শুক্রবার, ১৮ই অক্টোবর, ২০১৯ ইং ৩রা কার্তিক, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

দুই বছর ধরে মেয়েকে শিকলে বেঁধে ভিক্ষা করছেন মা

news-image

ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়ক। মহাসড়কের কুমিল্লার চান্দিনা বাসস্ট্যান্ড। প্রতিবন্ধী মেয়েকে শিকলে বেঁধে এক বৃদ্ধা মা ভিক্ষা করছেন। কেউ এক-দুই টাকা দিচ্ছেন। কেউ মা-মেয়ের করুণ জীবন যাপন নিয়ে ভাবছেন।

হোসনে আরা আক্তার। বয়স ৩৫ বছর। জন্ম থেকে বাক ও বুদ্ধি প্রতিবন্ধী। তার বাড়ি কুমিল্লার দেবিদ্বার উপজেলার নবীয়াবাদ গ্রামে। বাবা আবদুল আজিজ মারা গেছেন অনেক আগেই। তিন বোন দুই ভাই। দুই বোনের বিয়ে হয়েছে। ভাই দুইজনের আর্থিক অবস্থা ভালো নয়। মেয়েকে শিকলে বেঁধে দুই বছর ধরে ভিক্ষা করছেন সুফিয়া বেগম। কোনো বিধবা ভাতা বা বয়স্ক ভাতা তিনি পাননি। মেয়েটিও কোনো প্রতিবন্ধী ভাতা পায়নি।

মা-মেয়ের এমন করুণ অবস্থা দেখে চান্দিনার মাদরাসা শিক্ষক মাসুমুর রহমান মাসুদ বলেন, প্রতিবন্ধী মেয়েকে বৃদ্ধা মা শেকলে বেঁধে ভিক্ষা করছেন। এই দৃশ্য অমানবিক। আর কত খারাপ অবস্থায় পড়লে মা ও মেয়ে ভাতা পাবে। দুইজনের ভাতার ব্যবস্থা হলে তারা একটু ভালো জীবন যাপন করতে পারতো।

সুফিয়া বেগম বলেন, হোসনে আরা তার প্রথম সন্তান। বড় আদরের সন্তান। এতো দিন পথে ঘাটে ঘুরতো। তাই বাধ্য হয়ে শিকলে বেঁধে সঙ্গে রেখে ভিক্ষা করছেন। সরকারের সাহায্য পেলে তদের কষ্ট কম হতো বলে তিনি জানান। দেবিদ্বারের বরকামতা ইউপি চেয়ারম্যান মো.নুরুল ইসলাম বলেন, পরিবারটিকে আমি চিনি। তাদের ভাতার বিষয়ে উপজেলা সমাজ সেবা কার্যালয়ে সুপারিশ করবো।

দেবিদ্বার উপজেলা সমাজ সেবা কর্মকর্তা মো.আবু তাহের বলেন, আমরা পরিবারটিকে দুইবার এমপি সাহেবের হাত দিয়ে আর্থিক অনুদান দিয়েছিলাম। ভাতা দেয়ার বিষয়টি ভেবে দেখব।

এ জাতীয় আরও খবর

আইয়ুব বাচ্চুকে হারানোর এক বছর

তিলের খাজা তৈরির রেসিপি

বার্সেলোনা থেকে এল ক্লাসিকো সরিয়ে ফেলার প্রস্তাব

গ্রামীণফোনের সাড়ে ১২ হাজার কোটি টাকা পাওনা আদায়ে হাইকোর্টের নিষেধাজ্ঞা

নারায়ণগঞ্জে ভুল চিকিৎসায় নবজাতকের মৃত্যু

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় মর্টারশেল উদ্ধার, নিস্ক্রিয় করলো সেনাবাহিনী

কাভার্ডভ্যান চাপায় ট্রাফিক সার্জেন্ট নিহত

ইলিশ ধরা নিয়ে গোলাগুলি, বিএসএফ সদস্য নিহত

নানা অভিযোগ : কাউন্সিলর পদ হারালেন সাঈদ

এফডিসিতে সমর্থকদের ঢুকতে দেওয়া হচ্ছে না, মৌসুমীর অভিযোগ

আবরারের ছোট ভাই ফাইয়াজ কুষ্টিয়া সরকারী কলেজে ভর্তি হলেন

টি-টোয়েন্টি সিরিজ : দলে ফিরলেন আরাফাত সানি ও আল আমিন