মঙ্গলবার, ১২ই নভেম্বর, ২০১৯ ইং ২৮শে কার্তিক, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

বজ্রপাতে মিরপুরে খেলা বন্ধ

news-image

স্পোর্টস ডেস্ক : বৃষ্টির আশঙ্কা ছিলো সকাল থেকেই, পুরোটা সময়েই আকাশ ছিলো গোমড়া। এরই মাঝে যথাসময়ে শুরু হয়েছিল ঢাকা মেট্রো ও চট্টগ্রাম বিভাগের মধ্যকার খেলা। কিন্তু প্রকৃতির বাধা ঠিকই সইতে হলো মিরপুর শেরে বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে খেলতে থাকা দুই দলকে।

নির্ধারিত সময় অর্থাৎ সকাল সাড়ে নয়টায়ই শুরু হয়েছিল খেলা। কোনো সমস্যা ছাড়াই শেষ হয় প্রথম সেশন। দ্বিতীয় সেশনের মাঝ পথেই নামে বৃষ্টি। ফলে আর্লি টি ডেকে নেন ম্যাচের দুই আম্পায়ার নাদির শাহ ও মোরশেদ আলি খান।

চা বিরতির পর যখন খেলতে নামবে দুই দল, ঠিক তখনই (দুপুর ২.২৮ মিনিটের দিকে) ভারী বজ্রপাত হয় মিরপুরের আশপাশে। বজ্রপাতের জোর এতটাই ছিল যে সঙ্গে সঙ্গে মাঠ ছেড়ে আবার ড্রেসিংরুমে চলে যান সবাই। ফলে বিলম্বিত হয় দ্বিতীয় দফায় খেলা শুরুর সময়।

তবে পনেরো মিনিটের মধ্যেই আবার শুরু হয় খেলা। নিজের অসম্পূর্ণ ওভারটি শেষ করেন আরাফাত সানি। বৃষ্টিতে খেলা বন্ধ হওয়ার আগে ৪০.৪ ওভার ব্যাটিং করে ৩ উইকেটে ১১৪ রান করেছিল চট্টগ্রাম।

বৃষ্টির বাধায় দিনের অন্যান্য ম্যাচগুলো যখন আটকে ছিলো, তখন মিরপুরের শেরে বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে ঠিকই যথাসময়ে শুরু হয় ঢাকা মেট্রো ও চট্টগ্রাম বিভাগের মধ্যকার ম্যাচটি। যেখানে টস জিতে আগে ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নেন চট্টগ্রাম অধিনায়ক মুমিনুল হক।

আগে ব্যাট করতে নেমে চট্টগ্রামের দুই ওপেনার তামিম ইকবাল ও সাদিকুর রহমান সাবধানী শুরু করেন। তামিম শুরু থেকেই ধীরেসুস্থে খেলতে থাকেন, তবে সাদিকুর খেলতে থাকেন বলের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে। মধ্যাহ্ন বিরতির আগে ব্যক্তিগত ফিফটি তুলে নিয়ে ৬৯ বলে ৫১ রানের ইনিংস খেলে আউট হন তিনি। মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের বলে উইকেট ছেড়ে বেরিয়ে খেলতে গিয়ে স্ট্যাম্পিং হন এ ওপেনার।

সাদিকুর ফিরে গেলেও ধরে খেলে মধ্যাহ্ন বিরতিতে যান তামিম। তবে দ্বিতীয় সেশনে আর বেশিক্ষণ টিকতে পারেননি তিনি। অবশ্য বেশ দুর্ভাগাই বলা চলে তাকে। মাহমুদউল্লাহর বোলিংয়ে সজোরে ড্রাইভ করেছিলেন তামিম। কিন্তু সেটি সিলি পয়েন্টে দাঁড়ানো ফিল্ডারের বুটে লেগে সরাসরি চলে যায় মাহমুদউল্লাহর হাতে। ফলে ইতি ঘটে তামিমের ১০৫ বলে ৩০ রানের সংগ্রামী ইনিংসের।

এদিকে তামিম আউট হওয়ার পর মাহমুদউল্লাহর তৃতীয় শিকারে পরিণত হন চট্টগ্রাম অধিনায়ক মুমিনুল দলীয় ১১৩ রানের মাথায় ব্যক্তিগত ১১ রানে আউট হন মুমিনুল। চট্টগ্রামের ৩টি উইকেটই নেন মাহমুদউল্লাহ। পিনাক ঘোষ ৫২ বলে ১৪ এবং তাসামুল হক ৩ বলে ১ রান নিয়ে অপরাজিত রয়েছেন।

এ জাতীয় আরও খবর

কসবায় দুই ট্রেনের সংঘর্ষ ১৫ জন নিহত : তিন সদস্যের তদন্ত কমিটি

কসবায় দুই ট্রেনের সংঘর্ষে নিহত ১২ 

সরাইলে ১ কোটি ৭৬ লক্ষ টাকা বরাদ্দে কর্মসৃজন কর্মসূচির উদ্বোধন

সরকার ঘূর্ণিঝড় বুলবুলে ক্ষতিগ্রস্থদের পাশে থাকবে : মো. মামুনুর রশিদ ডিসি

আরও ১১ টিভি সম্প্রচারের অপেক্ষায়

হোপ হাসপাতালের ভুল চিকিৎসায় শিশু মৃত্যুর অভিযোগ, তদন্ত কমিটি গঠন

অবশেষে রাজনের কারামুক্তি

নিজে নিজে পড়তে হবে, প্রাইভেট-কোচিং নয় : জাফর ইকবাল

বাঞ্ছারামপুরে পরকীয়ার বলি স্বামীকে হত্যা

‘বিএনপি-জামাত ক্ষমতার সময় বাংলাদেশ ছিল মিসকিনের দেশ’

বুলবুল তাণ্ডবে ট্রলারডুবি, নিখোঁজ ৯ জেলের লাশ উদ্ধার

তুরিন আফরোজ বললেন, আমি মুখ খুললে ট্রাইব্যুনালের অনেক কিছুই প্রশ্নবিদ্ধ হবে