘ভুঁইফোড় নেতা। জিএম কাদের ছাড়া কাউকে দলের চেয়ারম্যান মানেন না জানিয়ে রংপুর জাপার নেতারা রওশনপন্থীদের প্রতিহতেরও ঘোষণা দিয়েছেন।

তারা আরোও জানান, গত এপ্রিলে অসুস্থ থাকা অবস্থায় এরশাদ তার ছোট ভাই জিএম কাদেরকে দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান করেন। গত ১৪ জুলাই হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান সংসদের বিরোধী দলীয় নেতা জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান এরশাদ। তার মৃত্যুর চারদিন পর ১৮ জুলাই এক সংবাদ সম্মেলনে জিএম কাদেরকে জাপার চেয়ারম্যান হিসেবে ঘোষণা দেন দলের মহাসচিব মসিউর রহমান রাঙ্গা। এরপর ২৩ জুলাই জিএম কাদেরকে চেয়ারম্যান হিসেবে অস্বীকার করে বিবৃতি দেন রওশন এরশাদসহ দলের সাতজন সংসদ সদস্য ও দুইজন প্রেসিডিয়াম সদস্য।এ নিয়ে রংপুর জাপার নেতারা বলেন, জীবিত অবস্থায় এরশাদই তার ভাই জিএম কাদেরকে দলের চেয়ারম্যান বলে ঘোষণা দিয়ে গেছেন। এ অবস্থায় রওশনকে দলের চেয়ারম্যান ঘোষণা এইচএম এরশাদের সঙ্গে বিশ্বাসঘাতকতার শামিল।

এ ব্যাপারে রংপুর মহানগর জাপার সভাপতি, রংপুর সিটি মেয়র ও প্রেসিডিয়াম সদস্য মোস্তাফিজার রহমান মোস্তফা বলেন, ‘দলের চেয়ারম্যান কে হবেন, এটা তো এরশাদ ঘোষণা দিয়ে গেছেন। আমরা জিএম কাদেরকে চেয়ারম্যান মানি; রওশন এরশাদকে মানি না। রংপুর অঞ্চলের নেতাকর্মীরা জিএম কাদেরের নেতৃত্বে পূর্ণ আস্থা রাখে। এখানে রওশন এরশাদের কোনও আদেশ-নির্দেশ মানা হবে না।’ সিটি মেয়র আরও বলেন, ‘রওশন এরশাদকে চেয়ারম্যান ঘোষণাকারী ভুঁইফোড় নেতারা রংপুরে এলে তাদের প্রতিহত ও প্রতিরোধ করা হবে।’
অন্যদিকে জাপার কেন্দ্রীয় যুগ্ম মহাসচিব ও মহানগর জাপার সাধারণ সম্পাদক এস এম ইয়াসির বলেন, যারা রওশন এরশাদকে চেয়ারম্যান ঘোষণা করেছেন, তারা দলের গঠনতন্ত্রবিরোধী কথা বলেছেন। রওশনকে চেয়ারম্যান ঘোষণা দেওয়া ঠিক হয়নি।
এ ব্যাপারে জাপার কেন্দ্রীয় ভাইস চেয়ারম্যান ও রংপুর জেলা সাধারণ সম্পাদক এসএম ফখর উজ জামান জাহাঙ্গীর বলেন, ‘আমরা রওশন এরশাদকে দলের চেয়ারম্যান ঘোষণা করার সিদ্ধান্ত মানি না। আমরা এরশাদের নির্দেশনা অনুযায়ী জিএম কাদেরকে চেয়ারম্যান মানি। রওশনের কথায় নয়, এরশাদের ভাই জিএম কাদেরের কথায় দল চলবে। তিনি দাবি করেন, ‘রংপুরসহ পুরো বিভাগে রওশন এরশাদের পক্ষে একজন নেতাকর্মীও খুঁজে পাওয়া যাবে না; সবাই জিএম কাদেরের পক্ষে।’

এদিকে জিএম কাদের বা রওশনের পক্ষে বা বিপক্ষে নেই জানিয়ে রংপুর জেলা জাপার যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও জাতীয় যুব সংহতির জেলা সভাপতি হাজী আব্দুর রাজ্জাক বলেন, আমি রংপুর সদর আসনের উপ-নির্বাচনে প্রার্থী। আমরা দলের মধ্যে বিশৃঙ্খলা একেবারেই সহ্য করবো না।’শুধু আব্দুর রাজ্জাক নন, তার মতো আরও অনেককে পাওয়া যায়; যারা পক্ষ বা বিপক্ষে না গিয়ে দলের মধ্যে বিশৃঙ্খলা চান না। তবে অনেকেই এই প্রতিবেদককে তাদের নাম প্রকাশ না করার অনুরোধ করেন।

অন্যদিকে এরশাদের মৃত্যুতে রংপুর-৩ আসনের উপ-নির্বাচন নিয়েও অভ্যন্তরীণ দ্বন্দ্ব রয়েছে পরিবার ও জাপায়। জিএম কাদেরপন্থীরা চান, এরশাদের পরিবার বা স্থানীয় নেতাদের মধ্যে কেউ নির্বাচন করুক। আর রওশনপন্থীরা চান, এ আসনে এরশাদপুত্র রাহগির আল মাহির সাদ এরশাদ নির্বাচন করুক।নাম প্রকাশ না করার শর্তে রংপুরের রওশনপন্থীরা জানান, জিএম কাদের তো বেশ কিছুদিন ধরেই দলের চেয়ারম্যানের দায়িত্ব পালন করছেন। এখন এ দায়িত্ব রওশন এরশাদ কিছুদিন পালন করতেই পারেন। এতে একদিকে দলের বিশৃঙ্খলাটা দূর হবে। আবার চেয়ারম্যান হিসেবে কে বেশি যোগ্য কাদের না রওশন, তাও প্রমাণ হবে।

এদিকে, রংপুর সদর আসনের উপ-নির্বাচন নিয়ে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক জাপার রংপুরের স্থানীয় নেতাকর্মীরা জানান, রওশন এরশাদ তার ছেলে শাদকে প্রার্থী করতে অনেকদিন ধরে তাদের চাপ দিয়ে আসছেন। আর এরশাদ পরিবারের তিন সদস্য ভাতিজা সাবেক এমপি আসিফ শাহারিয়ার, ভাগ্নি টুম্পা ও এরশাদের আমেরিকা প্রবাসী ভাই মোর্শেদ ওপেলও মনোনয়ন চাইছেন। এ অবস্থায় স্থানীয় নেতাকর্মীরা আসনটিতে দলের ত্যাগী কোনও নেতাকে দেখতে চান; শাদ এরশাদকে প্রার্থী করার ব্যাপারে তাদের কোনও আগ্রহ নেই।

রওশনকে দলের চেয়ারম্যান ঘোষণার বিষয়ে এরশাদের ভাতিজা আসিফ শাহরিয়ার বলেন, ‘আমি নিজেও রংপুর সদর আসনের উপ-নির্বাচনে একজন প্রার্থী। পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করে আমাদের সিদ্ধান্ত জানাবো।

এ জাতীয় আরও খবর

যশোরে বাচ্চাকে মারধর করায় দলবল নিয়ে থানায় হনুমান

‘মন্ত্রী ফোন দিলেই ধরি না, তোমাদের মতো সাংবাদিকদের কাছে কী জবাব দেব?’

মধ্যরাতে বনানীতে ভিসিপুত্রের কাণ্ড!

যুদ্ধ শুরু হলে তার কোন সীমানা থাকবে না: জারিফের হুঁশিয়ারি

আল্লাহ ও ইসলামকে নিয়ে ফেসবুকে কটুক্তি করে প্রভাষক

৫৪ বছর পর চালু হচ্ছে বাংলাদেশ-দার্জিলিং ট্রেন

সরাইলে আ’লীগ নেতার বিরুদ্ধে অপপ্রচার, সম্মিলিত নাগরিক সমাজের প্রতিবাদ সমাবেশ

চার ক্লাবে মিলল টাকা, মদ, সিসা, ক্যাসিনো-জুয়ার সামগ্রী

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় মাদক ব্যবসায়ী, পাচারকারীদের বাড়ি চিহ্নিতকরণ শুরু

পাকিস্তানে বাস দুর্ঘটনায় নিহত ২৬

জয়নাল-ফারুকের ভয়ঙ্কর তথ্য : রোহিঙ্গা এনআইডি তৈরিতে ইসির ২০ জন

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ডিভাইস ব্যাপ ও মাদক কেমিক্যালসহ আটক ২ জনকে দন্ড