বৃহস্পতিবার, ১৪ই নভেম্বর, ২০১৯ ইং ৩০শে কার্তিক, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

মোশাররফ করিম জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার গ্রহণ করবেন না!

news-image

বিনোদন প্রতিবেদক : নাটক, বিজ্ঞাপন, সিনেমা প্রতিটি সেক্টরে নিজের অনবদ্য অভিনয় দিয়ে দর্শক হৃদয়ে স্থান করে নিয়েছেন মোশাররফ করিম। জনপ্রিয় এই অভিনেতা ‘কমলা রকেট’ চলচ্চিত্রে অভিনয় করে ২০১৮ সালের সেরা কৌতুক অভিনেতা হিসেবে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার পেয়েছেন। পুরস্কার ঘোষণার দু’দিন পর জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারের জুরি বোর্ডের কাছে নিজের নাম প্রত্যাহার করে নেয়ার অনুরোধ জানালেন মোশাররফ করিম।

মোশাররফ করিমকে কৌতুক অভিনেতা হিসেবে নির্বাচন করায় মিশ্র প্রতিক্রিয়াও দেখাচ্ছেন অনেকে। এ নিয়ে শুরু হয়েছে নতুন বিতর্ক। বর্তমানে তিনি ব্যক্তিগত কাজে মালয়েশিয়াতে অবস্থান করছেন। তবে সেখান থেকে এ প্রসঙ্গে মুখ খুললেন মোশারফ করিম নিজেই। তার ভেরিফাইড ফেসবুক পেজে স্ট্যাটাসের মাধ্যমে নিজের অবস্থান তুলে ধরেন।

মোশাররফ করিমের স্ট্যাটাসটি ডেইলি বাংলাদেশের পাঠকদের জন্য হুবুহু তুলে ধরা হলো: সকলের সদয় অবগতির জন্য জানাচ্ছি যে, গত ৭ নভেম্বর দেশের চলচ্চিত্র অঙ্গনের সবচেয়ে বড় পুরস্কার জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার ঘোষণা করা হয়েছে। ২০১৮ সালের পুরস্কার প্রাপ্তদের তালিকায় আমি নিজের নামও দেখতে পেয়েছি। নুর ইমরান মিঠু পরিচালিত ‘কমলা রকেট’ চলচ্চিত্রের জন্য আমাকে ‘শ্রেষ্ঠ অভিনেতা কৌতুক চরিত্রে’ পুরস্কার প্রদান করা হয়েছে।ধন্যবাদ সংশ্লিষ্টদের।

কিন্তু এই পুরস্কার প্রাপ্তি নিয়ে আমার কিছু কথা রয়েছে। তার আগে সবাইকে অবগত করতে চাই, কৌতুকপূর্ণ বা কমেডি চরিত্র আমার কাছে অন্যসব চরিত্রের মতোই সমান গুরুত্বপূর্ণ।

কিন্তু ‘কমলা রকেট’ চলচ্চিত্রে আমি যে চরিত্রটিতে অভিনয় করেছি সেটি কোনোভাবেই কমেডি বা কৌতুক চরিত্র নয়। ছবিটির চিত্রনাট্যকার, পরিচালকসহ সহশিল্পীরা নিশ্চয় অবগত আছেন। একই সঙ্গে যারা ছবিটি দেখেছেন তারাও নিশ্চয় উপলব্ধি করেছেন ‘কমলা রকেট’-এ আমার অভিনয় করা ‘মফিজুর’ চরিত্রটি কোনো কৌতুক চরিত্র নয়। এটি প্রধান চরিত্রগুলোর একটি।

তাই, সন্মানিত জুরি বোর্ডের কাছে আমার অনুরোধ, ‘শ্রেষ্ঠ অভিনেতা কৌতুক চরিত্রে’ আমার জন্য বরাদ্দ করা পুরস্কারটা প্রত্যাহার করে নিলে ভালো হয়। না হলে আমার পক্ষে এই পুরস্কার গ্রহণ করা সম্ভব নয়। আমি কাজটাকে ভালোবেসে আমৃত্যু কাজ করে যেতে চাই। আমার ভক্ত, শুভাকাঙ্খিসহ সবার কাছে আমার ও আমার পরিবারের জন্য দোয়া চাই। একই সঙ্গে যারা পুরস্কার পেয়েছেন সবাইকে অভিনন্দন জানাই।

প্রসঙ্গত, ২০০৪ সালে তৌকির আহমেদ পরিচালিত ‘জয়যাত্রা’ চলচ্চিত্রের মাধ্যমে বড় পর্দায় অভিষেক হয় মোশাররফ করিমের। এরপর তিনি রূপকথার গল্প, দারুচিনি দ্বীপ, থার্ড পারসন সিঙ্গুলার নাম্বার, প্রজাপতি, টেলিভিশন, জালালের গল্প, অজ্ঞাতনামা ও হালদা চলচ্চিত্রে অভিনয় করেছেন।