g ‘খালেদা সাজাপ্রাপ্ত আসামির সাথে দেখা করতে পারেন না’ | AmaderBrahmanbaria.Com – আমাদের ব্রাহ্মণবাড়িয়া


শনিবার, ২৩শে সেপ্টেম্বর, ২০১৭ ইং ৮ই আশ্বিন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ

‘খালেদা সাজাপ্রাপ্ত আসামির সাথে দেখা করতে পারেন না’

AmaderBrahmanbaria.COM
জুলাই ১৬, ২০১৭
news-image

---

নিজস্ব প্রতিবেদক : খালেদা জিয়ার লন্ডন সফর বিষয়ে তারেক রহমানকে ইঙ্গিত করে আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক খালিদ মাহমুদ চৌধুরী বলেছেন, একজন সাজাপ্রাপ্ত আসামির সঙ্গে বাংলাদেশের সাবেক প্রধানমন্ত্রী দেখা করতে যেতে পারেন না।

রবিবার দুপুরে জাতীয় প্রেসক্লাবে ‘শেখ হাসিনার গ্রেফতার ও শিক্ষক নির্যাতন’ দিবস উপলক্ষে স্বাধীনতা শিক্ষক পরিষদের এক আলোচনা সভার অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন।

খালিদ মাহমুদ চৌধুরী বলেন, আরেকটি ওয়ান-ইলেভেনের ষড়যন্ত্র হচ্ছে। জাতীয় ও আন্তর্জাতিক ষড়যন্ত্রে আগামী নির্বাচনকে ভণ্ডুল করার চেষ্টা হচ্ছে।

তিনি আরো বলেন, ওয়ান-ইলেভেনের সরকারের যারা সহযোগী ছিল, তারা এখনো আমাদের আশপাশে আছে। প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, আমি ক্ষমা করতে পারি, কিন্তু ভুলতে পারি না। তাদের চিহ্নিত করে রাখতে হবে, ভুলা যাবে না।

আলোচনা অনুষ্ঠানের সভাপতিত্ব করেন অধ্যাপক ড. আবদুল মান্নান। অন্যদের মধ্যে বক্তব্য দেন রেলমন্ত্রী মুজিবুল হক, আয়োজক সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক অধ্যক্ষ শাজাহান আলম সাজু, কৃষক লীগের সাবেক নেতা এম এ করিম প্রমুখ।❏ মেয়েদের মাসিকেও কার্যকর: মেয়েদের মাসিকে অতিরিক্ত ক্ষরণ নিয়ন্ত্রণে আনতেও ধনে পাতা অনেক গুরুত্বপূর্ণ। এজন্য পাঁচশ মিলিলিটার পানিতে ছয় গ্রাম ধনে পাতা ফুটিয়ে নিতে হবে। এরপর ওই গরম পানিতে এক টেবিল চামচ চিনি ভালোভাবে মিশিয়ে খাইলে মাসিকের অতিরিক্ত রক্ত ক্ষরণ নিরাময় করা যায়।

❏ চুলকানি-পাঁচড়ায় ধনেপাতা: দেহের কাটা-ছেঁড়া অংশগুলো দ্রুত শুকানোর জন্য খুবই উপকারী এই উপাদান। দেহের চুলকানি-পাঁচড়ায় ধনেপাতার রস লাগালে তাড়াতাড়ি ভলো হয়ে যায়। অপারেশন বা আঘাতে ক্ষতিগ্রস্ত জায়গা দ্রুত নিরাময় করে এই ধনেপাতা।

❏ দাঁতের রক্ত পড়া বন্ধতে: ধনেপাতা রক্ষা করে মুখের ভেতরের নরম অংশগুলোকে। এমনকি লড়াই করে মুখগহবরের ক্যান্সারের বিরুদ্ধেও। ধনেপাতা চিবিয়ে রস বের করে তা দিয়ে দাঁত মাজলে দাঁত থেকে রক্ত পড়া বন্ধ হয় খুব দ্রুত। সাথে মাড়িও শক্ত করতে সাহায্য করে ধনেপাতা।

❏ মস্তিষ্কের রোগ নিরাময়ে: ধনেপাতায় রয়েছে আলজিমারস নামক পদার্থ। এই পদার্থ মস্তিষ্কে রোগ নিরাময়ের জন্য গুরুত্বপূর্ণ উপাদান হিসেবে কাজ করে। ফলে ধনেপাতার গুনাগুনের জন্য মস্তিষ্কে কোন রোগ ঠিকভাবে বাসা বাধতে পারে না।

❏ হাড় মজবুত করতে: হাড় মজবুত করতে ধনেপাতার গুণ তো বলে শেষ করা যায় না। এটি হাড়কে মজবুত করে। সুতরাং ধনেপাতা নিয়মিত পরিমাণমত খাওয়া উচিত।

❏ বাতের ব্যথা উপশমে: বাত ব্যথাই ধনেপাতা অনেক গুরুত্বপূর্ণ। যে সকল মানুষের বাতের সমস্যা থাকে, তারা যদি পরিমাণমত নিয়মিত ধনেপাতা খান তাহলে বাত রোগ নিরাময় করতে পারবে। যেভাবে খেতে হবে- ধনে পাতা সিদ্ধ করে সেই পানি খেলে বাতের ব্যথা সেরে যায়।

❏ চোখের রোগ নিরাময়ে: ধনেপাতাই ভিটামিন-এ থাকে প্রচুর পরিমাণে। আর চোখের পুষ্টি জোগায় এই ভিটামিন-এ। যাদের রাতকানা রোগ আছে। তাদের জন্য ধনেপাতা অনেক উপকার। রাতকানা রোগ দূর করতে ব্যাপক ভূমিকা রাখে ধনেপাতা।

❏ অর্শরোগে রক্ত বন্ধ করতে: অর্শরোগে ধনেপাতা অনেক সহায়ক। ধনেপাতার বেটে সেই রস খেলে অর্শরোগীর রক্ত পড়া বন্ধ হয়।

❏ অরুচি বাড়াতে সহায়ক: ধনেপাতা অত্যন্ত স্বাদময় সবজি। আর এই ধনেপাতা বেটে ভর্তা করে খেলে মুখের রুচি বাড়াতে সাহায্য করে। দেহের পিত্তও ঠান্ডা রাখে ধনেপাতা।

ধনেপাতার অপকারিতা

❏ লিভারের ক্ষতি করতে: এটা তো আমরা জানি কোন কিছুর অতিরিক্ত খাওয়াটা দেহের জন্য ভাল না, সে যত উপকারী হক না কেন। ধনেপাতার গুণ অনেক। কিন্তু অতিরিক্ত ধনেপাতা খেলে এটি লিভারের কার্যক্ষমতাকে খারাপভাবে প্রভাবিত করে থাকে। ধনেপাতাই থাকা এক ধরনের উদ্ভিজ তেল শরীরের বিভিন্ন অঙ্গ-প্রত্যঙ্গকে আক্রান্ত করে ফেলে। এছাড়া ধনেপাতাই এক ধরনের শক্তিশালী অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট রয়েছে যেটা সাধারণত লিভারের বিভিন্ন সমস্যা দূর করে। কিন্তু অতিরিক্ত মাত্রায় ধনেপাতা খেলে লিভারের ক্ষতি হতে পারে।

❏ নিম্ন রক্তচাপ: অতিরিক্ত ধনেপাতা খাওয়ার ফলে দেহের হৃৎপিণ্ড নষ্ট করে ফেলে, যার ফলে নিম্ন রক্তচাপ সৃষ্টি করে।বিশেষজ্ঞরা উচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে এই ধনেপাতা খাওয়ার পরামর্শ দিয়ে থাকেন। তাই এটি অতিরিক্ত খাওয়ার ফলে নিম্ন রক্তচাপের উদ্ভব ঘটতে পারে। এছাড়া এটি হালকা মাথাব্যথারও উদ্রেক করতে পারে।

❏ পেট খারাপ: ধনেপাতা পরিমাণমত গ্যাস্ট্রোইনটেস্টিনাল বিষয়ক সমস্যা দূর করে থাকে। কিন্তু বেশি পরিমাণে ধনেপাতা খেলে পাকস্থলীতে হজমক্রিয়ায় সমস্যা তৈরি করে থাকে। একটি গবেষণায় দেখা গেছে যে এক সপ্তাহে ২০০ এমএল ধনেপাতা আহারে গ্যাসের ব্যথা ওঠা, পেটে ব্যথা, পেট ফুলে ওঠা, বমি হওয়া এমনকি পাতলা পায়খানা হওয়ারও সম্ভাবনা দেখা যায়।

❏ ডায়রিয়া: ধনেপাতা অল্প খেলে পেটের সমস্যা দূর হয়। কিন্তু বেশি পরিমাণে ধনেপাতা খেলে ডায়রিয়া হওয়ার আশঙ্কা থেকে যায়। এছাড়া এর ফলে ডিহাইড্রেশন হতে থাকে। ফলে ডায়রিয়ার সমস্যাটি হতেই থাকে। তাই এই ধরনের সমস্যা এড়াতে প্রতিদিনের খাবারে ধনেপাতা কম পরিমাণে ব্যবহার করুন।

❏ নিঃশ্বাসের সমস্যা: যদি কোন মানুষ শ্বাসকষ্টের রোগী হয়ে থাকে তাহলে ধনেপাতা খাওয়া থেকে বিরত থাকা উচিত। কেননা এটি শ্বাস-প্রশ্বাসের সমস্যা করে। যার ফলে ফুসফুসে অ্যাজমার সমস্যা হতে পারে। এই ধনেপাতা খেলে মাঝে মাঝে ছোট ছোট নিশ্বাস নিতেও সমস্যা তৈরি হয়।

❏ বুকে ব্যথা: অতিরিক্ত ধনেপাতা খাওয়ার ফলে বুকে ব্যথার মতো জটিল সমস্যাও দেখা দিতে পারে। এটা শুধুমাত্র অস্বস্তিকর ব্যথাই সৃষ্টি করে না তা দীর্ঘস্থায়ীও হয়ে থাকে। এজন্য এই সমস্যা থেকে রেহাই পেতে দৈনন্দিন আহারে কম করে এই ধনেপাতা খেতে পারেন।

❏ ত্বকের সংবেদনশীলতা: সবুজ ধনেপাতাতে মোটামুটিভাবে কিছু ঔষধি অ্যাসিডিক উপাদান থাকে যেটি ত্বককে সূর্যরশ্মি থেকে বাঁচিয়ে সংবেদনশীল করে থাকে। কিন্তু অতিরিক্ত ধনেপাতা খাওয়ার ফলে সূর্যের রশ্মি একেবারেই ত্বকের ভেতরে প্রবেশ করতে পারে না। তাই ত্বক ভিটামিন থেকে বঞ্চিত হয়। এছাড়া ধনেপাতা ত্বকের ক্যান্সার প্রবণতাও তৈরি করে থাকে।

❏ ভ্রূণের ক্ষতি: গর্ভকালীন সময়ে অতিরিক্ত ধনেপাতা খাওয়া ভ্রূণের বা বাচ্চার শরীরের জন্য বেশ ক্ষতিকারক। ধনেপাতাতে থাকা কিছু উপাদান মহিলাদের প্রজনন গ্রন্থির কার্যক্ষমতাকে নষ্ট করে ফেলে। যার ফলে মহিলাদের বাচ্চা ধারণ ক্ষমতা লোপ পায় এবং বাচ্চা ধারণ করলেও গর্ভকালীন ভ্রূণের মারাত্মক ক্ষতি করে থাকে।

❏ প্রদাহ: অতিরিক্ত ধনেপাতা খাওয়াই আরেকটি বিশেষ পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া হলো মুখে প্রদাহ হওয়া। এই ঔষধিটির বিভিন্ন এসিডিক উপাদান যেটি আমাদের ত্বককে সংবেদনশীল করে থাকে। পাশাপাশি এটি মুখে প্রদাহেরও সৃষ্টি করে। বিশেষ করে এর ফলে ঠোঁট, মাড়ি এবং গলা ব্যথা হয়ে থাকে। এর ফলে সারা মুখ লালও হয়ে যায়।

❏ অ্যালার্জির সমস্যা: ধনেপাতার প্রোটিন উপাদানটি শরীরে আইজিই নামক অ্যান্টিবডি তৈরি করে যা শরীরের বিভিন্ন রাসায়নিক উপাদানকে সমানভাবে বহন করে থাকে। কিন্তু এর অতিরিক্ত মাত্রা উপাদানগুলোর ভারসাম্য নষ্ট করে ফেলে। ফলে অ্যালার্জি তৈরি হয়। এই অ্যালার্জির ফলে দেহে চুলকানি, ফুলে যাওয়া, জ্বালাপোড়া করা- এই ধরনের নানা সমস্যা হয়ে থাকে।

এ জাতীয় আরও খবর