শুক্রবার, ১৬ই নভেম্বর, ২০১৮ ইং ২রা অগ্রহায়ণ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্রের শিল্পী রঙ্গলাল দেব চৌধুরী আর নেই

news-image

অনলাইন ডেস্ক : স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্রের শিল্পী রঙ্গলাল দেব চৌধুরী আর নেই। কানাডার স্থানীয় সময় বৃহস্পতিবার বিকেল ৫টায় টরন্টোর সেইন্ট মাইকেল হাসপাতালে তিনি শেষ নিশ্বাস ত্যাগ করেন। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৮২ বছর।

এদিকে, মুক্তিযুদ্ধের শব্দসৈনিক শিল্পী রঙ্গলাল দেবের মৃত্যুর খবর ছড়িয়ে পড়লে টরন্টোর বাংলা কমিউনিটিতে শোকের ছায়া নেমে আসে। দুর্গা পূজায় বিভিন্ন মন্দিরে সমবেত মানুষগুলোও শোকাভিভুত হয়ে পড়েন। টরন্টোর শিল্পী, সাংস্কৃতিক কর্মীরা ফেসবুকে পোস্ট দিয়ে শিল্পীর মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করেন এবং তার প্রতি শ্রদ্ধা জানান।

টরন্টো ফিল্ম ফোরাম স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্রের শিল্পী রঙ্গলাল দেব চৌধুরীর মৃত্যুতে গভেীর শোক প্রকাশ করেছে এবং শোকসন্তপ্ত পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা জানিয়েছে।

টরন্টো থিয়েটার ফকস বলেছে, স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্রের সংগ্রামী শব্দশিল্পী রঙ্গলাল দেবের মৃত্যুতে আমরা মর্মাহত এবং তাঁর পরিবারের সকলের প্রতি গভীর সমবেদনা জ্ঞাপন করছি।

জালালাবাদ এসোসিয়েশন অফ টরন্টোর সভাপতি দেবব্রত দে তমাল এসোসিয়েশনের পক্ষ থেকে শিল্পী রঙ্গলাল দেবের মৃত্যুতে শোক ও বিনম্র শ্রদ্ধা জানিয়েছেন।

দেবব্রত দে তমাল বলেন, গত সেপ্টেম্বর মাসে বিশ্ব সিলেট সম্মেলনে তাকে মুক্তিযুদ্ধে বিশেষ অবদানের জন্য সম্মানিত করা হয়। এবং এটাই তার জীবিত অবস্থায় শেষ সম্মাননা। আমরা জালালাবাদ এসোসিয়েশন অফ টরন্টো তাকে সম্মান দিতে পেরে খুবই গর্বিত।

রঙ্গলাল দেব চৌধুরী ১৯৩৬ সালের ৭ জুলাই মৌলভীজারের শ্রীমঙ্গলে জন্মগ্রহন করেন। খ্যাতিমান সঙ্গীত শিল্পী আব্বাসউদ্দীন আহমদের আহ্বানে একটি সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে অংশ গ্রহণের মাধ্যমে তিনি সঙ্গীত জীবনে যাত্রা শুরু করেন। সঙ্গীতের সাধনায় মনোযোগী হলেও স্বাধিকার আন্দোলন তার মনকে উতলা করে তোলে। দেশাত্মবোধক গানের মাধ্যমে তিনি বাঙালির প্রাণের আকাঙ্ক্ষাকে ছড়িয়ে দিতে শুরু করেন।

১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধ শুরু হলে তিনি স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্রে যোগ দেন। দেশাত্মবোধক এবং জনউদ্দীপনামূলক গান গেয়ে তিনি মুক্তিযোদ্ধা এবং স্বাধীনতাকামী জনগণকে উদ্বুদ্ধ করার কাজে আত্মনিয়োগ করেন।

শিল্পী রঙ্গলাল খ্যাতিমান সুরকার হিসেবেও নিজেকে প্রতিষ্ঠা করেছিলেন। প্রথম ঢাকা ও চট্টগ্রামে বেতারে সঙ্গীত লাইব্রেরি প্রথা তার হাত দিয়েই শুরু হয়। তাঁর লেখা স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্রের পেছনের কথা মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাসের একটি মূল্যবান দলিল।সূত্র: নতুন দেশ.কম