মঙ্গলবার, ২২শে অক্টোবর, ২০১৯ ইং ৭ই কার্তিক, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

সরাইলে যাত্রীবাহী বাস ও পিকআপ ভ্যানের মুখোমুখি সংঘর্ষ, চালকসহ নিখোঁজ ১৪

news-image

আরিফুল ইসলাম সুমন, ব্রাহ্মণবাড়িয়া : ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সরাইল বৈশামুড়া নামক স্থানে সোমবার (৭ অক্টোবর) বিকেলে যাত্রীবাহী বাস ও শ্রমিক বোঝাই পিকআপ ভ্যানের মুখোমুখি সংঘর্ষে পিকআপ ভ্যানের চালক সহ ১৪ শ্রমিক নিখোঁজ রয়েছেন। স্থানীয় প্রত্যক্ষদর্শী লোকজন দাবি করেন এ দূর্ঘটনায় পাঁচজন শ্রমিক ঘটনাস্থলে মারা যান। দূর্ঘটনার পর পরই কিছু লোক এগিয়ে এসে হতাহতদের ঘটনাস্থল থেকে উদ্ধার করে বিভিন্ন হাসপাতালে নিয়ে গেছেন। খবর পেয়ে অনেক পরে হাইওয়ে পুলিশ সদস্যরা ঘটনাস্থলে পৌঁছেন। এসময় মহাসড়কে যান চলাচল বন্ধ হয়ে পড়ে।

তবে এ দূর্ঘটনায় একজন লোকও মারা যাননি দাবি করে সোমবার রাত সাড়ে ১০টায় খাটিহাতা হাইওয়ে থানার উপ-পরিদর্শক আমির উদ্দিন এ প্রতিবেদককে বলেন, খবর পেয়ে সাইরেন বাজিয়ে ঘটনাস্থলে পৌঁছে পিকআপ ভ্যানের চালক সহ কোন শ্রমিককেই পাওয়া যায়নি। শুনেছি, আমরা ঘটনাস্থলে পৌঁছার আগেই তাদেরকে চিকিৎসার জন্য বিভিন্ন হাসপাতালে নিয়ে গেছেন লোকজন।

তিনি বলেন, শ্রমিকেরা হবিগঞ্জ জেলার মাধবপুর উপজেলার নোয়াপাড়া এলাকায় ঢালাই কাজ শেষে পিকআপ ভ্যানে বিকেলে ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদরের সুহিলপুর মিরাহাটি এলাকায় ফিরছিলেন। পিকআপ ভ্যানটিতে ১৩ জন শ্রমিক ছিলেন ও পেছনে ঢালাই মেশিন বাধা ছিল। শ্রমিক বোঝাই পিকআপ ভ্যানটি ফেরার পথে মহাসড়কের বৈশামুড়া নামক স্থানে পৌঁছলে ঢাকা থেকে হবিগঞ্জগামী অগ্রদূত পরিবহনের বেপরোয়া গতির একটি যাত্রীবাহী বাসের সঙ্গে মুখোমুখি সংঘর্ষ হলে পিকআপ ভ্যানটি ঢালাই মেশিন সহ পাশের জলাশয়ে পড়ে যায়। আর বাসটি মহাসড়কের পাশের একটি বাড়ির সীমানা প্রাচীরের দেওয়াল ভেঙে ঢুকে পড়ে। দূর্ঘটনা কবলিত দু’টি যানকেই আমরা আটক করতে সক্ষম হয়েছি। পিকআপ ভ্যানের চালক সহ ১২ জন শ্রমিকের নাম আমরা সংগ্রহ করেছি। বাকি দুই শ্রমিকের নাম পাওয়া যায়নি। নিখোঁজ শ্রমিকরা হলেন- মনির মিয়া, রাজিব মিয়া, মুছা মিয়া, শাহআলম মিয়া, সোহেল মিয়া, আর রহমান, ইরা মিয়া, হৃদয় মিয়া, সোহাগ মিয়া, শামীম মিয়া, হোছনা বেগম ও চালক কাশেম মিয়া। নিখোঁজ শ্রমিকদের সন্ধানে পুলিশ আশপাশের বিভিন্ন হাসপাতালে খোঁজখবর নিচ্ছে। এ ঘটনায় মামলা প্রক্রিয়াধীন।

এদিকে খাটিহাতা হাইওয়ে থানায় সোমবার রাতে উপস্থিত নিখোঁজ শ্রমিকদের সর্দার মীরাহাটি গ্রামের সিরাজুল হক এ প্রতিবেদককে বলেন, শ্রমিকদের বাড়ি জেলার বিভিন্ন এলাকায়। তারা আমার অধীনে কাজ করতেন। নোয়াপাড়া থেকে ঢালাই কাজ শেষে তারা পিকআপ ভ্যানে ফিরছিলেন। দূর্ঘটনার পর থেকে ১৪ জন শ্রমিক নিখোঁজ রয়েছেন। শুনেছি কয়েকজন ঢাকার বিভিন্ন হাসপাতালে মুমূর্ষু অবস্থায় চিকিৎসাধীন আছেন। তবে আমি একজনেরও অবস্থান নিশ্চিত হতে পারেনি। তাই তাদের অবস্থান নিশ্চিত হতে হাইওয়ে পুলিশের কাছে এসেছি।

এ জাতীয় আরও খবর

মহাসড়কে ওসির হাতে রজনীগন্ধা চালকের মুখে হাসি

ব্রাহ্মণবাড়িয়া জাতীয় নিরাপদ সড়ক দিবস উপলক্ষে র‌্যালী ও আলোচনা সভা

আমাদের না জানিয়ে হঠাৎ খেলা বন্ধ করে দেয়া একটা চক্রান্ত : পাপন

নেতানিয়াহু সরকার গঠনে ব্যর্থ

নদীর তীরবর্তী প্রতিষ্ঠানের প্লট-ফ্ল্যাট ক্রয়ে সতর্ক থাকার অনুরোধ নৌপরিবহন মন্ত্রণালয়ের

রংপুরে নিরাপদ সড়ক দিবস পালিত

এক পা উদ্ধারের পর পাওয়া গেলো খণ্ডবিখণ্ড দেহ

৪ কেজি চাল বিক্রির টাকায় ১ কেজি পেঁয়াজ কিনলেন নাছিমা

জমকালো অভিষেক সম্রাট ও সম্রাজ্ঞীর

আমি পদত্যাগ করব না : মেনন

খ্যাপা গরু সামলাতে প্রযুক্তি সম্পন্ন হেলিকপ্টার!

গৃহবধূকে ধর্ষণের পর হত্যার দায়ে ৭ জনের মৃত্যুদণ্ড